বুধবার   ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০   ফাল্গুন ১৪ ১৪২৬   ০২ রজব ১৪৪১

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
দ্বিতীয় কিস্তির ২৭ কোটি ৬০ লাখ টাকা বিটিআরসিকে দিল রবি মাধ্যমিক পর্যন্ত বিজ্ঞান বাধ্যতামূলকের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর মাদক মামলায় ‘ক্যাসিনো খালেদের’ বিচার শুরু বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ওপর নজরদারি বাড়াতে বললেন প্রধানমন্ত্রী আজকের স্বর্ণপদক প্রাপ্তরা ২০৪১ এর বাংলাদেশ গড়ার কারিগর যে কোন অর্জনের পেছনে দৃঢ় মনোবল এবং আত্মবিশ্বাস গুরুত্বপূর্ণ ‘প্রধানমন্ত্রী স্বর্ণপদক’ পেলেন ১৭২ শিক্ষার্থী আজ ১৭২ শিক্ষার্থী প্রধানমন্ত্রী স্বর্ণপদক পাচ্ছেন অশান্ত দিল্লিতে কারফিউ, নিহত ১৭ পিকে হালদারসহ ২০ জনের ব্যাংক হিসাব জব্দের আদেশ বহাল ৭ মার্চ জাতীয় দিবস ঘোষণা করে হাইকোর্টের রায় ১৪ দিনেই ভালো হচ্ছেন করোনা রোগী : আইইডিসিআর মুশফিক-নাঈমে ইনিংস ব্যবধানে দূর্দান্ত জয় টাইগারদের পিলখানা ট্র্যাজেডি দিবস আজ রিফাত হত্যা মামলার আসামি সিফাতের বাবা গ্রেফতার কুষ্টিয়ায় জগো বাহিনীর প্রধানের ফাঁসি, ১১ জনের যাবজ্জীবন এখন পর্যন্ত বাংলাদেশ করোনামুক্ত: আইইডিসিআর লোভ-লালসার ঊর্ধ্বে থেকে দায়িত্ব পালন করতে বললেন রাষ্ট্রপতি নাঈমুল আবরার হত্যা : ৪ আসামিকে গ্রেফতারের নির্দেশ আইন মেনেই বিদেশি কম্পানিকে এদেশে ব্যবসা করতে হবে- প্রধান বিচারপতি
২১৩

নান্দনিক শিল্পরূপে লালমোহন থানার সামনে আমগাছ

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ২৯ জানুয়ারি ২০২০  

লালমোহন প্রতিনিধিঃ 

লালমোহন থানার সেই ঐতিহ্যবাহী স্মৃতিময় পুরনো আমগাছটি আর জীবিত নেই। গাছটি মরে যাওয়ায় একে নান্দনিক শিল্পরূপে সাজিয়েছেন লালমোহন থানা প্রশাসন।

এ আমগাছটিতে যেমন ধরতো আম। তেমনি উপজেলার বিভিন্ন দাগি আসামীদের সাজা দেয়া হতো এ গাছের সাথে বেঁধে। লালমোহন থানায় প্রবেশ করলে সকলের দৃষ্টি থাকতো আমগাছটির দিকে। কালের বিবর্তনে এ আমগাছটি পর্যায়ক্রমে মৃত্যুর দিকে ঝুঁকে পড়ে।

থানা প্রশাসনের উদ্যোগে গাছটিকে নান্দনিক শিল্পে রূপান্তিত করার সিদ্ধান্ত নেয়।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (লালমোহন সার্কেল) রাসেলুর রহমান জানান, এ আমগাছটি অনেক পুরনো, এখানকার ঐতিহ্য ছিল। এধরণের গাছ এ অঞ্চলে খুবই কম দেখা যায়। এজন্য আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি গাছের মূল যে অংশটি আছে সেই অংশটিকে নান্দনিক শিল্পে রূপান্তরিত করবো।

লালমোহন থানার অফিসার ইনচার্জ মীর খায়রুল কবীর বলেন, আমি এ থানায় যোগদান করেই এ আমগাছটি দেখতে পাই। একটি থানার সামনে এধরণের আমগাছ থাকা অস্বাভাবিক। কিন্তুু কিছুদিন পর দেখলাম গাছটি পর্যায়ক্রমে মরে যাচ্ছে। আমরা সকলে উদ্যোগ নিলাম গাছটিকে রং করে নান্দনিক শিল্পে রূপান্তর করার। বর্তমানে আম গাছটিকে অনেক সুন্দর দেখাচ্ছে।

এই বিভাগের আরো খবর