সোমবার   ৩০ মার্চ ২০২০   চৈত্র ১৬ ১৪২৬   ০৫ শা'বান ১৪৪১

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
পিপিই যেন নষ্ট না হয়, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী করোনা মোকাবিলায় সরকার জনগণের পাশে আছে -প্রধানমন্ত্রী ছুটিতে কর্মস্থল ছাড়া যাবে না : সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসন করোনা সংকটকালে জনগণের পাশে থাকবে আ.লীগ: কাদের আমি করোনায় আক্রান্ত হইনি : স্বাস্থ্যমন্ত্রী বাংলাদেশে ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত নেই : আইইডিসিআর পদ্মা সেতু‌তে বসলো ২৭তম স্প্যান, দৃশ্যমান হলো ৪ হাজার ৫০ মিটার সব পোশাক কারখানা বন্ধের নির্দেশ ভোলায় সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে নৌ-বাহিনীর টহল পবিত্র শবে বরাত ৯ এপ্রিল অতি প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাইরে যাবেন না : প্রধানমন্ত্রী জাতির উদ্দেশে ভাষণ দিচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী সন্ধ্যায় জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী জাতির উদ্দেশে আজ ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী নিষেধাজ্ঞা অক্ষরে অক্ষরে পালন করুন : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশেই খালেদা জিয়াকে মুক্তির সিদ্ধান্ত করোনা ছোঁয়াচে, এক মিটার দূরত্বে থাকার পরামর্শ টিসিবি-ভোক্তা অধিদফতরের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ছুটি বাতিল ২৬ মার্চ থেকে সারাদেশে ১০ দিন গণপরিবহন বন্ধ সকল বেসরকারি প্রতিষ্ঠানও বন্ধের নির্দেশ
৬৮

যেখানে বৃষ্টির মতো ঝরে পড়ে লোহা

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ১৮ মার্চ ২০২০  

মহাকাশ গবেষণায় নতুন মোড়। আমাদের সৌরজগতের বাইরে অনন্ত মহাকাশের কোনও এক প্রান্তে এক গ্রহ চোখে পড়েছে বিজ্ঞানীদের। আর সেই গ্রহকে জানতে গিয়ে অবাক হয়েছেন তারা। পৃথিবী থেকে ৬৪০ আলোকবর্ষ দূরে খোঁজ পাওয়া গেল এই নতুন গ্রহের। এই গ্রহে বৃষ্টির মতো ঝরে পড়ে লোহা।

নেচার পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে এই গবেষণাপত্র। সুইজারল্যান্ডের জেনিভা বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা জানিয়েছেন, এই নতুন গ্রহের নাম দেওয়া হয়েছে ডবলুএএসপি-৭৬বি।

গ্রহটির তাপমাত্রা প্রচণ্ড বেশি। সেখানে দিনের বেলা তাপমাত্রা থাকে ২ হাজার ৪০০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের বেশি। এই তাপমাত্রায় লোহাসহ যাবতীয় ধাতু গলে গিয়ে বাষ্পে পরিণত হয়। তবে বাতাসের দাপটে বাষ্পে পরিণত হওয়া ধাতু উড়ে যায়। ফলে রাতের তাপমাত্রা অনেকটাই কমে যায়।

গ্রহটির বিষয়ে জেনিভা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ডেভিড আরেনরাইখ জানিয়েছেন, এই গ্রহে বিকালের দিকে বৃষ্টি হয়। তবে সেখানে লোহা-বৃষ্টি হয়। যে নক্ষত্রের আলোয় গ্রহটি আলোকিত হয়, সেই নক্ষত্রের দিকে গ্রহটির একটি দিকই সবসময় থাকে। অন্য দিকটি সবসময়ই অন্ধকার হয়ে থাকে।

নক্ষত্রটিকে প্রদক্ষিণ করতে ৪৩ ঘণ্টা সময় নেয় এই গ্রহ। সূর্য থেকে পৃথিবীতে যে তেজষ্ক্রিয় বিকিরণ আসে, নক্ষত্রটি থেকে ডবলুএএসপি-৭৬বি-তে তার হাজারগুণ বেশি বিকিরণ হয়।

নক্ষত্রের দিকে থাকা অংশটি এত গরম হয়ে যায় যে বাষ্প অনুতে পরিণত হয়। দিন ও রাতের তাপমাত্রার বিরাট ফারাকের ফলে প্রচণ্ড বাতাস বইতে থাকে। সেই বাতাসের দাপটে উষ্ণ অংশ থেকে বাষ্পে পরিণত হওয়া লোহা শীতল অংশে উড়ে যায়। শীতল অংশের তাপমাত্রা থাকে এক হাজার ৫০০ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

এই বিভাগের আরো খবর