• মঙ্গলবার   ১৮ মে ২০২১ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৪ ১৪২৮

  • || ০৫ শাওয়াল ১৪৪২

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
চোখ বন্ধ করে বিদেশি পরামর্শক নিয়োগ নয়: প্রধানমন্ত্রী ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনায় ৩০ জনের মৃত্যু ৪২তম বিসিএসের মৌখিক পরীক্ষা স্থগিত রাজধানীতে আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সক্রিয় সদস্য গ্রেফতার ৩ দিনের রিমান্ডে মামুনুল দুর্নীতি করলে ব্যাংক কর্মকর্তাদের জরিমানা, হবে ফৌজদারি মামলা ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনায় ৩২ জনের মৃত্যু শেখ হাসিনা বাংলাদেশের উন্নয়নের কান্ডারি : সেতুমন্ত্রী ইতিহাস আর কেউ কোনো দিন বিকৃত করতে পারবে না: প্রধানমন্ত্রী আরও তিনদিনের রিমান্ডে মামুনুল হক ২৪ ঘণ্টা করোনায় আরও ৪০ মৃত্যু, আক্রান্ত ১১৪০ আল-আকসা মসজিদে হামলায় প্রধানমন্ত্রীর নিন্দা খালেদা জিয়ার চিকিৎসার ব্যাপারে সরকার আন্তরিক: হানিফ ড. ওয়াজেদ মিয়া দেশে আণবিক গবেষণার পথিকৃৎ: রাষ্ট্রপতি লাইলাতুল কদর এক মহিমান্বিত রজনী: প্রধানমন্ত্রী ২৪ ঘণ্টায় করোনায় দেশে ৪৫ মৃত্যু খালেদা জিয়াকে বিদেশে নেয়ার প্রয়োজন নেই : হানিফ তাণ্ডবকারীদের আইনের আওতায় আনা হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অনলাইনে পরীক্ষা নিতে পারবে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো আজই ফিরছেন সাকিব-মুস্তাফিজ

যাদেরকে জাকাত দেয়া যাবে না

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ২৯ এপ্রিল ২০২১  

ইসলামের পাঁচটি স্তম্ভের মধ্যে অন্যতম হচ্ছে জাকাত। জাকাতের উদ্দেশ্যই হলো দরিদ্র দূর, কিন্তু সেটা না হয়ে জাকাত যদি অপাত্রে যায় তবে সেই জাকাতে উদ্দেশ্য পূর্ণ হবে না। খিলাফতের যুগে জাকাতের মাল-সম্পদ বাইতুল মালে জমা হতো। সেখান থেকে খলীফার পক্ষ হতে জাকাতের হক্বদারদের মধ্যে বণ্টন করে দেয়া হতো। কিন্তু বর্তমানে সেই খিলাফতের ব্যবস্থা না থাকায় জাকাতদাতাগণ নিজেই জাকাতের মাল হক্বদারদের মধ্যে বণ্টন করে থাকেন।

এ কারণে যাকাতদাতার মধ্যে ইচ্ছায়-অনিচ্ছায় গইরুল্লাহ অর্থাৎ রিয়া বা লৌকিকতা এ ধ্বংসাত্মক বদ গুণটি জন্ম নেয়। ফলে তার জাকাত কবুল হওয়ার বিপরীতে বরবাদ হয়ে যায়। কারণ আল্লাহ পাক ইরশাদ করেন-

تعاونوا على البر والتقوى ولاتعانوا على الاثم والعدوان واتقوا الله ان الله شديد العقاب.

অর্থ: তোমরা নেকী ও পরহিযগারীর মধ্যে সাহায্য করো। আর পাপ ও শত্রুতা অর্থাৎ আল্লাহ পাক ও উনার হাবীব (সা.) উনাদের বিরোধিতা বা নাফরমানীর মধ্যে সাহায্য করো না। এ বিষয়ে তোমরা আল্লাহ পাক উনাকে ভয় করো। নিশ্চয়ই আল্লাহ পাক তিনি কঠোর শাস্তিদাতা। (সুরা মায়িদা: আয়াত শরীফ-২)

কিন্তু, এ ব্যাপারে জানা না থাকার কারণে দেখা যায়, কেউ কেউ এমন কাউকে জাকাত দেন বা এমন খাতে যাকাতের অর্থ ব্যয় করে ফেলেন, যা জাকাতের শরয়ী খাতের অন্তর্ভুক্ত নয়। ফলে তাদের জাকাত অনাদায়ী থেকে যায়। তাই জাকাত কারা নিতে পারবে বা কাদের দিবেন বিষয়টি অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ। জাকাত দেয়া যাবে না, এমন খাতগুলোর তালিকা নিম্নে প্রদত্ত হলো-

১. অমুসলিম, তবে তাদের সদকা বা যেকোনো স্বেচ্ছা দান করা যাবে।
২. নিসাব পরিমাণ সম্পদের মালিক।
৩. নিসাব পরিমাণ সম্পদের মালিকের নাবালক সন্তান।
৪. বনি হাশেমের লোক।
৫. মা-বাবা, দাদা-দাদি, নানা-নানি–একইভাবে যত ওপরের স্তরের দিকের কাউকে জাকাত দেয়া যাবে না। অর্থাৎ যাদের মাধ্যমে দুনিয়ায় এসেছেন, তাদেরসহ উপরের স্তরের কাউকে জাকাত দেয়া যাবে না।
৬. নিজের মাধ্যমে যারা দুনিয়ায় এসেছে, অর্থাৎ ছেলে-মেয়ে ও তাদের সন্তানাদি, একইভাবে তাদের সন্তানদের জাকাত দেয়া যাবে না।
৭. স্ত্রী ও স্বামী একে অন্যকে জাকাত দিতে পারবে না।
৮. মসজিদ-মাদরাসা, পুল, রাস্তা, হাসপাতাল বানানোর কাজে ও মৃতের দাফনের কাজে জাকাতের টাকা দেয়া যাবে না।
৯. সরকার যদি জাকাতের মাসআলা অনুযায়ী সঠিক স্থানে জাকাতের অর্থ ব্যয় না করে, তাহলে সরকারের জাকাত ফান্ডেও জাকাত দেয়া যাবে না। 
১০. জাকাত দ্বারা মসজিদ মাদরাসার স্টাফকে বেতন দেয়া যায় না।