• সোমবার   ২৫ মে ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১০ ১৪২৭

  • || ০২ শাওয়াল ১৪৪১

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
জীবন বাঁচাতে জীবিকাও সচল রাখতে হবে: কাদের ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ১৮৭৩ জন শনাক্ত, মৃত্যু আরও ২০ জনের মমতাকে সহমর্মিতা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ফোন মোংলা ও পায়রা বন্দরে ১০ নম্বর মহাবিপদ সংকেত মহাবিপদ সংকেত জারি সকালে, রাতের মধ্যে আসতে হবে আশ্রয় কেন্দ্রে ২ লাখ ৫ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন বাজেট অনুমোদন আম্পানের আঘাতে ১০ ফুটের অধিক উচ্চতার জলোচ্ছ্বাসের আশঙ্কা আরও ১২৫১ করোনা রোগী শনাক্ত, মৃত্যু ২১ জনের আরও ৭ হাজার কওমি মাদ্রাসাকে প্রধানমন্ত্রীর অর্থ সহায়তা পায়রা-মংলায় ৭, চট্টগ্রাম-কক্সবাজারে ৬ নম্বর বিপদ সংকেত দেশে একদিনে আক্রান্ত ও মৃত্যুর নতুন রেকর্ড সমুদ্রসীমায় অবৈধ মৎস্য আহরণ বন্ধ করতে হবে: প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী পাঁচ হাজার টেকনোলজিস্ট নিয়োগের ঘোষণা স্বাস্থ্যমন্ত্রীর করোনা সংক্রমণে বাংলাদেশ কিছুটা ভালো অবস্থানে আছে: কাদের করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ১৪ মৃত্যু, শনাক্ত ১২৭৩ আম্ফান : সমুদ্রবন্দরে ৪ নম্বর স্থানীয় হুঁশিয়ারি সংকেত ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় ‘আম্ফান’, সাগরে ২ নম্বর সংকেত আজ শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস ত্রাণ নিয়ে অনিয়ম করলে দলীয় পরিচয় দিলেও ছাড় হবে না : কাদের স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষা করলে ঘোর অমানিশা নেমে আসবে : সেতুমন্ত্রী
৯৯

রমজানসহ বর্তমান পরিস্থিতিতে গর্ভবতী মায়ের সাবধানতা ও করণীয়

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ৩০ এপ্রিল ২০২০  

 


করোনার বর্তমান পরিস্থিতিতে উপসর্গ গোপন রাখার প্রবণতার কারণে বেশি সংকটে আছি আমরা চিকিৎসকসহ সব স্বাস্থ্যকর্মী। আর সাধারণ জনগণের মাঝে শিশু, বৃদ্ধের পাশাপাশি গর্ভবতী মায়েরাও বর্তমান পরিস্থিতিতে আছেন শঙ্কায়। কিছুটা ঝুঁকিও রয়েছে তাদের। কারণ গর্ভকালীন সময়ে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যায় সাধারণ সময়ের থেকে অনেক বেশি। তবে খুব বেশি সমস্যা হলে ডাক্তারের সঙ্গে আগে মোবাইলে পরামর্শ করুন এবং পরামর্শ অনুযায়ী হাসপাতাল বা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে যাবেন। বিনা প্রয়োজনে হাসপাতালে না যাওয়াই উত্তম। কারণ হাসপাতালসহ বাইরের যেকোনো জায়গা থেকে করোনা কিংবা অন্য কোনো জীবাণু দ্বারা আক্রান্ত হওয়ার সম্ভবনা থাকে।

বর্তমান পরিস্থিতিতে গর্ভবতী মায়ের সাবধানতা

** সবার আগে চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া কোনো ধরনের অ্যান্টিবায়োটিক ও ওষুধ সেবন করা থেকে গর্ভবতী মায়েদের বিরত থাকতে হবে।

** প্রয়োজন ছাড়া ঘরের বাইরে না যাওয়া ও গণপরিবহন এড়িয়ে চলা।

** করমর্দন, কোলাকুলি না করা।

** সবার থেকে কমপক্ষে তিন ফুট দূরত্ব বজায় রাখা।

** পরিবারের সবাই বার বার কমপক্ষে ২০ সেকেন্ড পর্যন্ত সাবান দিয়ে হাত ধোয়া

** সাবান দিয়ে কাপড় ধোয়া

** সবসময় পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকা

** নিয়মিত পুষ্টিকর খাবার খাওয়া ও পানি বেশি বেশি খাওয়া

** সুসিদ্ধ রান্না করা খাবার খাওয়া

** গর্ভকালীন সময়ে মায়ের স্বাভাবিক চেকআপ, খুব সমস্যা হলে ডাক্তারে সঙ্গে ফোনে যোগাযোগ করে সমাধান নেওয়া

** আয়রণ, ফলিক এসিড, ক্যালসিয়াম ও পুষ্টিকর খাবার নিয়মিত খাওয়া

রোজা রাখলে গর্ভবতী মায়ের করণীয়

** রোজার ইফতারের পর থেকে সেহেরি পর্যন্ত স্বাভাবিকের থেকে বেশি খাবার খেতে হবে, এসময় অল্প অল্প করে বারে বারে খাবার খাওয়া যেতে পারে।

** গরমের দিনে এবারের রমজান হওয়ায় ফ্লুইড ব্যালেন্সের জন্য বেশি বেশি পানি পান করা, তবে খুব বেশি পানি পান করার ফলে আপনার অস্বস্তি না হয় সেদিকে খেয়াল রাখা।

** পাশাপাশি ফলের শরবত ও পুষ্টিকর তরল জাতীয় খাবার বেশি বেশি পান করা।

** ইফতারের সময় বেশি ভাজাপোড়া এবং তেল জাতীয় খাবার খাওয়া থেকে বিরত থাকা।

** আয়রণ, ফলিক এসিড, ক্যালসিয়াম ও পুষ্টিকর খাবার নিয়মিত খাওয়া।

** ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া কোনো ধরনের ওষুধ সেবন না করা।

** যদি কারো গর্ভাবস্থায় কিছু ওষুধ সেবন করতে হয়, তারা চিকিৎসকের পরামর্শে দিনের ওষুধগুলো রাতেও হিসেব অনুযায়ী খেতে পারেন।

** প্রতিনিয়িত গর্ভের সন্তানের নড়াচড়া লক্ষ করা

কোভিড-১৯ আক্রান্ত মায়ের করণীয়

** যদি কোভিড১৯-এর লক্ষণ বা উপসর্গগুলো দেখা দেয় তবে সেটি গোপন না করে দ্রুত কল সেন্টার বা নির্ধারিত হাসপাতালে যোগাযোগ করুন

** চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী চলা এবং ১৪ দিন নিজ গৃহে বা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে কোয়ারেন্টিন অবস্থায় থাকুন।

** সব সময় মাস্ক পরিধান করা এবং বার বার (২০ সেকেন্ড) সাবান দিয়ে হাত ধোয়া

** বেশি করে ভিটামিন সি ও তরল জাতীয় উষ্ণ পানীয় গ্রহণ করা

** প্রতিদিনের পরিহিত পোশাক ভালো করে সাবান দিয়ে ধুয়ে ফেলা

** পরিবারের সবার সঙ্গে দূরত্ব বজায় রাখা

করোনায় আক্রান্ত গর্ভবতী মায়ের চিকিৎসাধীন সময়ে লক্ষণীয় বিষয়

** বার বার তাপমাত্রা পর্যবেক্ষণ

** শ্বাস প্রশ্বাসের হার পর্যবেক্ষণ

** পেটের ভেতর বাচ্চার নড়া-চড়ার পর্যবেক্ষণ

এছাড়া পরিবারের সদস্যসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে মানসিক ও সামাজিক সমর্থনসহ গর্ভবতী মায়ের যত্ন নিতে হবে। আর প্রসবের সময় অপারেশন এর প্রয়োজন হলে নির্ধারিত হাসপাতাল ও চিকিৎসকের সঙ্গে যোগাযোগ করাটা খুবই প্রয়োজন।

লেখক: গাইনি ও প্রসূতি বিশেষজ্ঞ, কনসালটেন্ট, বিভাগীয় পুলিশ হাসপাতাল বরিশাল।

স্বাস্থ্য বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর