• বৃহস্পতিবার   ২৮ জানুয়ারি ২০২১ ||

  • মাঘ ১৫ ১৪২৭

  • || ১৪ জমাদিউস সানি ১৪৪২

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ১৫ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৫০৯ আন্তঃরাষ্ট্রীয় সুসম্পর্ক বজায় রেখে এগিয়ে যাচ্ছি : প্রধানমন্ত্রী তিন লাখ ভোটের ব্যবধানে চট্টলার ‘নগরপিতা’ হলেন রেজাউল টিকা কার্যক্রমে ঈদের মতো আনন্দঘন পরিবেশ: স্বাস্থ্যমন্ত্রী আগে নিলে বলবে কাউকে দিলো না: প্রধানমন্ত্রী ৪০তম বিসিএসের ফল প্রকাশ করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ১৭ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৫২৮ দেশে সুশাসন প্রতিষ্ঠিত করেছেন প্রধানমন্ত্রী: প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী চাল আমদানির ফলে বাজার স্থিতিশীল হয়েছে: কৃষিমন্ত্রী করোনার প্রথম টিকা নিলেন নার্স রুনু দেশে করোনা টিকা কার্যক্রম উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী ৭ ফেব্রুয়ারি একযোগে টিকাদান কর্মসূচি শুরু: স্বাস্থ্যমন্ত্রী দেশে করোনায় ১৪ মৃত্যু, শনাক্ত ৫১৫ কারও ব্যবসায়িক স্বার্থে ভ্যাকসিন সংগ্রহ করেনি সরকার: কাদের দেশের প্রথম নৌপ্রধান ক্যাপ্টেন নুরুল হক আর নেই দেশে ফিটনেসবিহীন গাড়ি চার লাখ ৮১ হাজার: কাদের বৈধ পথে বাড়ছে রেমিট্যান্স: পলক করোনায় ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ১৮, শনাক্ত ৬০২ চার ফিফটিতে বাংলাদেশের সংগ্রহ ২৯৭ সব জেলায় ৪-৫ দিনের মধ্যে ভ্যাকসিন পৌঁছে যাবে: পাপন

৫৭,০০০ ভূমিহীন, গৃহহীন পরিবারকে পুনর্বাসন করছে আশ্রয়ন

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

প্রধানমন্ত্রী’র ১০টি বিশেষ উদ্যোগের মধ্যে অন্যতম ‘আশ্রয়ন প্রকল্প’ এর আওতায় দেশব্যাপী ৫৭ হাজারেরও বেশি ভূমিহীন, গৃহহীন ও বাস্তুচ্যুত পরিবারকে পুনর্বাসন করা হবে।
আশ্রয়ন প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক মো. মাহবুব হোসেন আজ বৃহস্পতিবার  বলেন, আশ্রয়ন-২ (জুলাই ২০১০-জুন-২০২২) এর আওতায় এই পরিবারগুলোকে পুনর্বাসন করা হবে। এখানে ৪,৮৪০ কোটি ২৮ লাখ টাকা ব্যয়ে দুই লাখ ৫০ হাজার ভূমিহীন, গৃহহীন ও বাস্তুচ্যুত পরিবারকে পুনর্বাসন করার লক্ষ্যমাত্রা নেয়া হয়েছে।

ইতিমধ্যে, আশ্রয়নটি দেশব্যাপী জুলাই ২০১০ থেকে জুন ২০১৯ এর মধ্যে ৯২ হাজার ২৭৭ ভূমিহীন, গৃহহীন পরিবারকে পুনর্বাসন করেছে। তিনি আরো বলেন, ৪৮ হাজার পাঁচশ’ ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে ব্যারাকে এবং এক লাখ ৪৩ হাজার ৭৭৭ পরিবারকে তাদের নিজস্ব জমিতে পুনর্বাসন করা হয়েছে। মাহবুব হোসেন বলেন, উপকূলীয় এলাকায় ব্যারাক ও অন্যান্য এলাকায় সেমি ব্যারাক, চর এলাকার জন্য করোগেটেট শিট ব্যারাক এবং উপজাতিদের জন্য বিশেষ নকশা ঘর নির্মাণের একটি পরিকল্পনা রয়েছে। প্রকল্পের তথ্যানুসারে, সরকার কক্সবাজারের খুরুশকুলে জলবায়ু উদ্বাস্তুদের জন্য ১২৯ টি ৫-তলা ভবন নির্মাণ করছে। প্রকল্পটির উদ্দেশ্য হলো ঘূর্ণিঝড়, বন্যা, নদী ভাঙ্গন ও প্রাকৃতিক দূর্যোগ কবলিতদের জমি, বাসস্থান, প্রশিক্ষণ, ঋণ প্রদান, স্বাস্থ্যসেবা, পরিবার পরিকল্পনা, ইনকাম জেনারেটিং কার্যক্রম, বিশুদ্ধ খাবার পানীয় সরবরাহ, বিদ্যুৎ সরবরাহসহ বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা প্রদানের মাধ্যমে দারিদ্র্য দূরীকরণ করা।

প্রকল্প বিবরণে বলা হয়, পুনর্বাসিত পরিবারের প্রাপ্ত বয়স্ক সদস্যরা বিভিন্ন বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধির মাধ্যমে ইনকাম-জেনারেটিং কাজে সক্ষমতা অর্জন করতে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করছে। প্রকল্প পরিচালক বলেন, সরকার গৃহহীন জনগণকে আশ্রয় দিয়ে এবং তাদের স্বাবলম্বী করার মাধ্যমে অর্থবহ জীবন দেয়ার প্রকল্প হাতে নিয়েছে। তিনি বলেন, ‘ভিশন ২০২১’ ও টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজিএস) ২০৩০ অর্জন করতে দারিদ্র্য বিমোচনের জন্য প্রকল্প কার্যক্রম ত্বরান্বিত করবে।