• বৃহস্পতিবার   ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১ ||

  • ফাল্গুন ১২ ১৪২৭

  • || ১৩ রজব ১৪৪২

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
সাত কলেজের পরীক্ষা চলবে: শিক্ষা মন্ত্রণালয় করোনায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৫, শনাক্ত ৪২৮ কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালে সাধারণ মানুষও চিকিৎসা পাবেন: আইজিপি জনগণ ভালোবেসে আমাদের সরকার গঠনের সু্যোগ দিয়েছে: কাদের বিএনপির অনেক নেতা গোপনে টিকা নিয়েছেন : তথ্যমন্ত্রী দেশে করোনায় ১৮ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৩৯৯ কমিশন বাণিজ্যের ধারা থেকে বেরিয়ে আসতে হবে: সেতুমন্ত্রী জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সব ধরনের পরীক্ষা স্থগিত ভবিষ্যতে বাংলাদেশেও তৈরি হবে যুদ্ধবিমান: প্রধানমন্ত্রী দেশে করোনায় ৭ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৩৬৬ বিশ্ববিদ্যালয়গুলো খুলছে ২৪ মে: শিক্ষামন্ত্রী হল খুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত ৫-৬ দিনের মধ্যেই: মন্ত্রিপরিষদ সচিব এক মাসের মধ্যে চালের বাজার স্বাভাবিক হবে: বাণিজ্যমন্ত্রী করোনায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৫, শনাক্ত ৩৫০ এটিএম শামসুজ্জামান আর নেই এখন ঘরে ঘরে মানুষ ডিজিটাল সেবার সুবিধা পাচ্ছে: বাণিজ্যমন্ত্রী সামিসহ ৪ জনের বিরুদ্ধে করা মামলার আদেশ ২৩ ফেব্রুয়ারি করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ১৫ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৩৯১ খাদ্যে ভেজালকারীদের কঠোর হাতে দমন করা হবে: প্রধানমন্ত্রী আলজাজিরার মতো মিথ্যাবাদী মিডিয়া থাকা উচিত নয় : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

রোববার থেকে পর্যটকদের জন্য খুলছে মাধবকুণ্ড-লাউয়াছড়া

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ২৯ অক্টোবর ২০২০  

সিলেটের অন্যতম আকর্ষণীয় দুটি স্থান লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান ও মাধবকুণ্ড জলপ্রপাত রোববার থেকে পর্যটকদের জন্য উন্মুক্ত করা হচ্ছে। করোনা সংক্রমণের কারণে প্রায় ৭ মাস বন্ধ ছিলো এই প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের এ দুটি স্থান।

স্বাস্থ্যবিধি মেনে পর্যটকরা লাউয়াছড়া ও মাধবকুণ্ডে ওই দিন থেকে যেতে পারবেন বলে ট্যুরিস্ট পুলিশ মৌলভীবাজার জোন জানিয়েছে।

এদিকে বন বিভাগ সূত্র জানা গেছে, মৌলভীবাজার জেলার লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান, মাধবকুণ্ড ইকোপার্কসহ বন বিভাগের নিয়ন্ত্রণাধীন সকল দর্শনীয় স্থান ও ইকোপার্ক রোববার থেকে পর্যটকদের খুলে দেয়া হচ্ছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে দর্শনার্থীগণকে প্রবেশ করার জন্য পর্যটন সংশিষ্টসহ সকলকে অনুরোধ জানিয়েছে তারা।

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে ১২৫০ হেক্টর জমি নিয়ে লাউয়াছড়া সংরক্ষিত বনাঞ্চল। ১৯৯৬ সালে এটিকে জাতীয় উদ্যান হিসেবে ঘোষণা করা হয়। উদ্ভিদ আর প্রাণী বৈচিত্রের আঁধার এই বন বিভিন্ন বিরল ও বিপন্ন প্রজাতির প্রাণীর আবাসস্থল হিসেবে পরিচিত। বন বিভাগের হিসেব মতে, ২০ প্রজাতির স্তন্যপায়ী, ৫৯ প্রজাতির সরীসৃপ (৩৯ প্রজাতির সাপ, ১৮ প্রজাতির লিজার্ড, ২ প্রজাতির কচ্ছপ), ২২ প্রজাতির উভচর, ২৪৬ প্রজাতির পাখি ও অসংখ্য কীট-পতঙ্গ রয়েছে।

এই বনে বিরল প্রজাতির উল্লুক, মুখপোড়া হনুমান, চশমাপড়া হনুমানও দেখতে পাওয়া যায়।

অপরদিকে, মৌলভীবাজার জেলার বড়লখো উপজলোয় মাধবকুণ্ড জলপ্রপাতটি বাংলাদেশের বৃহত্তম জলপ্রপাত। প্রায় ২০০ ফুট উঁচু টিলা হতে পাহাড়ি ঝর্নার পতিত জলরাশি পর্যটকের জন্য আকর্ষণীয়। এ জলপ্রপাতের নিকটেই খাসিয়া নৃ-গোষ্ঠীর বসবাস। জলপ্রপাতের চতুর্দিকে বিশাল বনভূমি অবস্থিত। মাধবকুন্ড জলপ্রপাত সংলগ্ন কুণ্ডে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের চৈত্রমাসের মধুকৃষ্ণা ত্রয়োদশী তিথিতে বারুনী স্নান হয় এবং মেলা বসে। হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের এটি একটি তীর্থস্থান।