• বুধবার   ২৭ মে ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১২ ১৪২৭

  • || ০৪ শাওয়াল ১৪৪১

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
জীবন বাঁচাতে জীবিকাও সচল রাখতে হবে: কাদের ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ১৮৭৩ জন শনাক্ত, মৃত্যু আরও ২০ জনের মমতাকে সহমর্মিতা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ফোন মোংলা ও পায়রা বন্দরে ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত মহাবিপদ সংকেত জারি সকালে, রাতের মধ্যে আসতে হবে আশ্রয় কেন্দ্রে ২ লাখ ৫ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন বাজেট অনুমোদন আম্পানের আঘাতে ১০ ফুটের অধিক উচ্চতার জলোচ্ছ্বাসের আশঙ্কা আরও ১২৫১ করোনা রোগী শনাক্ত, মৃত্যু ২১ জনের আরও ৭ হাজার কওমি মাদ্রাসাকে প্রধানমন্ত্রীর অর্থ সহায়তা পায়রা-মংলায় ৭, চট্টগ্রাম-কক্সবাজারে ৬ নম্বর বিপদ সংকেত দেশে একদিনে আক্রান্ত ও মৃত্যুর নতুন রেকর্ড সমুদ্রসীমায় অবৈধ মৎস্য আহরণ বন্ধ করতে হবে: প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী পাঁচ হাজার টেকনোলজিস্ট নিয়োগের ঘোষণা স্বাস্থ্যমন্ত্রীর করোনা সংক্রমণে বাংলাদেশ কিছুটা ভালো অবস্থানে আছে: কাদের করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ১৪ মৃত্যু, শনাক্ত ১২৭৩ আম্ফান : সমুদ্রবন্দরে ৪ নম্বর স্থানীয় হুঁশিয়ারি সংকেত ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় ‘আম্ফান’, সাগরে ২ নম্বর সংকেত আজ শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস ত্রাণ নিয়ে অনিয়ম করলে দলীয় পরিচয় দিলেও ছাড় হবে না : কাদের স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষা করলে ঘোর অমানিশা নেমে আসবে : সেতুমন্ত্রী
২১৭

নবীজির সম্মানে গাছ হয়ে গেল পর্দা!

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ১০ মার্চ ২০২০  

নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের হজের সফর সম্পর্কে জাবের (রা.) থেকে দীর্ঘ একটি হাদিস বর্ণিত আছে। তিনি বলেন, আমরা রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সঙ্গে সফরে রওনা হলাম। পথিমধ্যে তিনি বিস্তীর্ণ ও প্রশস্ত এক উপত্যকায় ছাউনি ফেলেন। নবীজি প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে বের হলেন। আমি পানির পাত্র নিয়ে তাঁর সঙ্গে রওনা হলাম। মহানবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উপত্যকার আশপাশ ও দূর-দিগন্তে দৃষ্টি ফেরালেন। কিন্তু পর্দা হিসেবে ব্যবহার করার মতো কোনো বস্তুই পরিদৃষ্ট হলো না। উপত্যকার একদিকে দূর প্রান্তরে দুটি গাছ দেখা গেল। নবীজি সেগুলোর একটির দিকে এগিয়ে গেলেন। গিয়ে তার শাখা ধরে বলেন—আল্লাহর আদেশে আমার পদাঙ্ক অনুসরণ করে চলতে থাকো। গাছটি নবীজির পেছনে পেছনে এমনভাবে চলতে শুরু করল, যেমন নাকে রশি-বাঁধা উট তার মালিকের পিছনে পিছনে চলতে থাকে। নবীজি সেটিকে নিয়ে অপর গাছটির নিকট গেলেন। তারও শাখা ধরে বলেন, আল্লাহর আদেশে আমার পদাঙ্ক অনুসরণ করে চলতে থাকো। সেও একই নিয়মে চলতে শুরু করল। যখন উভয় গাছ মাঝামাঝি এলো, তখন তাদের উভয়কে এক জায়গায় করে তিনি আদেশ করলেন—আল্লাহর হুকুমে তোমরা আমার সামনে ঢাল (পর্দা) হয়ে যাও। নবীজির আদেশ শোনার সঙ্গে সঙ্গে তারা উভয়ে একসঙ্গে এমনভাবে মিলিত হয়ে ঝুঁকে পড়ল যে উভয়ের মাঝে কোনো ফাঁক রইল না। জাবের রাদিয়াল্লাহু আনহু বলেন, আমি এ দৃশ্য দেখছিলাম। হঠাৎ আমার অন্তর কেঁপে উঠল। আমি ভয় করলাম, লাজ-লজ্জার আধার আমার মনিব সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম না আবার প্রয়োজন সারার জন্য দূরে কোথাও চলে যান। এ ভয় মনে জাগতেই আমি সেখান থেকে চুপিসারে সরে এলাম এবং দূরে এক জায়গায় গিয়ে বসে রইলাম। ভাবতে লাগলাম, নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম কত সুমহান মর্যাদার অধিকারী; যাঁর লজ্জার খাতিরে গাছও তার শিকড়সমেত উঠে এসে পর্দা হয়ে যায়!

আমি তখনো এই ভাবনাতেই বিভোর ছিলাম। এরই মধ্যে কারো পায়ের আওয়াজ শুনতে পেলাম। দৃষ্টি তুলে তাকিয়ে দেখি আমার সামনে সাইয়িদুল মুরসালিন সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম। আর গাছের দিকে তাকিয়ে দেখি তারা আপন আপন জায়গায় গিয়ে যথারীতি দাঁড়িয়ে আছে; যেন তারা নিজেদের জায়গা থেকে কখনো নড়েইনি। (সহিহ মুসলিম, হাদিস নং ৩০১২)

ধর্ম বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর