• বুধবার   ০৮ এপ্রিল ২০২০ ||

  • চৈত্র ২৪ ১৪২৬

  • || ১৪ শা'বান ১৪৪১

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
যারা সাহায্য চাইতে পারবে না তাদের তালিকা করতে বললেন প্রধানমন্ত্রী দেশে করোনায় আরও ৫ জনের মৃত্যু, আক্রান্ত বেড়ে ১৬৪ কারাগারে বঙ্গবন্ধুর পলাতক খুনি ক্যাপ্টেন মাজেদ বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনি ক্যাপ্টেন মাজেদ আদালতে বঙ্গবন্ধু হত্যা: আত্মস্বীকৃত খুনি ক্যাপ্টেন মাজেদ গ্রেফতার চিকিৎসকরা কেন চিকিৎসা দেবে না, এটা খুব দুঃখজনক : প্রধানমন্ত্রী দীর্ঘদিন জেলখাটা আসামিদের মুক্তির নীতিমালা করার নির্দেশ রমজানে সরকারি অফিস ৯টা থেকে সাড়ে ৩টা প্রণোদনা প্যাকেজ বাস্তবায়ন হলে অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়াবে: অর্থমন্ত্রী করোনা: ৭৩ হাজার কোটি টাকার আর্থিক সহায়তা প্যাকেজ ঘোষণা বেসরকারি হাসপাতাল চিকিৎসা না দিলেই ব্যবস্থা: স্বাস্থ্যমন্ত্রী প্রতি উপজেলা থেকে নমুনা সংগ্রহ করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর আজ থেকে কঠোর অবস্থানে যাচ্ছে সেনাবাহিনী মানুষের পাশে না দাঁড়িয়ে সমালোচনা করছে বিএনপি : কাদের দেশে আক্রান্তদের মধ্যে এ পর্যন্ত ২৬ জন সুস্থ : স্বাস্থ্যমন্ত্রী সেনাবাহিনী কতদিন মাঠে থাকবে সরকার বিবেচনা করবে: সেনাপ্রধান করোনায় খাদ্য ঘাটতি হবে না : কৃষিমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সে বক্তব্য রাখ‌ছেন প্রধানমন্ত্রী আজ সকালে ৬৪ জেলার কর্মকর্তাদের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর কনফারেন্স পিপিই যেন নষ্ট না হয়, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
৯১৫

চরফ্যাশনে চাষাবাদ হচ্ছে চিংড়ী মাছ

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ৩০ নভেম্বর ২০১৮  


ভোলার চরফ্যাশন উপজেলায় চাষাবাদ হচ্ছে চিংড়ী মাছ। এ সকল মাছ  রপ্তানী হচ্ছে দেশ-বিদেশে। এতে বাংলাদের আমদানী করছে বৈদেশীক মূদ্রা। এ মাছ আন্তর্জাতিক বাজারে চিংড়ির মত দেখতে একই প্রজাতির ‘ভেনামি’ মাছের চাহিদা বাড়ছে। আন্তর্জাতিক বাজারে এক পাউন্ড চিংড়ির দাম যেখানে ৭ ডলার, সেখানে মাত্র ৪ ডলারেই  সম-পরিমাণ ‘ভেনামি’ পাওয়া যায়। এ কারণে আমেরিকাসহ ইউরোপের বিভিন্ন দেশে চিংড়ির বাজার ক্রমেই দখল করে নিচ্ছে ‘ভেনামি’। তবে দেশে ‘ভেনামি’ চাষের অনুমতি এখনো দেয়নি সরকার।
‘রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরো’ (ইপিবি)-এর হিসাব মতে, চলতি ২০১৮-১৯ অর্থবছরের প্রথম চার মাসে হিমায়িত পণ্য খাতে রফতানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ছিলো ১৫ কোটি ৭৩ লাখ ডলার।  বিপরীতে রফতানি আয় হয়েছে ১৯ কোটি ৭৩ লাখ ডলার। কিন্তু গত অর্থবছরের একই সময়ে হিমায়িত পণ্য খাতে রফতানি আয়ের পরিমাণ ছিলো ২২ কোটি ৬৯ লাখ ডলার। সেদিক থেকে লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় এবার রফতানি আয় ৪ কোটি ডলার বেশি হলেও এটা গত অর্থবছরের (২০১৭-১৮) একই সময়ের তুলনায় ৩ কোটি ডলার কম।
বাংলাদেশ ফ্রোজেন ফুড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন-এর নেতারা জানান, হিমায়িত পণ্যের রফতানি কমছে। আজ থেকে ১০ বছর আগে হিমায়িত পণ্যের রফতানিকারক যেখানে ছিলো ১৪০টি প্রতিষ্ঠান, এখন তা কমে দাঁড়িয়েছে ২০টিতে। এখন আন্তর্জাতিক বাজারে ভেনামির সঙ্গে দামে পেরে উঠছে না চিংড়ি। এখন যদি দেশে ভেনামি উৎপাদন না করা হয় তাহলে আরো বিপাকে পড়তে হবে।
চরফ্যাসনের বিছিন্ন দ্বীপ কুকরি-মুকরির মৎস্য চাষী আলী হোসেন বলেন, আমি গলদা ও বাগদা মাছ চাষ করছি। লাভবান হচ্ছি। ঢাকায় মাছ রপ্তানী করা হচ্ছে। সরকারি ভাবে ঋণের ব্যবস্থা করলে আরো চাষাবাদে আগ্রহ প্রকাশ করত সাধারণ চাষীরা। 
চিংড়ী চাষী ইকবাল হোসেন বলেন, প্রায় ২০ বর্গ কিলোমিটার আয়তনের ম্যানগ্রোভ বাগানসহ ৪০বর্গ কিলোমিটার আয়তনে চরকুকরী-মুকরী একটি ইউনিয়ন। জালের মতো ছড়িয়ে থাকা ম্যানগ্রোভ বাগান, সাগরের ঢেউ আছঁড়ে পড়া বিস্তৃতি সৈকত, হরিণ- বানরসহ নানান প্রজাতির বন্য প্রাণীর কিচির-মিচির, শিয়ালের হাঁক, শীতের অতিথি পাখির কলকাকলী পর্যটকদের আকর্ষণ করছে এই দ্বীপ। জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭৩ সনের ১৩ ডিসেম্বর কুকরী-মুকরী সফর করেন এবং কুকরী-মুকরীর প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে মুগ্ধ হয়ে দ্বীপটিকে পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলার আগ্রহ প্রকাশ করেন। জাতির জনকের স্বপ্নের পর্যটন কেন্দ্র গড়ে তোলার সেই সুদূর  প্রবাসী চিন্তার ধারাবাহিকতায় যাত্রা শুরু করতে যাচ্ছে কুকরী-মুকরী ইকো-পার্ক। আর এ বিছিন্ন দ্বীপের চতুরপাশ দিয়ে রয়েছে চিংড়ী ঘের। আবার চিংড়ীর খামার এ খামারে রয়েছে বিভিন্ন জাতের চিংড়ী মাছ। 
চরকুকরি মুকরি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবুল হাসেম মহাজন বলেন, কুকরি মুকরি দ্বীপটি রয়েছে মৎস্য চাষীদের জন্যে সুন্দর একটি জায়গা। এ জায়গা বা স্থানে চাষীগন চিংড়ী চাষাবাদ করে অনেক বৈদেশীক মুদ্রা আমদানী করছে। অনেক চিংড়ীর পাইকারগন এসে সরাসরি খামার বা ঘের থেকে মাছ ক্রয় করে নিয়ে যাচ্ছে। এতে যাতায়াত বা যানবাহন আর প্রয়োজন হয়না। লাভবান হচ্ছে সাধারণ চাষী। এখানে শুধু চিংড়ীই চাষাবাদ হয়না কাকড়াও চাষাবাদ হচ্ছে। নতুন প্রজেক্ট হিসাবে কাকড়া এখন জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। মৎস্য চাষীগন বেশী আয়ের জন্যে কাকড়া চাষাবাদ করেছে। উপজেলা মৎস্য অফিসেও তাদের সহযোগিতা করতে শুরু করেছে। সরকারি সুযোগ সুবিধা দিয়ে  কাজ করছে বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন।
চরফ্যাসন উপজেলা মৎস্য অফিসার মারুফ হোসেন মিনার বলেন, চরফ্যাসন চরাঞ্চলে বেশ কিছু চাষী চিংড়ী মাছ চাষাবাদ করেছে। খামার রয়েছে প্রায় ২৫টি। এই সকল খামারে চাষাবাদ হচ্ছে চিংড়ী মাছ। চিংড়ী মাছের চাহিদা রয়েছে পর্যাপ্ত। এখানে গলদা, বাগদা মাছের চাষাবাদ হচ্ছে বেশী। সরকারি ভাবেও একটি হ্যাচারী রয়েছে। সেখানেও মাছ চাষাবাদ হয়। এখানের মাছ ঢাকাসহ দেশের বাহিরে রপ্তানী হচ্ছে। আমরা সর্ব সময় তাদেরকে পরামর্শ দিযে আসছি। কোন রোগ বিমারী হলে তা থেকে মুক্ত পাওয়ার জন্যে আমরা সর্বত্মক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।
 

উন্নয়ন বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর