শুক্রবার   ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ২২ ১৪২৬   ০৮ রবিউস সানি ১৪৪১

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
সভাপতির পদ ছাড়া যেকোনো পদে পরিবর্তন হতে পারে : কাদের ভারত-বাংলাদেশের সম্পর্ক চিরকালীন: রীভা গাঙ্গুলী সৌম্যের ফিফটিতে ভুটানকে উড়িয়ে দিল বাংলাদেশ বিএনপি বিশৃঙ্খলা করলে আওয়ামী লীগও প্রস্তুত: কাদের চাল নিয়ে উদ্বিগ্ন হওয়ার কারণ নেই : কৃষিমন্ত্রী দেশ বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন পূরণের পথে এগিয়ে চলছে: তথ্যমন্ত্রী বিএনপিপন্থিদের হট্টগোল কলঙ্কজনক-আদালত অবমাননা অন-অ্যারাইভাল ভিসাসহ বাংলাদেশ-ভারতের নৌপথে খুলছে অনেক জট ‘বিশ্বসুন্দরী’র রোমান্টিক গান নিয়ে হাজির সিয়াম-পরী মেয়েদের রৌপ্য, বাকী জিতেছেন ব্রোঞ্জ আইনজীবী তালিকাভুক্তি নিবন্ধন পরীক্ষা ২৮ ফেব্রুয়ারি পদক পাচ্ছেন ডিজিসহ বিজিবির ৬০ সদস্য আখেরাতের জীবন চিরস্থায়ী ডাক ও টেলিযোগাযোগের নতুন সচিব নূর-উর রহমান মানুষের রক্ত চুষে বড় লোক হবেন না: রাষ্ট্রপতি অপরাধীদের স্থান আওয়ামী লীগে নেই: ওবায়দুল কাদের ২০২৫ সালের মধ্যে ভোলা-বরিশাল ব্রীজ বাস্তবায়নের লক্ষ্যমাত্রা সরকারিভাবে স্যানিটারি ন্যাপকিন ফ্রি পাবে মেয়েরা হ‌লি আ‌র্টিজান মামলার ডেথ রেফারেন্স হাইকোর্টে ইরানের ক্ষেপণাস্ত্রের বিরুদ্ধে একজোট হচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রসহ ইউরোপ
২৮৯

নখের ফাংগাল ইনফেকশন প্রতিরোধে উপায়

প্রকাশিত: ১ ডিসেম্বর ২০১৯  

হাত কিংবা পায়ের নখে ইনফেকশন হয়েছে! নখগেুলো ধূসর হয়েছে কিংবা ভেঙে গেছে? খুবই প্রচলিত ও সাধারণ একটি সমস্যা। নখের এই সমস্যার জন্য প্রায় ৫০ শতাংশ ক্ষেত্রেই দায়ী ফাংগাসের আক্রমণ। 

মানবদেহে স্বাভাবিকভাবেই ছত্রাক থাকে। তার মাত্রা যখন বেশি হয়ে যায়, তখনই মূলত ইনফেকশনের প্রাদুর্ভাব দেখা দিতে থাকে। আর এই ইনফেকশনের ফলে হাত-পায়ের নখ খুব সহজেই আক্রান্ত হয় এবং নানাবিধ সমস্যা দেখা দেয়। হাত ও পায়ের নখের ফাংগাল ইনফেকশনের লক্ষণ ও প্রতিকার সর্ম্পকে জেনে নেয়া যাক -

নখের ফাংগাল ইনকেশনের লক্ষণ

>নখের ভেতরে ফাঁকাভাব তৈরি হওয়া।
> নখের দুই পাশের কোনা ভেঙে যাওয়া।
> নখের সম্মুখভাগ কিংবা নখের অর্ধেক অংশ ফ্যাকাশে হলুদ হয়ে যাওয়া।
> নখের চারপাশের ত্বক ফোলা ও খসখসে হয়ে ওঠা।
> বারংবার নখ ভেঙে যাওয়া।
> নখে বাজে গন্ধ দেখা দেওয়া।
> নখে ব্যথাভাব দেখা দেওয়া।

নখের ফাংগাল ইনকেশন প্রতিরোধের উপায় 

> থালাবাসন ধোয়ার সময় হাতে প্লাস্টিক কিংবা রাবারের তৈরি গ্লভস পরে নিতে হবে।
> পানি ব্যবহারের পর দ্রুত হাত ও পা শুকিয়ে নিতে হবে।
> নিজের যত্ন নেয়ার কোনো বিকল্প নেই। প্রতি মাসে অন্তত দুইবার মেনিকিউর ও পেডিকিউর করার চেষ্টা করুন।
> কমদামী ও ননব্র্যান্ডেড নেইলপলিশ ব্যবহার এড়িয়ে যেতে হবে।
> যথাসম্ভব আলো-বাতাস যুক্ত ও খোলামেলা পরিবেশে থাকার চেষ্টা করতে হবে।

এই বিভাগের আরো খবর