সোমবার   ৩০ মার্চ ২০২০   চৈত্র ১৬ ১৪২৬   ০৫ শা'বান ১৪৪১

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
পিপিই যেন নষ্ট না হয়, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী করোনা মোকাবিলায় সরকার জনগণের পাশে আছে -প্রধানমন্ত্রী ছুটিতে কর্মস্থল ছাড়া যাবে না : সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসন করোনা সংকটকালে জনগণের পাশে থাকবে আ.লীগ: কাদের আমি করোনায় আক্রান্ত হইনি : স্বাস্থ্যমন্ত্রী বাংলাদেশে ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত নেই : আইইডিসিআর পদ্মা সেতু‌তে বসলো ২৭তম স্প্যান, দৃশ্যমান হলো ৪ হাজার ৫০ মিটার সব পোশাক কারখানা বন্ধের নির্দেশ ভোলায় সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে নৌ-বাহিনীর টহল পবিত্র শবে বরাত ৯ এপ্রিল অতি প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাইরে যাবেন না : প্রধানমন্ত্রী জাতির উদ্দেশে ভাষণ দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী সন্ধ্যায় জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী জাতির উদ্দেশে আজ ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী নিষেধাজ্ঞা অক্ষরে অক্ষরে পালন করুন : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশেই খালেদা জিয়াকে মুক্তির সিদ্ধান্ত করোনা ছোঁয়াচে, এক মিটার দূরত্বে থাকার পরামর্শ টিসিবি-ভোক্তা অধিদফতরের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ছুটি বাতিল ২৬ মার্চ থেকে সারাদেশে ১০ দিন গণপরিবহন বন্ধ সকল বেসরকারি প্রতিষ্ঠানও বন্ধের নির্দেশ
১৭

আজও অসমাপ্ত বব অ্যন্ড্রু উলমারের মৃত্যু রহস্য

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ১৯ মার্চ ২০২০  

২০০৭ সালের ১৮ মার্চ উইন্ডিজ বিশ্বকাপে অ্যায়ারল্যান্ডের সঙ্গে ম্যাচের পর টিম হোটেলে মারা যান পাকিস্তানের কোচ বব উলমার। উলমারের শরীরে আঘাত থাকায় প্রাথমিক ভাবে অস্বাভাবিক মৃত্যু হিসেবে গন্য করা হয়।

বিশ্বকাপ চলাকালীন এমন ঘটনা আলোড়ন তোলে ক্রিকেটবিশ্বে। ক্রিকেটারদের নিরাপত্তা নিয়েও প্রশ্ন ওঠে। নানা ঘটন-অঘটনের মধ্যে দিয়ে মানুষের মনে প্রশ্ন রেখে শেষ হয় বিচারকাজ।

ক্রিকেটের গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাসের মাঝে আছে এক রহস্য ঘেরা বিষাদ। ১১ বছর আগের সেই ঘটনা আজও মনে প্রশ্ন জাগায়, দাগ কাটে মানুষের মনে।

২০০৭ সালের ১৮ মার্চ। স্থান জ্যামাইকার পেগাসাস হোটেল। বিশ্বকাপে আয়ারল্যান্ডের সঙ্গে পাকিস্তানের লজ্জার পরাজয়ের কয়েক ঘন্টা পেরোয়নি। পাকিস্তানের কোচ বব উলমার কোনো এক হতাশা নিয়ে ১২ তলার ৩৭৪ নম্বর রুমে ঢোকেন। যে রুম থেকে আর কোনোদিন হেটে বের হননি বব উলমার। নিরাপত্তা কর্মীরা পরদিন সকালে বাথরুমে আবিস্কার করেন তার প্রাণহীন নিথর দেহ।

বিশ্বকাপ চলাকালীন এই ঘটনা ভয় ধরিয়ে দেয় সবার মনে। সে বিশ্বকাপে বাংলাদেশ শক্তিশালী ভারতকে হারিয়ে পরের পর্বে উঠেছিল। বব উলমারের শরীরে দাগ থাকায়, প্রাথমিক তদন্ত রিপোর্টে বলা হয় বল প্রয়োগ কিংবা খাদ্যে বিষক্রীয়ায় মারা গেছে উলমার।

পাকিস্তান ক্রিকেটে জুয়ার প্রভাব সবারই জানা। তবে কি আয়ারল্যান্ডের সঙ্গে হারার ম্যাচে ফিক্সিং করেছিল জুয়াড়িরা। আর তা জেনে ফেলায় এই করুন পরিনতি বব অ্যান্ড্রু উলমারের? বিষয়টি আরও ঘোলাটে হয় পাকিস্তানের এক স্টাফের মুখে মারামারির দাগ থাকায়। পাকিস্তানি খেলোয়াড়দেরও জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় কয়েক দফায়।

তদন্তের মধ্যবর্তী সময়ে জানানো হয় খাদ্যে বিষক্রিয়ায় মারা যান উলমার। সে রাতে উলমারকে খাবার দিয়ে যান হোটেল কর্মী। কি দিয়েছিলেন উলমারকে খেতে? তা নাকি নিশ্চিত ভাবে জানাতে পারেনি হোটেল কর্তৃপক্ষ।

অবশেষে ময়নাতদন্তের চূড়ান্ত রিপোর্ট দেয় স্কটল্যান্ড ইয়ার্ড। উলমারের ঘাড়ে নাকি কোনো দাগ পাওয়া যায়নি। অ্যাজমার সমস্যা ছিলো উলমারের। সেখান থেকেই নাকি কাশির তোড়ে শ্বাস রোধ হয়ে মারা যান পাকিস্তানের সাবেক এই কোচ।

স্বাভাবিক মৃত্যু হওয়ায় বন্ধ করা হয় কেস। তবে আজও মানুষের মনে প্রশ্ন জাগায় উলমারের নাকে মুখে আঘাতের দাগ এল কোথা থেকে? তাকে কি খেতে দেয়া হয়েছিল, কারাইবা দিয়েছিল। লাস্ট সাপারে তার সঙ্গে কে ছিল? এসব প্রশ্নের উত্তরেরও মৃত্যু হয়েছে উলমারের মৃত্যুর সঙ্গে।

আর অজানা এসব বিষয়ের কোনো সমাধান না থাকায় অনেক ক্রিকেট ভক্তের মনে আজও অসমাপ্ত থেকে গেছে বব অ্যন্ড্রু উলমারের মৃত্যু রহস্য।

এই বিভাগের আরো খবর