• শনিবার   ১৫ আগস্ট ২০২০ ||

  • শ্রাবণ ৩০ ১৪২৭

  • || ২৫ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
দুদকের ‘ভুয়া কমিশনার’ গ্রেফতার মৃত্যুহার কম হওয়াতেই করোনা ব্রিফিং বন্ধ হয়েছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী সাবরিনা-আরিফসহ ৮ আসামির জামিন নামঞ্জুর করোনায় আরও ৪২ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২৯৯৫ দেশে একদিনে ৩৩ মৃত্যু, আক্রান্ত ২৯৯৬ করোনায় আরও ৩৯ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২৯০৭ পদ্মা ব্যাংকের অর্থ আত্মসাৎ মামলায় সাহেদ ৭ দিনের রিমান্ডে করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৩৪ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২৪৮৭ দলীয় পরিচয় কোনো অপরাধীকে রক্ষা করতে পারেনি: কাদের লাইসেন্স নবায়ন না করলেই বেসরকারি হাসপাতাল বন্ধ দেশে করোনায় আরও ৩২ মৃত্যু, শনাক্ত ২৬১১ কাল অনলাইনে শুরু একাদশের ভর্তি, যেভাবে আবেদন করবেন সুযোগ আছে, করোনা সংকটেও বিনিয়োগ আনতে হবে: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে জাপানের প্রধানমন্ত্রী আবের ফোন করোনায় আরও ৩৩ মৃত্যু, শনাক্ত ২৬৫৪ কামাল বেঁচে থাকলে সমাজকে অনেক কিছু দিতে পারতো: শেখ হাসিনা সাবেক সেনা কর্মকর্তা সিনহার মাকে প্রধানমন্ত্রীর ফোন করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৫০ মৃত্যু, শনাক্ত ১৯১৮ করোনায় আরও ৪৮ মৃত্যু, শনাক্ত ২৬৯৫ প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে অসচ্ছল গর্ভবতী নারীরা পাবে চার হাজার টাকা
১২৭

অ্যান্টিবায়োটিক সেবনে বাড়ছে মৃত্যুঝুঁকি

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ১৩ জানুয়ারি ২০২০  

প্রেসক্রিপশন ছাড়াই বছরে বিক্রি হচ্ছে অন্তত ৫০ কোটি পিস অ্যান্টিবায়োটিক। নিয়ম না মেনে মাত্রাতিরিক্ত অ্যান্টিবায়োটিক সেবনের ফলে জীবাণু ধ্বংস করার সামর্থ্য হারাচ্ছে জীবন-রক্ষাকারী এ ম্যাজিক ড্রাগ। গবেষণায় উঠে এসেছে, আইসিইউতে মৃত্যু হওয়া ৮০ ভাগ রোগীর শরীরে পাওয়া জীবাণুগুলো সব অ্যান্টিবায়োটিক প্রতিরোধী। বিশেষজ্ঞদের মতে, ভয়ঙ্কর এ পরিস্থিতি মোকাবিলার অন্যতম প্রধান পথ যে কোনো মূল্যে অ্যান্টিবায়োটিকের যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিত করা।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের আইসিইউতে ভর্তি শুভজিত এবং অমিত। বয়স ৩০ না পেরুলেও দুজনের শরীরেই রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা নিঃশ্বেষ প্রায়। পরীক্ষা নিরীক্ষার পর জানা যায়, ২০টি অ্যান্টিবায়োটিকের কেবল একটি কাজ করছে দুজনের শরীরে। প্রয়োজনে- অপ্রয়োজনে নিময় না মেনে অ্যান্টিবায়োটিক খাওয়ায় তাদের শরীরে ওষুধের চেয়েও শক্তিশালী এখন জীবাণু।

এক চিকিৎসক বলেন, একটি অ্যান্টিবায়োটিক যখন আগামী ২ থেকে ৩ বছরের মধ্যে অকার্যকর হয়ে যাবে, তখন এ ধরনের রোগীদের শরীরে জীবাণু আক্রান্ত হলে, তাদের আর অ্যান্টিবায়োটিক দিয়ে চিকিৎসা করানো যাবে না। ফলে তারা মৃত্যুর ঝুঁকিতে পাড়বে।

চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ও ছোটখাট সমস্যায় অ্যান্টিবায়োটিক সেবন ও নিয়ম মেনে কোর্স পূরণ না করায় শরীরে জীবাণুর বিরুদ্ধে কার্যকারিতা হারাচ্ছে অ্যান্টিবায়োটিক।

অ্যান্টিবায়োটিক না খেয়েও প্রকৃতি ও পরিবেশে থাকা এসব ড্রাগ রেজিস্টেন্স জীবাণু শরীরে প্রবেশ করায় মৃত্যুর কাছে হার মানছে অনেক শিশুও।

এক চিকিৎসক বলেন, আমার কাছে প্রমাণ আছে তিনটা রোগীর, তারা তিনজনই অ্যান্টিবায়োটিক সেবন করতো। এবং এ তিনজনই শরীরে এখন অ্যান্টিবায়োটিক কাজ করছে না।

এক ফার্মাসিস্ট বলেন, এখানে আমরা ১শ’ প্রেসক্রিপশন পেলে তার মধ্যে ৭০টা তেই অ্যান্টিবায়োটিক থাকে। আমার কাছে তিনটি শিশু রোগী আসছে।

প্রকোপ কমাতে জ্বর, সর্দি, হাঁচি কাশির মতো সাধারণ অসুখে রোগীদের অ্যান্টিবায়োটিক না দেবার পরামর্শ বিশেষজ্ঞদের।

এক ফার্মাকোলোজিস্ট বলেন, ধরেন যোগ্য চিকিৎসক সাধারণ কারণেও একজন রোগীকে অ্যান্টিবায়োটিক দিচ্ছে, সেই অ্যান্টিবায়োটিকটি তিনি নিময় মেনে গ্রহণ করছেন না। তবে সব সমস্যার সমাধান হচ্ছে অ্যান্টিবায়োটিকের ব্যবহার কমানো।

সম্প্রতি ব্যবস্থাপত্র ছাড়া অ্যান্টিবায়োটিক বিক্রি বন্ধে হাইকোর্টের নির্দেশনা বাস্তবায়নে কাজ করছে ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তর।

ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের এক কর্মকর্তা বলেন, ফার্মেসিগুলো ধীরে ধীরে একটি স্টান্ড্যান্ট ফার্মেসিতে রূপান্তরিত করা হবে। মানসম্পন্ন অ্যান্টিবায়োটিক তৈরি হচ্ছে কি না। উৎপাদন প্রক্রিয়ায় ম্যানুফ্যাক্সিং সঠিকভাবে নিশ্চিত করছে কি না। তা কিন্ত নিময়মিত মনিটরিং করা হচ্ছে।

হাত বাড়ালেই অ্যান্টিবায়োটিক, স্বেচ্ছায় হাতুড়ে ডাক্তার এমনকি দোকানির পরামর্শে ভোগাসে অ্যান্টিবায়োটিক গিলছে সাধারণ মানুষ। রেজিস্ট্রার চিকিৎসকের প্রেসক্রিপশন ছাড়া অ্যান্টিবায়োটি সম্পূর্ণরূপে ফার্মাসিতে বিক্রি বন্ধ করা না গেলে, আগামীতে সাধারণ হাঁচি কাশিতেও মৃত্যুর ঘটনা বাড়বে বলে আশঙ্কা ওষুধ বিশেষজ্ঞদের।

স্বাস্থ্য বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর