• বুধবার   ০৩ জুন ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৯ ১৪২৭

  • || ১১ শাওয়াল ১৪৪১

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
হাসপাতাল থেকে রোগী ফেরানো শাস্তিযোগ্য অপরাধ: তথ্যমন্ত্রী যেকোনো প্রতিবন্ধকতা মোকাবিলা করে এগিয়ে যেতে পারব: প্রধানমন্ত্রী সময় যত কঠিনই হোক দুর্নীতি ঘটলেই আইনি ব্যবস্থা: দুদক চেয়ারম্যান জেলা হাসপাতালগুলোতে আইসিইউ ইউনিট স্থাপনের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর করোনা বিশ্ব বদলে দিলেও বিএনপিকে বদলাতে পারেনি: কাদের করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৩৭ মৃত্যু, শনাক্ত ২৯১১ সীমিত আকারে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার নির্দেশনা খাদ্য উৎপাদন আরও বাড়াতে সব ধরনের প্রচেষ্টা চলছে: কৃষিমন্ত্রী সারা দেশকে লাল, সবুজ ও হলুদ জোনে ভাগ করা হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ২৩৮১ জনের করোনা শনাক্ত পুরোপুরি স্বাস্থ্যবিধি মেনে ট্রেন চলছে: রেলমন্ত্রী দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় ২৫৪৫ জনের করোনা শনাক্ত, মৃত্যু ৪০ জন বাস ভাড়া যৌক্তিক সমন্বয়, প্রজ্ঞাপন আজই: ওবায়দুল কাদের এখনই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলবো না: প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সে এসএসসির ফল প্রকাশ করলেন প্রধানমন্ত্রী আগামীকাল ১২টার পরিবর্তে ১১টায় প্রকাশ হবে এসএসসির ফল করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ২৮ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ১৭৬৪ পদ্মাসেতুর সাড়ে ৪ কি.মি. দৃশ্যমান, বসল ৩০তম স্প্যান পদ্মা সেতুর ৩০তম স্প্যান বসছে আজ একদিনে সর্বোচ্চ আড়াই হাজার শনাক্ত, মৃত্যু ২৩ জনের
১৬৩

`চাইনিজ ভাইরাসে` সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত ট্রাম্পের দেশ

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ২৭ মার্চ ২০২০  

 

শুরু থেকেই মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প কভিট-১৯ কে চাইনিজ ভাইরাস বলে আখ্যায়িত করে আসছে তার বক্তব্যে এবং স্যোশাল মিডিয়ার পোস্টে।সেই চাইনিজ ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যার দিক দিয়ে চিন, ইটালি, স্পেনকে টপকে গেল আমেরিকা। যুক্তরাষ্ট্রের মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৮৫ হাজার ছাড়িয়েছে, যা সারা বিশ্বের যে কোনও দেশের চেয়ে বেশি। 

আমেরিকায় এখনও পর্যন্ত করোনায় মৃত্যু হয়েছে ১৩০০ জনের। আক্রান্ত ৮৫ হাজার ৫৯৪ জন। চিকিৎসায় সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১৮৬৮ জন। চিনে এখন করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে বলে দাবি করেছে শি চিনফিং প্রশাসন। সেখানে নতুন করে আর তেমন কেউ আক্রান্ত হচ্ছেন না বলে দাবি করা হয়েছে। সব মিলিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ৮১ হাজার ৩৪০। মৃত্যু হয়েছে ৩২৯২ জনের। সুস্থ হয়েছেন ৭৪ হাজার ৫৮৮ জন। ভাইরাসের উৎপত্তিস্থল চিনের উহান প্রদেশ হিসেবে ধরা হলেও বিশ্বে সবচেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছে ইটালিতে। সংখ্যা ৮২১৫। আক্রান্ত ৮০ হাজার ৫৮৯ জন। চিকিৎসায় সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১০ হাজার ৩৬১ জন। ইটালির পর ইউরোপে সবচেয়ে বেশি করোনা সংক্রমণ হয়েছে স্পেনে। সেখানে আক্রান্ত ৫৭ হাজার ৭৮৬ জন। মৃত্যু হয়েছে ৪৩৬৫ জনের। সুস্থ হয়েছেন ৭০১৫ জন।


আক্রান্তের তুলনায় মৃত্যুর হার চিন, ইটালি বা স্পেনের চেয়ে কম আমেরিকাতে। সবেচেয়ে বেশি আক্রান্ত হয়েছে নিউইয়র্ক ও নিউ অরলিন্সে। এই দুই রাজ্যে হাসপাতালে অনেককে জায়গা দেওয়াও সম্ভব হচ্ছে না।  লুইসিয়ানার গভর্নর জন বেল এডওয়ার্ড বলেছেন, এই হারে সংক্রমণ বাড়লে আগামী ২ এপ্রিলের মধ্যে ভেন্টিলেটর শেষ হয়ে যাবে। আর হাসপাতালের বেড শেষ হয়ে যাবে ৭ এপ্রিলের মধ্যে।

আন্তর্জাতিক বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর