• বৃহস্পতিবার   ২৪ জুন ২০২১ ||

  • আষাঢ় ১০ ১৪২৮

  • || ১৩ জ্বিলকদ ১৪৪২

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
জনগণের ভাগ্য নিয়ে যেন কেউ না খেলে: প্রধানমন্ত্রী রোহিঙ্গা প্রত্যাবর্তনে ফের বিশ্ব নেতাদের সহযোগিতা কামনা আজ আওয়ামী লীগের ৭২তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ২৪ জুন শর্তসাপেক্ষে কক্সবাজারে খুলছে হোটেল পরিকল্পিতভাবেই এগোচ্ছি : প্রধানমন্ত্রী আগামী মাস থেকে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের ভাতা ২০ হাজার টাকা: মন্ত্রী মঙ্গলবার থেকে সাত জেলায় লকডাউন, বন্ধ গণপরিবহন সেনাবাহিনীর অপারেশনাল সক্ষমতা বেড়েছে: প্রধানমন্ত্রী একসঙ্গে ঘর পেল ৫৩ হাজার অসহায় পরিবার, বিশ্বে নজিরবিহীন বিশ্ব শান্তি সূচকে সাত ধাপ এগোলো বাংলাদেশ ফিলিস্তিন রাষ্ট্র গঠনে অঙ্গীকার পুনর্ব্যক্ত করলেন রাষ্ট্রপতি বিধিনিষেধ বাড়লো আরো এক মাস দেশের উন্নয়নে যেন কোনোভাবেই সুন্দরবন ক্ষতিগ্রস্ত না হয় রাষ্ট্রপতি কাজাখ রাজধানীতে ওআইসি সম্মেলনে ভার্চুয়ালি যোগ দিবেন এসএসএফের দক্ষতা বৃদ্ধিতে সুযোগ সৃষ্টি করে দিচ্ছি : প্রধানমন্ত্রী একটা করে বনজ, ফলজ ও ভেষজ গাছ লাগান: প্রধানমন্ত্রী করোনায় কোনো রকম রিস্ক না নিতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী এয়ার মার্শাল র‌্যাঙ্ক ব্যাজ পরলেন নতুন বিমানবাহিনী প্রধান স্কুল-কলেজে ছুটি আবার বাড়ল গণতন্ত্রের মুক্তি দিবস ১১ জুন

পরিবেশের ছাড় না পেলে ধরে নিতে হবে ইতিবাচক: প্রধানমন্ত্রী

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ১ জুন ২০২১  

প্রকল্প বাস্তবায়নকালে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে পরিবেশের ছাড়পত্র না এলে সেটাকে অনাপত্তি ধরে নিতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘তারা যদি চুপচাপ বসে থাকে, তাহলে ধরে নিতে হবে তাদের কিছু বলার নেই।’ বিষয়টি আইনি কাঠামোর মধ্যে নিয়ে আসার কথা বলেন তিনি।

মঙ্গলবার (১ জুন) অনুষ্ঠিত একনেকের সভায় প্রধানমন্ত্রী এ নির্দেশ দেন বলে বৈঠক শেষে পরিকল্পনা মন্ত্রী সাংবাদিকদের জানান। প্রধানমন্ত্রীর এই নির্দেশনার ফলে প্রকল্প বাস্তবায়নে পরিবেশ অধিদফতরের ছাড়পত্র দিতে দেরি হলেও প্রকল্প বাস্তবায়নে বাধা থাকবে না।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে সংযুক্ত হয়ে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত একনেক সভায় সভাপতিত্ব করেন।

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার কথা উল্লেখ করে পরিকল্পনা মন্ত্রী বলেন, ‘প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে ছাড়পত্রের জন্য পরিবেশ অধিদফতরের কাছে যেতে হয়। কিছু কিছু ক্ষেত্রে ছাড়পত্র দেরি হওয়ার অভিযোগ পাওয়া যায়। এ  কারণে আমাদের প্রকল্প বাস্তবায়নে দেরি হয়। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, নির্দিষ্ট সময় উল্লেখ করে ছাড়পত্র চাওয়া হবে। ওই সময়ের মধ্যে যদি তারা ছাড়পত্র না দেয়, বা কোনও সিদ্ধান্ত না দেয়, তাহলে ধরে নিতে হবে এ বিষয়ে তাদের কোনও আপত্তি নেই। এ ক্ষেত্রে ছাড়পত্রের জন্য অপেক্ষা করার দরকার নেই। এটি একটি গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত। আমরা এই বিষয়টিকে আইনি পর্যায়ে নিয়ে আসবো।’

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘কোনও ক্যাটাগরির দিকে যাওয়া হয়নি। জেনারেলি একটি নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। পরিবেশ অধিদফতরের অনাপত্তি প্রকল্প বাস্তবায়ন খুবই জরুরি। আমলাতান্ত্রিক জটিলতায় বা যেকোনও কারণে ছাড়পত্র পেতে দেরি হয়। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, দেরি কেন হবে। একটি রিজনেবল টাইম ধরে আপনারা এটি চাইবেন। এ সময়ের মধ্যে তারা ছাড়পত্র দিতে পারে। আপত্তি জানাতে পারে কিংবা রিভাইস করার পরামর্শ দিতে পারে। তারা চুপচাপ বসে থাকবে, জবাব দেবে না, এটা হবে না। যদি তারা চুপচাপ বসে থাকে, তাহলে ধরে নেবো তাদের কিছু বলার নেই। এর মানে মৌনভাব সম্মতির লক্ষণ।’

প্রকল্প শুরু হওয়ার পর পরিবেশ মন্ত্রণালয় থেকে যদি কোনও আপত্তি আসে, সে ক্ষেত্রে কী হবে জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, ‘পরিবেশ সরকারের অংশ, যারা প্রকল্প বাস্তবায়ন করবে তারাও সরকারের অংশ। কোনও প্রকল্প বাস্তবায়নকালে যদি এমন কোনও সমস্যা দেখা যায়, সত্যিই সেটি পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর। এক্ষেত্রে পরিবেশ অধিদফতর থেকে তখনও যদি কোনও আপত্তি আসে, তা অবশ্যই বিবেচনা করা হবে। নিশ্চয়ই আমরা প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে গিয়ে এমন কোনও কিছু করবো না, যা পরিবেশের ক্ষতি হয়।’

পরিকল্পনা সচিব জয়নুল বারী বলেন, ‘অনেক সময় প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে গিয়ে পরিবেশ অধিদফতরের অনাপত্তি চাওয়া হয়, কিন্তু সময় মতো অনাপত্তি পাওয়া যায় না। এ কারণে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।’

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার কথা উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ‘গাছ কাটলে গাছ লাগাতে হবে। এটা তিনি আগেও বলেছেন আজও বলেছেন।’

কোনও প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে গিয়ে নদীর সঙ্গে সংযুক্ত খালগুলো যেন বন্ধ না হয়, প্রধানমন্ত্রী সেগুলোর দিকে নজর দিতে বলেছেন বলে জানান পরিকল্পনা মন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘নদী, বড় নদীতে পানি প্রবেশ ও বের হওয়ার যে খালগুলো রয়েছে, এগুলো যেন বন্ধ না হয়, প্রধানমন্ত্রী সেই নির্দেশনা দিয়েছেন। নদী এলাকায় কোনও প্রকল্প বাস্তবায়নকালে সাবধানতা অবলম্বন করার নির্দেশও দিয়েছেন তিনি।’

পরিকল্পনা মন্ত্রী আরও বলেন, ‘অনেক জায়গায় প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে গিয়ে খালগুলো বন্ধ করা হয়। স্লুইসগেটের নামে পানি চলাচলে বিঘ্ন ঘটানো হয়। পরে দেখা যায় স্লুইসগেটগুলো ঠিকমতো কাজ করে না। অযথা অনেক টাকা ব্যয় করা হয়। তিনি (প্রধানমন্ত্রী) এসব বিষয় দেখতে বলেছেন।’