• সোমবার   ১৮ জানুয়ারি ২০২১ ||

  • মাঘ ৫ ১৪২৭

  • || ০৪ জমাদিউস সানি ১৪৪২

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
মেডিক্যালে ভর্তি পরীক্ষা এপ্রিলে, বাড়ছে ১১শ’ আসন করোনায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ১৬, শনাক্ত ৬৯৭ কাউন্সিলর মৃত্যুর ঘটনায় জড়িতদের বিচারের আওতায় আনা হবে: কাদের হাতিয়ায় বিবস্ত্র করে নির্যাতন ও ভিডিও: ৫ জন গ্রেফতার ২৬ জানুয়ারির মধ্যে সেরামের টিকা আসবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় চলচ্চিত্র নির্মাণের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর পরিবার নিয়ে দেখা যায় এমন সিনেমা তৈরি করুন: প্রধানমন্ত্রী করোনায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ২১, শনাক্ত ৫৭৮ ২২ সালের মধ্যে ঢাকা-কক্সবাজার রেল চালু হবে: রেলমন্ত্রী করোনায় ২৪ ঘণ্টায় দেশে আরও ১৬ জনের মৃত্যু ৬২ সহযোগীর মাধ্যমে অর্থপাচার, পিকে হালদারের হাজার কোটি টাকা ফ্রিজ কোনো প্রকল্পের মেয়াদ বাড়ানো হবে না : উশৈসিং বাংলাদেশে বিশ্বের সেরা মানের পাট উৎপাদিত হয়: পাটমন্ত্রী করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ১৪ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৮৯০ পিকে হালদারের বান্ধবী গ্রেফতার করোনায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ১৬, শনাক্ত ৭১৮ আওয়ামী লীগ সরকারে আছে বলেই দেশ স্বনির্ভর হয়ে উঠছে: প্রধানমন্ত্রী করোনায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ২২, শনাক্ত ৮৪৯ ভাসানচর নিয়ে আন্তর্জাতিক এজেন্সির সাপোর্ট পাচ্ছি: মোমেন এইচএসসির ফল ২৮ জানুয়ারির মধ্যে

আগামী কাউন্সিলে পদ হারাতে পারেন খালেদা-ফখরুল

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ১৩ জানুয়ারি ২০২১  

দীর্ঘদিন ধরে নিষ্ক্রিয় থাকা বিএনপিকে চাঙ্গা করতে আগামী কাউন্সিল বা তার আগেই দলের দুই শীর্ষ পদে আসছে ব্যাপক পরিবর্তন। অনুসন্ধানে জানা গেছে, সব ঠিক থাকলে শিগগিরই বিএনপির জাতীয় কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। অনুষ্ঠেয় কাউন্সিলে মাইনাস ফর্মুলার অংশ হিসেবে দলীয় প্রধানের পদ থেকে খালেদা জিয়া ও মহাসচিব হিসেবে পদ হারাতে পারেন জ্যেষ্ঠ নেতা মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

আর পুরো বিষয়টি লন্ডনে বসে নিয়ন্ত্রণ করছেন বিএনপির বর্তমান ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। দেশে তার ‘ডান হাত’ কিংবা ‘নির্ভরযোগ্য প্রতিনিধি’ হয়ে কাজ করছেন দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ। এ কারণে তাকেই তারেক রহমান পরবর্তী মহাসচিব করতে চান। প্রস্তুতিও প্রায় চূড়ান্ত।

এমতাবস্থায় ‘ইন-আউট’ দ্বন্দ্বে পড়ে এতদিনের রাজনৈতিক সহযোদ্ধা ও প্রিয় নেত্রীর সঙ্গ ত্যাগ করেছেন মির্জা ফখরুল। চেষ্টা করছেন পরবর্তী চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নিকটবর্তী হতে। আর তাকে ‘খুশি’ করতেই নানা কথার ফুলঝুরি উড়াচ্ছেন।

জানতে চাইলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দলটির সিনিয়র এক নেতা জানান, স্বার্থ ছাড়া এক পা-ও অগ্রসর হন না বিএনপির জ্যেষ্ঠ নেতা ও দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। এতদিন খালেদাপন্থীর খেতাব থাকলেও সম্প্রতি এই সুবিধাবাদী নেতা বুঝেছেন, খালেদা জিয়া নয়- বিএনপির সমস্ত কলকাঠি নাড়েন লন্ডনে পলাতক ফেরারি আসামি তারেক রহমান এবং দেশে তার হয়ে কাজ করেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। যেহেতু তারেকের সব সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন, পদ-মনোনয়ন-কমিটি বাণিজ্য, দলীয় ফান্ডিংয়ের অর্থ লন্ডনে কৌশলে পৌঁছে দেয়ার কাজটি অপ্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে রিজভীই করেন, তাই তারেকেরও পছন্দ দলের পরবর্তী মহাসচিব যেন রিজভীই হন!

তাই এখন তারেক অনুসারী হতে ব্যতিব্যস্ত হয়ে পড়েছেন মির্জা ফখরুল। সম্প্রতি ফেসবুক লাইভে তারেককে দলের ‘চেয়ারম্যান’ বলে সম্বোধন করেন তিনি। তার এমন সুবিধাবাদী আচরণের পরপরই নড়েচড়ে বসেছেন দলের অন্যান্য সিনিয়র নেতারাও।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, বিএনপির ইতিহাসই ষড়যন্ত্রের, সুবিধাবাদের। জিয়াউর রহমান, খালেদা জিয়া, তারেক রহমান, মির্জা ফখরুল ইসলাম কিংবা রিজভীরা কেউই এর ঊর্ধ্বে নন। সময়ের ব্যবধানে তা কেবল প্রকাশ পাচ্ছে মাত্র। তাই তাদের থেকে দূরে থাকাই শ্রেয়।