• বৃহস্পতিবার   ২৮ মে ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৩ ১৪২৭

  • || ০৫ শাওয়াল ১৪৪১

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
দেশে একদিনে নতুন শনাক্ত ১৫৪১, মৃত্যু ২২ জীবন বাঁচাতে জীবিকাও সচল রাখতে হবে: কাদের ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ১৮৭৩ জন শনাক্ত, মৃত্যু আরও ২০ জনের মমতাকে সহমর্মিতা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ফোন মোংলা ও পায়রা বন্দরে ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত মহাবিপদ সংকেত জারি সকালে, রাতের মধ্যে আসতে হবে আশ্রয় কেন্দ্রে ২ লাখ ৫ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন বাজেট অনুমোদন আম্পানের আঘাতে ১০ ফুটের অধিক উচ্চতার জলোচ্ছ্বাসের আশঙ্কা আরও ১২৫১ করোনা রোগী শনাক্ত, মৃত্যু ২১ জনের আরও ৭ হাজার কওমি মাদ্রাসাকে প্রধানমন্ত্রীর অর্থ সহায়তা পায়রা-মংলায় ৭, চট্টগ্রাম-কক্সবাজারে ৬ নম্বর বিপদ সংকেত দেশে একদিনে আক্রান্ত ও মৃত্যুর নতুন রেকর্ড সমুদ্রসীমায় অবৈধ মৎস্য আহরণ বন্ধ করতে হবে: প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী পাঁচ হাজার টেকনোলজিস্ট নিয়োগের ঘোষণা স্বাস্থ্যমন্ত্রীর করোনা সংক্রমণে বাংলাদেশ কিছুটা ভালো অবস্থানে আছে: কাদের করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ১৪ মৃত্যু, শনাক্ত ১২৭৩ আম্ফান : সমুদ্রবন্দরে ৪ নম্বর স্থানীয় হুঁশিয়ারি সংকেত ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় ‘আম্ফান’, সাগরে ২ নম্বর সংকেত আজ শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস ত্রাণ নিয়ে অনিয়ম করলে দলীয় পরিচয় দিলেও ছাড় হবে না : কাদের
১৩২

ফোন পেয়ে অসহায় পরিবারের পাশে দাড়াঁলো ইউএনও

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ৫ এপ্রিল ২০২০  

ভোলা প্রতিনিধিঃ ফোন পেয়ে করোনাভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতিতে কর্মহীন হয়ে পড়া অসহায় মানুষের পাশে এসে দাঁড়িয়েছে  ভোলা সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মো: মিজানুর রহমান। রবিবার দুপুরে  ভোলা সদর উপজেলার ধনিয়া ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ডের নবীপুর এলকার অর্ধশতাধিক খেটে খাওয়া শ্রমিক,অসহায় দরিদ্র্য  গরীব লোকদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে  খাদ্য সামগ্রী পৌছে দিলেন ইউএনও। করোনা আতঙ্কে বাড়ী থেকে বের হতে পারছেন না খেটে খাওয়া দিনমজুররা। বাড়ীর বাইরে যেতে না পারায় তাদের দিন কাটছে অনাহারে। তাই  গাড়ীতে করে চাল, ডাল,আলু,সাবানসহ নিত্যপন্য খাবার সামগ্রী  পৌছে দিচ্ছেন উপজেলার বিভিন্ন পাড়া মহল্লায় খেটে খাওয়া দিনমজুরদের বাড়ী বাড়ী গিয়ে খাদ্যসামগ্রী তুলে দিচ্ছেন অসহায় পরিবারের হাতে। খাবার পেয়ে আনন্দে চোখের পানি ঝড়িয়েছেন অনেকের।

ভোলা সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মো: মিজানুর রহমান জানায়, আমরা দিন-রাত চেষ্টা করছি প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ সামগ্রী অসহায় মানুষের হাতে তুলে দেয়ার। যাতে নিম্ন মধ্যবিত্ত মানুষ ত্রাণ পায় । এ জন্য আমি নিজে চেষ্টা করি সরাসরি ত্রাণ বিতরণে অংশগ্রহন  করার। এতে করে প্রকৃত অসহায়রা সরকারের খাদ্য সামগ্রী পাচ্ছেন। এ জন্য আমি প্রতিদিন খেটে খাওয়া মানুষের জন্য ত্রাণ নিয়ে বের হই। অপর দিকে খাদ্য সামগ্রী নিতে ঝুঁকি নিয়ে কাউকে ঘর থেকে বের হতে হচ্ছেনা। এ ভাবে পর্যায়ক্রমে  উপজেলার সকল ইউনিয়নে কর্মহীন দরিদ্র অসহায়দের মাঝে খাদ্য পৌছে দেয়ার চেষ্টা করছি। উল্লেখ্য, জেলা প্রশাসক এর নিদের্শ ক্রমে এর আগে ভোলা বাসটার্মিনালে প্রায় দেড়শ পরিবহন শ্রমিকদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়।

উপজেলা বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর