• শুক্রবার   ০৫ জুন ২০২০ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ২১ ১৪২৭

  • || ১৩ শাওয়াল ১৪৪১

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
৩ হাজার মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট নিয়োগে অনুমোদন দিলেন প্রধানমন্ত্রী মানুষকে সুরক্ষিত করতে প্রাণপণে চেষ্টা করছি: প্রধানমন্ত্রী করোনায় মৃত্যুর মিছিলে আরও ৩৫ জন, নতুন শনাক্ত ২৪২৩ গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় ৩৭ মৃত্যু, শনাক্ত আরও ২৬৯৫ আজ থেকে চলবে আরও ৯ জোড়া ট্রেন হাসপাতাল থেকে রোগী ফেরানো শাস্তিযোগ্য অপরাধ: তথ্যমন্ত্রী যেকোনো প্রতিবন্ধকতা মোকাবিলা করে এগিয়ে যেতে পারব: প্রধানমন্ত্রী সময় যত কঠিনই হোক দুর্নীতি ঘটলেই আইনি ব্যবস্থা: দুদক চেয়ারম্যান জেলা হাসপাতালগুলোতে আইসিইউ ইউনিট স্থাপনের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর করোনা বিশ্ব বদলে দিলেও বিএনপিকে বদলাতে পারেনি: কাদের করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ৩৭ মৃত্যু, শনাক্ত ২৯১১ সীমিত আকারে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার নির্দেশনা খাদ্য উৎপাদন আরও বাড়াতে সব ধরনের প্রচেষ্টা চলছে: কৃষিমন্ত্রী সারা দেশকে লাল, সবুজ ও হলুদ জোনে ভাগ করা হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ২৩৮১ জনের করোনা শনাক্ত পুরোপুরি স্বাস্থ্যবিধি মেনে ট্রেন চলছে: রেলমন্ত্রী দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় ২৫৪৫ জনের করোনা শনাক্ত, মৃত্যু ৪০ জন বাস ভাড়া যৌক্তিক সমন্বয়, প্রজ্ঞাপন আজই: ওবায়দুল কাদের এখনই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলবো না: প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সে এসএসসির ফল প্রকাশ করলেন প্রধানমন্ত্রী
৯৯

৫৭,০০০ ভূমিহীন, গৃহহীন পরিবারকে পুনর্বাসন করছে আশ্রয়ন

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০  

প্রধানমন্ত্রী’র ১০টি বিশেষ উদ্যোগের মধ্যে অন্যতম ‘আশ্রয়ন প্রকল্প’ এর আওতায় দেশব্যাপী ৫৭ হাজারেরও বেশি ভূমিহীন, গৃহহীন ও বাস্তুচ্যুত পরিবারকে পুনর্বাসন করা হবে।
আশ্রয়ন প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক মো. মাহবুব হোসেন আজ বৃহস্পতিবার  বলেন, আশ্রয়ন-২ (জুলাই ২০১০-জুন-২০২২) এর আওতায় এই পরিবারগুলোকে পুনর্বাসন করা হবে। এখানে ৪,৮৪০ কোটি ২৮ লাখ টাকা ব্যয়ে দুই লাখ ৫০ হাজার ভূমিহীন, গৃহহীন ও বাস্তুচ্যুত পরিবারকে পুনর্বাসন করার লক্ষ্যমাত্রা নেয়া হয়েছে।

ইতিমধ্যে, আশ্রয়নটি দেশব্যাপী জুলাই ২০১০ থেকে জুন ২০১৯ এর মধ্যে ৯২ হাজার ২৭৭ ভূমিহীন, গৃহহীন পরিবারকে পুনর্বাসন করেছে। তিনি আরো বলেন, ৪৮ হাজার পাঁচশ’ ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারকে ব্যারাকে এবং এক লাখ ৪৩ হাজার ৭৭৭ পরিবারকে তাদের নিজস্ব জমিতে পুনর্বাসন করা হয়েছে। মাহবুব হোসেন বলেন, উপকূলীয় এলাকায় ব্যারাক ও অন্যান্য এলাকায় সেমি ব্যারাক, চর এলাকার জন্য করোগেটেট শিট ব্যারাক এবং উপজাতিদের জন্য বিশেষ নকশা ঘর নির্মাণের একটি পরিকল্পনা রয়েছে। প্রকল্পের তথ্যানুসারে, সরকার কক্সবাজারের খুরুশকুলে জলবায়ু উদ্বাস্তুদের জন্য ১২৯ টি ৫-তলা ভবন নির্মাণ করছে। প্রকল্পটির উদ্দেশ্য হলো ঘূর্ণিঝড়, বন্যা, নদী ভাঙ্গন ও প্রাকৃতিক দূর্যোগ কবলিতদের জমি, বাসস্থান, প্রশিক্ষণ, ঋণ প্রদান, স্বাস্থ্যসেবা, পরিবার পরিকল্পনা, ইনকাম জেনারেটিং কার্যক্রম, বিশুদ্ধ খাবার পানীয় সরবরাহ, বিদ্যুৎ সরবরাহসহ বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা প্রদানের মাধ্যমে দারিদ্র্য দূরীকরণ করা।

প্রকল্প বিবরণে বলা হয়, পুনর্বাসিত পরিবারের প্রাপ্ত বয়স্ক সদস্যরা বিভিন্ন বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধির মাধ্যমে ইনকাম-জেনারেটিং কাজে সক্ষমতা অর্জন করতে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করছে। প্রকল্প পরিচালক বলেন, সরকার গৃহহীন জনগণকে আশ্রয় দিয়ে এবং তাদের স্বাবলম্বী করার মাধ্যমে অর্থবহ জীবন দেয়ার প্রকল্প হাতে নিয়েছে। তিনি বলেন, ‘ভিশন ২০২১’ ও টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজিএস) ২০৩০ অর্জন করতে দারিদ্র্য বিমোচনের জন্য প্রকল্প কার্যক্রম ত্বরান্বিত করবে।

উন্নয়ন বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর