• রোববার   ৩১ মে ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৬ ১৪২৭

  • || ০৮ শাওয়াল ১৪৪১

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
আগামীকাল ১২টার পরিবর্তে ১১টায় প্রকাশ হবে এসএসসির ফল করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ২৮ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ১৭৬৪ পদ্মাসেতুর সাড়ে ৪ কি.মি. দৃশ্যমান, বসল ৩০তম স্প্যান পদ্মা সেতুর ৩০তম স্প্যান বসছে আজ একদিনে সর্বোচ্চ আড়াই হাজার শনাক্ত, মৃত্যু ২৩ জনের বিকেল ৪টার মধ্যে বন্ধ করতে হবে দোকান-শপিংমল দেশে ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত ২ হাজার ছাড়ালো, মৃত্যু ১৫ স্বাস্থ্যবিধি মেনে ৩১ মে থেকে গণপরিবহন চালুর সিদ্ধান্ত দেশে একদিনে নতুন শনাক্ত ১৫৪১, মৃত্যু ২২ জীবন বাঁচাতে জীবিকাও সচল রাখতে হবে: কাদের ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ১৮৭৩ জন শনাক্ত, মৃত্যু আরও ২০ জনের মমতাকে সহমর্মিতা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ফোন মোংলা ও পায়রা বন্দরে ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত মহাবিপদ সংকেত জারি সকালে, রাতের মধ্যে আসতে হবে আশ্রয় কেন্দ্রে ২ লাখ ৫ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন বাজেট অনুমোদন আম্পানের আঘাতে ১০ ফুটের অধিক উচ্চতার জলোচ্ছ্বাসের আশঙ্কা আরও ১২৫১ করোনা রোগী শনাক্ত, মৃত্যু ২১ জনের আরও ৭ হাজার কওমি মাদ্রাসাকে প্রধানমন্ত্রীর অর্থ সহায়তা পায়রা-মংলায় ৭, চট্টগ্রাম-কক্সবাজারে ৬ নম্বর বিপদ সংকেত দেশে একদিনে আক্রান্ত ও মৃত্যুর নতুন রেকর্ড
২৭

দলীয় কর্মীদের সতর্ক করলেন বঙ্গবন্ধু

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ৮ এপ্রিল ২০২০  

জাতির সঙ্গে বেইমানি করলে কাউকে ক্ষমা করা হবে না। তারা তাদের শাস্তি পাবে। আগামীতে দলের কার্যক্রম বিষয়ে দিকনির্দেশনা দেওয়ার সময় কাউন্সিলের শেষ অধিবেশনে বঙ্গবন্ধু এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, ‘লড়াই সংগ্রামের মধ্য দিয়ে নেতৃত্ব তৈরি হবে।’ অর্থ ব্যয়ের মাধ্যমে আগামী নির্বাচনে অংশ নেওয়া যাবে না বলেও তিনি হুঁশিয়ার করে দেন।

বঙ্গবন্ধুই সভাপতি 

স্বাধীন বাংলাদেশে প্রথম কাউন্সিলে আওয়ামী লীগের সভাপতি কে হবেন, সে নিয়ে কথা ওঠে। কেননা, যারা মন্ত্রী থাকবেন তারা দলের কমিটিতে থাকতে পারবেন কিনা, এ নিয়ে ব্যাপক আলোচনা চলছিল। সেসব বিবেচনায় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আদৌ দলে থাকছেন কিনা, সেসব প্রশ্নের উত্তর মেলে। পরবর্তী কাউন্সিল না হওয়া পর্যন্ত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সভাপতি নির্বাচিত করা হয়। দুই দিনব্যাপী কাউন্সিলের সমাপনী সেশনে বঙ্গবন্ধুকে তার দায়িত্ব অব্যাহত রাখার অনুরোধ করে রেজ্যুলেশন নেওয়া হয়। তাকে জেলা পর্যায়ের কমিটি গঠনের জন্য ক্ষমতা প্রদান করা হয়।

 বেইমানদের ক্ষমা করা হবে না

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দুই দিনব্যাপী সম্মেলনের দ্বিতীয় দিনে নেতৃত্বের বিষয়ে বলেন, ‘লড়াই সংগ্রামের মধ্য দিয়ে নেতৃত্ব পুরনো থেকে নতুনের দিকে যায়।’ বঙ্গবন্ধু বলেন, ‘কোনও ধরনের লড়াই-সংগ্রাম ছাড়া রাতারাতি কিছু পরিবর্তিত হয় না।’ তিনি সতর্ক করে দিয়ে বলেন যে, ‘জনগণের সঙ্গে বেইমানি করা কাউকেই ক্ষমা করা হবে না। ভুলে গেলে চলবে না ৩০ লাখ  প্রাণ এ দেশের জন্য শহীদ হয়েছেন।’ তাদের উদ্দেশ্য যেন বৃথা না যায় উল্লেখ করে বঙ্গবন্ধু পার্টির সদস্যদের জনসেবায় নিয়োজিত হওয়ার পরামর্শ দেন।

দণ্ড পেতেই হবে

সাড়ে সাত কোটি মানুষের মধ্যে দেশের সম্পদের সুষম বণ্টন থাকবে বলে উল্লেখ করে বঙ্গবন্ধু সোনার বাংলা গড়তে হলে যে পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে সে বিষয়ে বলেন, ‘আগামী অন্তত তিন বছর নানা হয়রানির মধ্যে টিকে থাকতে হলে আরও সংগ্রামের মধ্য দিয়ে যেতে হবে।’ দলীয় প্রধান হিসেবে বঙ্গবন্ধু বলেন, ‘আমি আমার যা কিছু আছে, তা দলীয় সদস্যদের সঙ্গে শেয়ার করতে রাজি আছি। কিন্তু দলের কোনও সদস্য যদি ভুল সংবাদ দেয়, তবে সেই ভুলের জন্য তাদের অবশ্যই দণ্ড পেতে হবে।’

বঙ্গবন্ধু তার বক্তৃতায় ইঙ্গিত দেন যে দলের ইশতেহারে কিছু পরিবর্তন আসবে এবং এই বিষয়গুলো তাতে অন্তর্ভুক্ত হবে। আবারও সতর্ক করে দিয়ে তিনি বলেন, ‘অর্থ খরচ করার মধ্য দিয়ে কেউ পরবর্তী নির্বাচনে অংশ নিতে পারবেন না।’ তিনি সবাইকে আইনশৃঙ্খলা মেনে চলতে বলেন।

দুর্নীতিগ্রস্ত ব্যবসায়ী সম্প্রদায়ের প্রতি তিনি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন। ষড়যন্ত্র করে আকাশছোঁয়া দাম নির্ধারণ করেছে যারা, তাদের সতর্ক করে দেন। তিনি দলের কর্মীদের ঢাকামুখী না হওয়ার জন্য বলেন।

বঙ্গবন্ধুর হাতে চিঠি তুলে দেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত

যুক্তরাষ্ট্র কূটনৈতিক সম্পর্ক চায়

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নিক্সন বাংলাদেশের সঙ্গে দূতাবাস পর্যায়ে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপন করার আকাঙ্ক্ষা প্রকাশ করেন। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ মুজিবুর রহমানের কাছে আনুষ্ঠানিকভাবে চিঠি নিয়ে আসেন ঢাকায় কর্মরত মার্কিন মিশন প্রধান হারবার ডি স্পিভাক। ১৯৭২ সালের ৮ এপ্রিল গণভবনে তিনি চিঠিটি বঙ্গবন্ধুর হাতে তুলে দেন।

রাষ্ট্রপতির কাছে দেওয়া চিঠির বক্তব্য অনুযায়ী, যুক্তরাষ্ট্র সরকার বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক প্রতিষ্ঠা করতে চায়। চিঠিতে বলা হয়, ঐতিহাসিকভাবে আমাদের জনগণের মধ্যে পারস্পরিক সম্পর্ক রয়েছে। ১৯৪৯ সাল থেকে বাংলাদেশে যুক্তরাষ্ট্রের মিশন রয়েছে। বিভিন্ন সময় আমেরিকানরা ব্যক্তিগত এবং অফিসিয়াল স্তরে বাংলার জনগণের সঙ্গে কাজ করেছে এবং সন্তোষ প্রকাশ করেছে। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জানান, আমি নিশ্চিত আমাদের মধ্যকার বন্ধুত্ব এবং সৌহার্দ্য আরও শক্তিশালী হবে।

জাতীয় বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর