• বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ৪ ১৪৩১

  • || ১১ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
তারেকসহ পলাতক আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে কোরবানির পশু বেচাকেনা এবং ঘরমুখো মানুষের নিরাপত্তার নির্দেশ তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে চীনের কাছে ঋণ চেয়েছি গ্লোবাল ফান্ড, স্টপ টিবি পার্টনারশিপ শেখ হাসিনাকে বিশ্বনেতৃবৃন্দের জোটে চায় শিশুর যথাযথ বিকাশ নিশ্চিতে সকল খাতকে শিশুশ্রমমুক্ত করতে হবে শিশুশ্রম নিরসনে প্রত্যেককে আরো সচেতন হতে হবে : প্রধানমন্ত্রী ব্যবসায়িদের প্রতি নিয়ম নীতি মেনে কার্যক্রম পরিচালনার আহ্বান বিনামূল্যে সরকারি বাড়ি গৃহহীনদের আত্মমর্যাদা এনে দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর জিসিএ লোকাল অ্যাডাপটেশন চ্যাম্পিয়নস অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ আশ্রয়ণের ঘর মানুষের জীবন বদলে দিয়েছে: প্রধানমন্ত্রী ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি তৈরি করে দেব : প্রধানমন্ত্রী নতুন সেনাপ্রধান ওয়াকার-উজ-জামান প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর পাচ্ছে সাড়ে ১৮ হাজার পরিবার শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস আজ শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করলেন সোনিয়া গান্ধী মোদীকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানালেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শেখ হাসিনা-মোদি বৈঠকে দু’দেশের সম্পর্ক আগামীতে আরো দৃঢ় হবে বাংলাদেশ ভুটান থেকে জলবিদ্যুৎ আমদানি করতে আগ্রহী : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা-নরেন্দ্র মোদী সংক্ষিপ্ত শুভেচ্ছা বিনিময় অ্যাক্রেডিটেশন দেশের অর্থনীতিকে সুদৃঢ় করতে সহায়তা করে: রাষ্ট্রপতি

আকাশচুম্বী দাম রুপালি ইলিশের!

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ১৯ মে ২০২৪  

নদীতে মাছের আকাল আর সে কারণে বাজারে আকাশচুম্বী দামে বিক্রি হচ্ছে রুপালি ইলিশ। জাটকা থেকে শুরু করে মাঝারি আকারের ইলিশের দাম যেন ক্রেতাদের নাগালের বাইরে। তবে মেঘনার ইলিশের থেকে কিছুটা কম দামে বিক্রি হচ্ছে সাগরের ইলিশ।

বিক্রেতারা জানিয়েছেন, নদীতে মাছ একেবারে কম ধরা পড়ায় দাম অনেক বেশি।

লক্ষ্মীপুর পৌর শহরের দক্ষিণ তেমুহনী মাছ বাজারটি নদী বা সামুদ্রিক মাছের জন্য বিখ্যাত ছিল। বিশেষ করে মৌসুমে ইলিশ মাছ বিক্রির ধুম লেগে যেত। কিন্তু নদীতে মাছ ধরার নিষেধাজ্ঞা শেষ হওয়ার ১৮ দিন পার হলেও এ বাজারে এখন পর্যন্ত ইলিশের তেমন একটা দেখা মিলছে না।

শনিবার (১৮ মে) রাতে এখানকার বিক্রেতাদের কাছে স্বল্প সংখ্যক মাছ দেখা গেছে। যা আকারেও তেমন বড় নয়।  

ছোট এবং মাঝারি আকারের মাছ ক্রেতাদের কাছে উচ্চ মূল্যে দাম হাঁকাচ্ছেন বিক্রেতারা। এ বাজারে জাটকার মূল্য হাঁকানো হয়েছে সাড়ে ৮শ টাকা কেজি দরে। ৫০০ গ্রাম কিংবা ৫৫০ গ্রাম ওজনের ইলিশের কেজি ১৬০০ টাকা করে। আর ৭০০ থেকে ৮০০ গ্রাম ওজনের ইলিশের কেজি কিনতে হলে গুনতে হবে দুই হাজারের ওপরে।  

মেঘনার রুপালি ইলিশ ক্রয় করার সামর্থ্য যাদের নেই, তারা কম দামে সাগরের ইলিশ কিনছেন। ৩০০ গ্রাম ওজনের সামুদ্রিক ইলিশ বিক্রি হচ্ছে ৫৫০ টাকা কেজিদরে। আর ৫০০ গ্রাম ওজনের ইলিশের কেজি পাওয়া যাচ্ছে ৮০০ টাকার মধ্যে।  

ক্রেতা এবং বিক্রেতারা বলছেন, মেঘনার ইলিশের স্বাদের সঙ্গে সাগরের ইলিশের স্বাদে পার্থক্য রয়েছে। তাই মেঘনার ইলিশের দাম সাগরের ইলিশের থেকেও বেশি।  

ক্রেতা আবদুল হাদি বলেন, বাজারে দুই জাতের ইলিশ পাওয়া যায়। মেঘনা নদীর এবং সাগরের ইলিশ। নদীর ইলিশ চকচকে এবং রুপালি হয়। আর সাগরের ইলিশ হয় একটু লাল বর্ণের। নদীর ইলিশের স্বাদ অনেক বেশি। সে তুলনায় সাগরের ইলিশের স্বাদ কম। ফলে নদীর ইলিশের দাম বেশি, আর সাগরের ইলিশের দাম কম।  

বিক্রেতা শরীফ বলেন, নদীতে যে ইলিশ ধরা পড়ে, সেগুলো কয়েক ঘণ্টার ব্যবধানে জেলেদের কাছ থেকে মাছঘাট হয়ে হাটে চলে আসে। এগুলো বেশিক্ষণ বরফে রাখা লাগে না। কিন্তু সাগরের ইলিশ কয়েকদিন আগের। জেলেরা গভীর সাগরে ইলিশ শিকার করে বরফজাত করে কয়েকদিন রেখে দিয়ে ঘাটে আসে। তাই সেগুলো একটু লালচে বর্ণের হয়ে যায়।  

লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মো. সারোয়ার জামান বলেন, সাগরের পানি লবণাক্ত। তাই সাগরের মাছ স্বাদ কম। কিন্তু ওই মাছ যখন নদীর দিকে চলে আসবে, তখন লবণাক্ততা কমতে থাকবে। সমুদ্রে থাকার সময়ে ইলিশের শরীরে নানা উপাদান থাকে। নদীর মিষ্টি পানিতে ঢোকার সময় শরীর থেকে সেসব উপাদান বের হয়ে চর্বির পরিমাণ বেড়ে যায়। ফলে সাগরের ইলিশের তুলনায় নদীর ইলিশ অনেক বেশি সুস্বাদু হয়।