• বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ৫ ১৪৩১

  • || ১১ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
শেখ হাসিনার ভারত সফর: আঞ্চলিক ভূ-রাজনীতি নিয়ে আলোচনা হতে পারে ফিলিস্তিনসহ দেশের সুবিধাবঞ্চিত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান আসুন ত্যাগের মহিমায় দেশ ও মানুষের কল্যাণে কাজ করি: প্রধানমন্ত্রী তারেকসহ পলাতক আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে কোরবানির পশু বেচাকেনা এবং ঘরমুখো মানুষের নিরাপত্তার নির্দেশ তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে চীনের কাছে ঋণ চেয়েছি গ্লোবাল ফান্ড, স্টপ টিবি পার্টনারশিপ শেখ হাসিনাকে বিশ্বনেতৃবৃন্দের জোটে চায় শিশুর যথাযথ বিকাশ নিশ্চিতে সকল খাতকে শিশুশ্রমমুক্ত করতে হবে শিশুশ্রম নিরসনে প্রত্যেককে আরো সচেতন হতে হবে : প্রধানমন্ত্রী ব্যবসায়িদের প্রতি নিয়ম নীতি মেনে কার্যক্রম পরিচালনার আহ্বান বিনামূল্যে সরকারি বাড়ি গৃহহীনদের আত্মমর্যাদা এনে দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর জিসিএ লোকাল অ্যাডাপটেশন চ্যাম্পিয়নস অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ আশ্রয়ণের ঘর মানুষের জীবন বদলে দিয়েছে: প্রধানমন্ত্রী ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি তৈরি করে দেব : প্রধানমন্ত্রী নতুন সেনাপ্রধান ওয়াকার-উজ-জামান প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর পাচ্ছে সাড়ে ১৮ হাজার পরিবার শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস আজ শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করলেন সোনিয়া গান্ধী মোদীকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানালেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শেখ হাসিনা-মোদি বৈঠকে দু’দেশের সম্পর্ক আগামীতে আরো দৃঢ় হবে

ভোলা থেকে গ্যাস আনতে সিএনজি বিধিমালা সংশোধন

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ২৫ এপ্রিল ২০২৩  

ভোলা থেকে দেশের অন্যান্য প্রান্তে গ্যাস আনতে সিএনজি বিধিমালা-২০০৫ সংশোধন করলো সরকার। নতুন সংশোধনীতে সিএনজিকে পরিবহনের জ্বালানির পাশাপাশি শিল্পে ব্যবহারের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। গত ১০ এপ্রিল জ্বালানি বিভাগ এক প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে নতুন সংশোধনীটি প্রকাশ করেছে।

এর আগে সিএনজিকে শিল্পের গ্যাস হিসেবে ব্যবহারের অনুমোদন দেওয়ার ক্ষেত্রে সরকারের আপত্তি ছিল। গাজীপুর ও সাভার এলাকার শিল্পগুলো নিজস্ব ব্যবহারের জন্য সিএনজি স্টেশন থেকে গ্যাস সংগ্রহ করতো। কিন্তু একাধিকবার পেট্রোবাংলা এই কাজে বাধা দেয়।

তবে সম্প্রতি সময়ে দেশের একটি বেসরকারি কোম্পানিকে ভোলার গ্যাস আনতে দেওয়ার বিষয়ে সরকারের শীর্ষ পর্যায় থেকে অনুমোদনের পর নীতিমালা সংশোধনের প্রয়োজন পড়ে। আগের নীতিমালায় কেবল সিএনজিকে পরিবহনের জ্বালানি হিসেবে ব্যবহারের অনুমোদন দেওয়া ছিল।

জ্বালানি বিভাগের জারি করা প্রজ্ঞাপনে সিএনজি পরিবহনে বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ইন্ট্রাকোর দেখানো পথেরও বৈধতা দেওয়া হয়েছে। বলা হচ্ছে, গ্যাজকেট (ট্রাকের মধ্যে বিশেষ প্রক্রিয়াকে সাজানো সিলিন্ডার) ব্যবহার করে এই গ্যাস আনা যাবে।

এই পদ্ধতি ব্যবহার করে ২০১৩ সালের দিকে চট্টগ্রাম থেকে কক্সবাজারে সিএনজি পরিবহনের প্রচলন করা হয়। তবে সেখানেও কেবল পরিবহনে ব্যবহারের অনুমোদন ছিল। তবে জটিলতা হলো, এখন দেশের যেসব শিল্পকারখানা এভাবে সিএনজি নিয়ে নিজস্ব কাজে ব্যবহার করে তারাও এই সংশোধনীর ফলে বৈধতা পাবে কি না সেটি স্পষ্ট করা হয়নি।

দেশে ২০০৫ সালে প্রথম সিএনজি বিধিমালা করা হয়। ওই সময় দেশে পরিবহনের জ্বালানি হিসেবে সিএনজি জনপ্রিয়তা পায়। কিন্ত্র ক্রমান্বয়ে দেশে গ্যাসের ঘাটতি তৈরি হলে সিএনজির চাহিদা বেড়ে যায় হয়। সম্প্রতি ভোলার অব্যবহৃত গ্যাস সিএনজি করে আনার উদ্যোগ নেয় সরকার। প্রাথমিকভাবে প্রতিদিন ৫ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস আনা হবে। পর্যায়ক্রমে এটি বাড়ানো হবে।

এজন্য দেশের সিএনজি পাম্প পরিচালনা প্রতিষ্ঠান ইন্ট্রাকোর সঙ্গে পেট্রোবাংলার আলাপে সব ঠিকঠাক করা হচ্ছে। ইন্ট্রাকো নিজ দায়িত্বে গ্যাস এনে তা শিল্প মালিকদের কাছে বিক্রি করবে। পেট্রোবাংলা চেয়ারম্যান জনেন্দ্র নাথ সরকার সম্প্রতি বলেন, আগামী জুনে এই গ্যাস আসতে পারে। তবে এই গ্যাস পরিবহন ও বিক্রির কোনও দায় পেট্রোবাংলার নয়। পেট্রোবাংলা কেবল গ্যাসের দাম নির্ধারণ করে দেবে।

বিধিমালায় গ্যাস পরিবহন, মজুদ, বিতরণ প্রক্রিয়াগুলো অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে।

দেশের কয়েকটি শিল্প প্রতিষ্ঠান ট্রাকে করে গ্যাস নিয়ে শিল্প পরিচালনা করছে। সরকার সেই একই প্রক্রিয়া অনুসরণ করে ভোলা থেকে গ্যাস আনছে। প্রথমে গ্যাস ট্রাকের মধ্যে বিশেষ প্রক্রিয়ায় সংযোজিত সিলিন্ডারে ভর্তি করা হবে। এরপর ফেরিতে তুলে ট্রাকগুলো দিয়ে নৌপথে আনা হবে। এরপর রাস্তা দিয়ে ঢাকায় আনা হবে। গাজীপুরের শিল্প কারখানায় এই গ্যাস বিক্রি করা হবে।