রোববার   ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০   ফাল্গুন ১১ ১৪২৬   ২৮ জমাদিউস সানি ১৪৪১

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
পতাকার মর্যাদা ধরে রাখতে সেনা সদস্যদের প্রতি রাষ্ট্রপতির আহ্বান জুয়ার আসর থেকে আটক ২৬ দুই ইউনিভার্সিটিকে ১০ লাখ টাকা করে জরিমানা দৃশ্যমান পদ্মা সেতুর পৌনে চার কিলোমিটার সারা দেশে শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত ইংরেজি উচ্চারণে বাংলা বলার সমালোচনা প্রধানমন্ত্রীর উন্নত দেশ গড়তে বেসরকারি সহযোগিতা প্রয়োজন: পররাষ্ট্রমন্ত্রী মুজিববর্ষে বিএনপিকেও আমন্ত্রণ জানানো হবে: কাদের ভণ্ডপীরসহ ৯ জনের কারাদণ্ড প্রধানমন্ত্রী সব সময় শিক্ষাকে গুরুত্ব দেন: পরিকল্পনামন্ত্রী মুজিব বর্ষে নতুন শিল্প কারখানা স্থাপন করা হবে: শিল্প প্রতিমন্ত্রী আসন্ন সেচ মৌসুমে লোডশেডিংয়ের শঙ্কা নেই : বিদ্যুৎ বিভাগ একুশে পদক হাতে তুলে দিলেন প্রধানমন্ত্রী শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস শুক্রবার একুশে পদক মেধা ও মনন চর্চার ক্ষেত্র সম্প্রসারিত করবে : রাষ্ট্রপতি এনামুল বাছিরের পদোন্নতির আবেদন হাইকোর্টে খারিজ সমৃদ্ধ দেশ গড়তে সুস্থ যুব সমাজের বিকল্প নেই : প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ ডাকঘর সঞ্চয়ের সুদহার পুনর্বিবেচনা করা হবে : অর্থমন্ত্রী মুঠোফোন প্রতারক জিনের বাদশা গ্রেফতার করোনাভাইরাস নিয়ে গুজবে কান দিবেন না : স্বাস্থ্যমন্ত্রী
১২

‘স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী’ বিতর্কিত করতে বিএনপির উদ্ভট কর্মসূচি!

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

আগামী বছর স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন করবে বাংলাদেশ। মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের ক্ষমতাসীন সরকার এই উৎসবের আয়োজন করেছে। কিন্তু দুঃখের খবর হলো, সরকারের এই মহতী উদ্যোগকে প্রশ্নবিদ্ধ করতেই বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট অনুরূপ কর্মসূচি ঘোষণা করেছে। বিশিষ্টজনরা বিএনপির এই উদ্যোগকে ‘ঔদ্ধত্ব্যপূর্ণ’ বলে উল্লেখ করেছেন।

সম্প্রতি ২০ দলীয় জোটের এক বৈঠক শেষে সমন্বয়ক বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেন, আজকে সভায় সিদ্ধান্ত হয়েছে যে, ২০ দল আগামী বছর ২০২০ সালের ২৬ মার্চ থেকে ২০২১ সালের ২৬ মার্চ পর্যন্ত স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী পালন করবে। এজন্য একটি উপ-কমিটি গঠন করা হয়েছে। এই কমিটি প্রস্তাব করবে যে, জোট কী কী কর্মসূচি করবে।

এ ব্যাপারে বিএনপির জ্যেষ্ঠ নেতারা বলছেন, দেশের নাগরিক হিসেবে আমাদের অধিকার আছে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী পালনের। কে কী বললো কিংবা মনে করলো, তা নিয়ে মাথাব্যথা নেই। আমরা যখন এটি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি, তখন করেই ছাড়বো। আর সেটা যেকোন মূল্যেই করবো।

তারেক রহমানের এই সুবর্ণজয়ন্তী পালনে কোনো ভূমিকা থাকছে কিনা জানতে চাইলে বিএনপির একটি দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, ২০ দলীয় জোটের এই সিদ্ধান্তের কথা তাকে জানানো হয়েছে। তিনি হ্যাঁ কিংবা না কোনোটাই বলেননি। শুধু বলেছেন, যেটা ভালো মনে হয় করেন এবং এই উৎসবের পেছনে কে বা কারা অর্থায়ন করবেন, সে বিষয়েও নজর রাখতে বলেন।

বিএনপির বিক্ষুব্ধ একটি অংশ বলছে, দলের সাংগঠনিক অসঙ্গতির কারণে তৃনমূলসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা আজ নুইয়ে পড়েছে। সবাই ধরেই নিয়েছে বিএনপির উত্থান অসম্ভব। এ কারণে সভা-সমাবেশ কিংবা মিছিল-মিটিংয়ে তাদের উপস্থিতি নেই। তালা ঝুলছে অধিকাংশ মফস্বল কার্যালয়গুলোতে। কিন্তু এতে ভ্রুক্ষেপ নেই দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের। তিনি মোটা অর্থের বিনিময়ে পদ-মনোনয়ন বাণিজ্য করে লন্ডনে আয়েশী জীবন পার করছেন।

বিক্ষুব্ধ এই সূত্র আরও বলছে, দলের এমন ভঙ্গুরাবস্থায় স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী পালন করা হবে চরম বোকামি। অনেকটা আক্কেল সেলামি দেওয়ার মতো। তাই এটা না করাই ভালো হবে। এতে দল ও কর্মী-উভয়েরই মঙ্গল হবে।

এ ব্যাপারে রাজনৈতিক বিশ্লেষক সুভাষ সিংহ রায় বলেন, একাত্তরে স্বাধীনতা সংগ্রামের সক্রিয় বিরোধিতা করেছিল জামায়াত। কিন্তু সেই কৃতকর্মের জন্য তারা জাতির কাছে ক্ষমা চায়নি। বরং প্রহসনের অংশ হিসেবে বিএনপি তাদেরকে সঙ্গে নিয়ে ২০ দলের পক্ষ থেকে স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তি উদযাপনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। যেটা সম্পূর্ণ ঔদ্ধত্ব্যপূর্ণ।

এই বিভাগের আরো খবর