সোমবার   ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০   ফাল্গুন ৪ ১৪২৬   ২২ জমাদিউস সানি ১৪৪১

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
খালেদার প্যারোলে মুক্তির কোনো আবেদন পাইনি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী উহান ফেরত শিক্ষার্থীরা নজরদারিতেই থাকবেন : আইইডিসিআর রোহিঙ্গা ইস্যুতে ইন্দোনেশিয়ার সহায়তা চাইলেন ড. মোমেন ইউএনও’দের মাধ্যমে রাজাকারের তালিকা করা হবে : মোজাম্মেল হক মানবপাচারে অভিযুক্ত এমপির বিষয়ে দুদককে তদন্তের আহ্বান কাদেরের হত্যা মামলায় ৯ জনের যাবজ্জীবন বিশ্বকাপজয়ী ৬ ক্রিকেটারকে নিয়ে বিসিবি একাদশ ঘোষণা মশা মারার পর্যাপ্ত ঔষধ মজুত আছে : স্থানীয় সরকারমন্ত্রী সাবেক মন্ত্রী অ্যাডভোকেট রহমত আলী আর নেই নিঃস্বার্থভাবে জনগণের কাজ করুন, নেতাকর্মীদের শেখ হাসিনা ৫ আসনের উপ-নির্বাচনে আ’লীগের মনোনয়ন পেলেন যারা কে ভোট দিল কে দিল না তা বিবেচনা করে না আ. লীগ : প্রধানমন্ত্রী আ.লীগ উন্নয়নে বিশ্বাসী: প্রধানমন্ত্রী চীন থেকে দেশে আসা সবাই সুস্থ : আইইডিসিআর বিএনপি এখন টেলিফোনে প্রেমালাপ শুরু করেছে : নানক মুজিববর্ষে দেশের প্রতিটি ঘর আলোকিত হবে: নাসিম দাখিল পরীক্ষায় নকল করায় ৬ ছাত্র বহিষ্কার খালেদার মুক্তি নিয়ে বিএনপি-ই দ্বিধান্বিত: তথ্যমন্ত্রী ৩৫ এলাকায় ফ্রি ওয়াই-ফাই পাচ্ছেন কক্সবাজারবাসী করোনা নিয়ে গুজব ছড়ানো ব্যক্তিরা দেশের মঙ্গল চায় না: জাহিদ মালেক
১২৪৭

দাঁতের যত্নে সময় দিন, সুন্দর হাসি বুঝে নিন

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ৩১ জানুয়ারি ২০১৯  

 

সৌন্দর্যের অনেকটাই নির্ভর করে সুন্দর ঝকঝকে হাসির ওপর। উজ্জ্বল দাঁত যেমন চেহারায় সুন্দর ঝলক নিয়ে আসে, তেমনই দাঁত ও মাড়ির স্বাস্থ্যও খুবই গুরুত্বপূর্ণ।সুন্দর হাসি ও আকর্ষণীয় ব্যাক্তিত্বের জন্য উজ্জ্বল, রোগমুক্ত দাঁতের গুরুত্ব অপরিসীম। সঠিক সময়ে যত্নের অভাবে দাঁতে আক্রমণ করে রোগ-জীবানু ও বিভিন্ন রকমের অসুখ। মাড়ির ইনফেকশন, দাঁত হলুদ হয়ে যাওয়ার সমস্যা তৈরি হয় অযত্ন ও খারাপ অভ্যাস এর কারণে।তাই আজকে লিখছি দাতের সুস্থতায় সকলের করণীয় নিয়ে।

**দাতের যত্নে করণীয়ঃ 
#প্রতিদিন সকাল ও রাতে (ঘুমানোর আগে) ভালোভাবে দাঁত ব্রাশ করা উচিত।

#খাবারে চর্বি, পনির বা ক্রিম থাকলে অবশ্যই ব্রাশ করে কয়েকবার কুলি করা উচত। কারণ চর্বি ও শর্করাযুক্ত খাবার দাঁতের ফাঁকে জমে দাঁতকে দ্রুত ক্ষয় করে। দাঁতের উপরিভাগে খাদ্যকণা মিশ্রিত তেল জমে দাঁতের মসৃণতা নষ্ট করে।

#খাবার পানি ফুটিয়ে পান করা উচিত। ফুটানো সম্ভব না-হলে নলকূপের পানি সংগ্রহ করুন।

#একটা বস্তুকে মুক্ত বাতাসে যেভাবে ব্রাশ করা সম্ভব সেভাবে ব্রাশ দিয়ে জিকজ্যাক পদ্ধতিতে (উপরে, নিচে, ভেতরে, বাইরে) পরিষ্কার করতে হবে। ব্রাশের সমান্তরাল স্টিকের পরিবর্তে বাঁকা হওয়া দরকার। এতের মুখের ভেতরের দাঁতগুলো ভালোভাবে পরিষ্কার হবে।

#বাঁকা দাঁতে ময়লা জমে বেশি, তাই দীর্ঘ সময় ধরে ব্রাশ করা উচিত। অনেক সময় একই স্থান থেকে দুটো দাঁত গজায়। অপারেশনের মাধ্যমে একটা দাঁত তুলে ফেলা যায় বা সমান্তরালহীন দাঁতগুলোকে সারিবদ্ধতায় আনা যায়। এ ক্ষেত্রে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

# দাঁতের ফাঁকের ময়লাগুলো দীর্ঘদিন ধরে জমে ক্ষুদ্র পাথর কণায় পরিণত হয়। তখন দাঁতের উপরিভাগে কালো দাগ পড়ে। এটা ভীষণ দৃষ্টিকটু দেখায়। এ জন্য প্রতি ছয় মাস পরপর দাঁতের স্কেলিং করানো উচিত। বয়স ৪০-এর উর্ধ্বে হলে এক বছর পরপর করাতে হবে। নতুবা স্কেলিংয়ে ব্যবহৃত ইলেকট্রিক যন্ত্রের ফলে দাঁতের গোড়া দূর্বল হয়ে যাবে। কারণ বয়সের সঙ্গে সঙ্গে দাঁতের মাড়িও ক্ষয় হতে থাকে।

# প্রতি পাঁচ মাস পর ব্রাশ পরিবর্তন করুন। সম্ভব হলে একই সঙ্গে সমান্তরাল ও বাঁকা দন্ডের ব্রাশ ব্যবহার করুন। প্রতি মাসে দুটো ব্রাশকে এক ফোঁটা স্যাভলন বা ডেটল মিশ্রিত এক বাটি কুসুম গরম পানিতে ২০ মিনিট ডুবিয়ে রাখুন। ২০ মিনিট পরে ব্রাশ দুটোকে স্বাভাবিক পানিতে ভালোভাবে ধুয়ে ফেলুন, যেন ডেটলের গন্ধ না থাকে। প্রয়োজনে টুথপিক দিয়ে ব্রাশের গোড়া পরিষ্কার করুন। ধুলোবালি, পোকা-মাকড় থেকে রক্ষার জন্য ঢাকনাযুক্ত ব্রাশ ব্যবহার করুন।

#অনেকের সারিবদ্ধ দাতের মধ্যে যেকোনো একটি বা দুটি দাত থাকে ত্রুটিযুক্ত হলুদ। এ জন্য কোনো প্রসাধনীর পরিবর্তে দ্রুত চিকিৎসের শরণাপন্ন হোন।

#দাতের ঔজ্জ্বল্য বৃদ্ধির জন্য অনেকেই খাবার সোডা ব্যবহার করেন। পারতপক্ষ সোডা পরিহার করুন। সোডায় ক্ষার থাকে। সেটা দাঁতের কোমল মাড়ির জন্য ক্ষতিকর। অনেক সময় দাঁতের অতি সংবেদনশীল মাড়ি পুড়ে লাল হয়ে যায়। স্বাভাবিক দৃষ্টিতে যা দেখতে জমাটবদ্ধ রক্তের মতো দেখায়।

#দাতের ঔজ্জ্বল্য বৃদ্ধির জন্য মাঝেমধ্যেই মাউথ ওয়াশ দিয়ে কুলি করুন। মাউথ ওয়াশ না-থাকলে হাফ চা চামচ খাবার লবণ দিয়ে দাঁত ব্রাশ করুন। প্রতিদিন লেবু বা কোনো টক ফল খান। ক্যালসিয়ামের অভাবেও দাঁতের ঔজ্জ্বল্য নষ্ট হয়। এ জন্য ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ শাক-সবজি খান।

#অতিরিক্ত ঠান্ডা বা গরম পানীয় দাঁতের জন্য ভীষণ ক্ষতিকর। দুটো পানীয় একই সঙ্গে গ্রহণ করা অনুচিত। খুব গরম চা বা কফি পানের অন্তত ১ ঘন্টা পরে স্বাভাবিক পানি পান করুন।

#অনেকেই বিভিন্ন গাছের দাঁতন ব্যবহার করে থাকেন। এতে মনোযোগী হতে হবে যেন দাঁতনের আঁশ দাঁতের দাঁতের গোড়ায় আটকে না থাকে। টুথপিক ব্যবহারে মাড়িতে ফুটো হলে ইনফেকশন হয়। তাই সতর্কতার সঙ্গে টুথপিক ব্যবহার করুন।

#প্রতিষ্ঠিত ব্রান্ডের টুথপেস্ট ব্যবহার করাই ভালো। টুথপেস্টেও মাঝেমধ্যে পরিবর্তন আনুন। কয়লা, ছাই, মাটি বা বালু দিয়ে দাঁত মাজা অনুচিত। টুথ পাউডার ব্যবহার করতে পারেন। হারবাল বা নিম জাতীয় টুথ পাউডার ব্যবহার করুন। টুথ পাউডার মিহি হওয়ার জন্য প্রতিটি দাঁতের ফাঁকে পৌঁছায়, যা দাঁতের পুষ্টি জোগায়। মাঝেমধ্যে আঙুল দিয়ে টুথ পাউডার ব্যবহারে মাড়ির বিশ্রাম হয়।

#গ্যাসট্রিকের সমস্যা থাকলে মুখে দুর্গন্ধ হয়। ফলে দাঁতের হলুদাভ আবরণ আসে। নিয়মিত গ্যাসট্রিকে ঠোঁটের দুই কোণে কালো হয়ে যায়। এ জন্য প্রতিদিন প্রচুর পরিমাণ পানি পান করুন।

# অ্যালকোহল ও ধূমপানে দাঁত কালো হয়ে যায়। অধিকাংশ ক্ষেত্রে দাঁতের মাড়িও কালো হয়ে ফুলে যায়। মাড়ির রক্তবাহী শিরাগুলো মোটা দেখায়, যা সুন্দর হাসির জন্য হুমকিস্বরূপ। তাই অ্যালকোহল ও ধূমপান এড়িয়ে চলুন।

#অনেকের দুটো দাঁতের মাঝে ফাঁকা স্থান বা ভাঙা দাঁত থাকে। কৃত্রিম উপায়ে চিকিৎসা সম্ভব, এ জন্য চিকিৎসকের শরণাপন্ন হোন। প্রতি সপ্তাহে অন্তত একটা ভিটামিন-সি ট্যাবলেট খান।

#পান, সুপারি, জর্দা বা গুল পরিহার করুন। এসবে আসক্তি থাকলে খাবার পরে দাঁত ব্রাশ করে ফেলুন। পানে চুনের পরিমাণ যত কম হয় ততই ভালো। মাত্রাতিরিক্ত চুন দাঁতের এনামেল ক্ষয় করে।

#বাঁধানো দাঁত বা কৃত্রিম দাঁতের প্রতি বিশেষ যত্ন নিন। প্রায়ই (চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী) সেগুলো খুলে পরিষ্কার করুন।

#পোস্ট মেনোপোজাল লেডি অর্থাৎ মাসিক চিরতরে বন্ধ হয়ে গেছে এই ধরণের মহিলাদের দেহে ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন ‘ডি’র ঘাটতি হয় প্রচূর পরিমাণে। এই ঘটতির জন্য এই ধরণের নারীদের দাঁতে নানান রকম সমস্যা হয়। তাই প্রথম থেকেই দাঁতের প্রতি যত্নশীল হউন।

# বর্তমানে উন্নত প্রযুক্তির কল্যাণে কৃত্রিম দাঁত মুখের সাথেই লাগানো থাকে। এই ধরণের দাঁতের প্রতি যতশীল হউন।

#বছরে অন্তত একবার পুরো দেহের চেক আপ করান। এতে লুকায়িত কোন রোগ জীবাণু থাকলে ধরা পড়বে। দেহের প্রতিটি অঙ্গ পরস্পরের উপর নির্ভরশীল। তাাই সুস্থ্য দাঁত ও সুস্থ্য দেহের জন্য পুরো দেহ রোগমুক্ত থাকাটা ভীষণ জরুরী।

** দাতের যত্নে যে খাবার গুলো খাবেনঃ 
√কাঁচা গাজর চিবিয়ে খেলে এর মধ্যে থাকা বিটা ক্যারোটিন দাঁত, চোখ, হাড়ের স্বাস্থ্য ভাল রাখতে সাহায্য করে।
√ভিটামিন 'এ' পরিপূর্ণ পালং শাক হাড় ও দাঁতের স্বাস্থ্য ভাল রাখতে সাহায্য করে।
√ভিটামিন 'সি' থাকায় ক্যাপসিকাম দাঁত ও মাড়ির ইনফেকশন সারাতে পারে।
√দাঁতের এনামেলের ক্ষয় রুখতে সাহায্য করে ব্রকোলি।
√ভিটামিন 'সি' থাকায় ফুলকপি দাঁত ও মাড়ি সুস্থ রাখে।
√ট্যানিন ও পলিফেনল থাকায় ফ্লুওরাইডের মাত্রা বাড়িয়ে দাঁতে এনামেলের ক্ষয় রোধ করে গ্রিন টি।
√প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন 'সি' থাকায় আনারস দাঁত, মাড়িতে জমা ব্যাকটেরিয়া মোকাবিলায় যেমন সাহায্য করে, তেমনই ইনফেকশন দূরে রেখে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।
√কমলা লেবুর মধ্যে থাকে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন 'সি'। যা দাঁত, মাড়ি সুস্থ রাখে।
√রসুনের অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল, অ্যান্টি ভাইরাল, অ্যান্টি ফাংগাল গুণ মুখের ইনফেকশন দূর করতে সাহায্য করে।
√মাছের মধ্যে থাকা ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড ও ভিটামিন 'ডি' দাঁত সুস্থ রাখে।
√ভাল মাউথওয়াশ হিসেবে কাজ করে হলুদ। যা দাঁত সুস্থ রাখতে সাহায্য করে।
√ দই ও পনিরে থাকা ভিটামিন 'ডি' দাঁত ও হাড়ের স্বাস্থ্য ভাল রাখতে সাহায্য করে।
√ দাঁত সুস্থ রাখায় দারচিনির সরাসরি ভূমিকা না থাকলেও প্রতিদিন আধ চামচ দারচিনি গুঁড়ো ডায়েটে থাকলে রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে যা মিষ্টি খাওয়ার ইচ্ছা কমায়। ফলে দাঁত ভাল থাকে।


লোকে বলে দাত থাকতে দাতের মর্যাদা নিন।কথাটি সত্য।দাত থাকতে দাতের মর্যাদা নিলে দাত নিয়ে সমস্যায় পড়তে হবে না।দাতের যত্নে উপরোক্ত নিয়ম গুলো মানতে পারেন এবং খাবার খেতে পারেন। তবে সুস্থ সুন্দর দাতের জন্য প্রতি ছয় মাস পরপর দাতের চেকাপ করাতে হবে,তাহলে রোগ ধরা পড়বে এবং তার চিকিৎসা সহজ হবে।



মোঃশাকিল আহমেদ 
শের ই বাংলা মেডিকেল কলেজ 
বরিশাল

এই বিভাগের আরো খবর