• শুক্রবার   ০৫ মার্চ ২০২১ ||

  • ফাল্গুন ২০ ১৪২৭

  • || ২১ রজব ১৪৪২

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
করোনার টিকা নিলেন প্রধানমন্ত্রী দেশের উন্নয়নে গবেষণা ও বিজ্ঞানের বিবর্তন অপরিহার্য: প্রধানমন্ত্রী সীমান্তে হত্যাকাণ্ড দুঃখজনক: জয়শঙ্কর ২৪ ঘণ্টায় আরও সাতজনের মৃত্যু, শনাক্ত ৬১৯ বিএনপি এখন মায়াকান্না করছে: কাদের ২৪ ঘণ্টায় করোনায় ৫ মৃত্যু, শনাক্ত ৬১৪ সুন্দরবনে বিষ দিয়ে মাছ ধরা বন্ধ করতে হবে: বনমন্ত্রী ৪ কোটি ডোজ করোনার টিকা সংগ্রহ করা হবে: জাহিদ মালেক ১০ বছরে জিডিপি প্রবৃদ্ধিতে শীর্ষে বাংলাদেশ: অর্থমন্ত্রী মানুষকে খাদ্য সরবরাহ-সময়মতো ভ্যাকসিন দিতে হবে: প্রধানমন্ত্রী করোনায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৭, শনাক্ত ৫১৫ মুক্তিযুদ্ধকে অসম্মান করেছে বিএনপি: সেতুমন্ত্রী ঢাবির ১২ শিক্ষার্থীকে স্থায়ী বহিষ্কার দেশবিরোধী একটি মহল সরকার হটানোর ষড়যন্ত্র করছে: কাদের করোনায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৮, শনাক্ত ৫৮৫ মুশতাকের মৃত্যুর কারণ তদন্তে বেরিয়ে আসবে: তথ্যমন্ত্রী আজ থেকে ২ মাস ইলিশ আহরণ নিষিদ্ধ প্রেস ক্লাবে চরম ধৈর্যের পরিচয় দিয়েছে পুলিশ : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বেসরকারি চিকিৎসা সেবা ব্যয় নির্ধারণ শিগগিরই: স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাটকা সংরক্ষণে কাল থেকে ৬ জেলায় মাছ ধরা নিষিদ্ধ

চরফ্যাশন ও মনপুরায় ১৫০ পরিবারকে পাকা ঘর দিলেন প্রধানমন্ত্রী

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ২৩ জানুয়ারি ২০২১  

মুজিববর্ষে “আশ্রয়নের অধিকার,শেখ হাসিনার উপহার” প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেওয়া ঘরে থাকব, আর আমাদের কষ্ট হবেনা এ শ্লোগান বাস্তবায়নের লক্ষে চরফ্যাশন উপজেলার ৪টি ইউনিয়নের হতদরিদ্র ভূমিহীন ৩০টি ও মনপুরা উপজেলা ৪টি ইউনিয়নে ১২০টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের হাতে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে পাকা ঘরের চাবিও জমির দলিল হস্তান্তর কর্মসূচির উদ্বোধন করেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এ উপলক্ষে শনিবার সকাল সাড়ে ১০টায় চরফ্যাশন ও মনপুরা উপজেলা প্রশাসন সভাকক্ষে এই হস্তেন্তর সভা অনুষ্ঠিত হয়। মনপুরা ২শত পরিবারকে আধা-পাকা ঘর তৈরি  করে দেওয়ার হবে তার মধ্যে শনিবার প্রধানমন্ত্রীর উদ্বোধনের দিনই ১২০জনকে দেয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ-২ প্রকল্পের আওতায় সরকারী খাস জমিতে এসব ঘর নির্মাণ করা হয়েছে। নির্মানাধীন ঘরগুলো চরফ্যাশন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ রুহুল আমিন ও মনপুরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শামীম মিঞা সরেজমিনে পরিদর্শন করে অবশেষে তাদের মাঝে বিতরণ করেন। ইতিপূর্ব থেকেই বরাদ্ধ প্রাপ্ত গৃহহীণ  ও ভূমিহীনদের তালিকা তৈরি করা হয়েছে। মাদ্রাজ ইউনিয়নের বেড়ি বাধের বরাদ্ধপ্রাপ্ত তালিকায় নাম উঠায় সুরমা বেগম বলেন (২৭),বৃদ্ধ মমতাজ বেগম বলেন,প্রায় সরাটি জীবন দুখে কষ্টে বেঁড়িঢালে কোন রকম ছাউনি দিয়ে বৃষ্টি ভিজে রোদে শুকিয়ে কটিয়ে দিলাম। কল্পনাহীন শেখ হাসিনার দেয়া পাকা ঘর পেয়ে যতদিন বাচি ততদিন নামাজ পড়ে তাঁর জন্য দোয়া করব।

উপজেলা সহকারি কমিশনার(ভূমি) রিপন বিশ্বাস বলেন, প্রতিটি পরিবারের জন্য দুই শতাংশ খাস জমি বরাদ্ধ দিয়ে ঘর তৈরি করে মজবুদ একক ঘর করে দেওয়া হয়েছে।  

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মো.রুহুল আমিনের সভাপতিত্বে এসময় উপস্থিত ছিলেন পৌর মেয়ল শ্রী বাদল কৃষ্ণ দেবনাথ, উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারন সম্পাদক নুরুল ইসলাম ভিপি, মনপুরা উপজেলা চেয়ারম্যান সেলিনা আক্তার চৌধুরী,নির্বাহী কর্মকর্তা সামিম মিঞা,সাংবাদিক আমির হোসেনসহ প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্র্তা-কর্মচারী ও ইউপি চেয়ারম্যানবৃন্দরা উপস্থিত ছিলেন
চরফ্যাশন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো.রুহুল আমিন বক্তব্যে বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী(মুজিববর্ষ) উপলক্ষে তালিকায় থাকা এসব ভূমিহীন-গৃহহীন পরিবারকে ঘর করে দিচ্ছে সরকার।

তিনি আরো বলেন, স্থানীয় সংসদ সদস্য আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব স্যার এই উপজেলা যে উন্নয়ন করেছেন তা অকল্পনিও। তার উন্নয়নের শ্রোতে আজ এই উপজেলা ৩০টি পরিবার প্রধানমন্ত্রীর দেয়ার ঘর পেয়ে উল্লাস করছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এই গৃহহীন পরিবারের সারাদেশের ঘরের উদ্বোধনের পর  পরই চরফ্যাশনের মাদ্রাজ, হাজারীগঞ্জ, চর মানিকা এবং জাহানপুরে নির্মিত এই ৩০ ঘর ও জমি বুঝিয়ে দেয়া হয়। উপজেলার  হাজারীগঞ্জের সুবিধাভোগী ফাতেমা বেগম বলেন,নিজের আশ্রয় না থাকায় জীবনের অনেকটা সময় ভাই ও বিভিন্ন বাড়ীতে আশ্রিত হিসেবে কেটে গেছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ  হাসিনা আমাদের দিকে মুখ তুলে  চেয়েছেন। যতদিন বেঁচে আছি এই স্বপ্নের ঘরেই থেকে যাবো। তিনি আরো বলেন,আমাদের আশ্রয় দাতা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আল্লাহ যেন নেক হায়াত দান করেন।

মাদ্রাজের মমতাজ বলেন,অন্যের জায়গায় ঘর তুলে থেকেছি জীবনের বড় অংশ। কোনদিন নিজের ঘর হবে ভাবিনি। মানব দরদী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্য তা হইতেছে। আল্লাহ যেন তাকে ভালো রাখেন। উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) রিপন বিশ্বাস বলেন, আজ প্রধানমন্ত্রী এ সকল ঘরের উদ্বোধনের পর চরফ্যাশনের ৩০ টি গৃহহীন পরিবারের হাতে জমি ও ঘর তুলে দেয়া হয়েছে। ১লাখ ৭৫হাজার টাকা ব্যয়ে ঘরের সাথে ২শতক জমি দলিল ও নামজারি জমাখারিজ করার কাগজপত্রও বুঝিয়ে দেয়া হয়।