• সোমবার   ১৭ জানুয়ারি ২০২২ ||

  • মাঘ ৩ ১৪২৮

  • || ১১ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
নৌকায় ভোট দিয়েই রংপুর মঙ্গামুক্ত: প্রধানমন্ত্রী আর যেন কখনও মঙ্গা দেখা না দেয়: প্রধানমন্ত্রী রংপুর এখন উদ্বৃত্ত খাদ্যের অঞ্চল: প্রধানমন্ত্রী রংপুর বিভাগীয় সদর দফতর কমপ্লেক্স ভবন উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী বছরের প্রথম অধিবেশনে ভাষণ দেবেন রাষ্ট্রপতি স্বাস্থ্য বিষয়ক গবেষণা কম হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী ‘গবেষণা লব্ধ জ্ঞানকে দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে কাজে লাগাতে হবে’ টিউলিপ নাম হওয়ায় নেদারল্যান্ডস থেকে কম্পিউটার নেয়নি খালেদা জিয়া ওমিক্রন দ্রুত ছড়াচ্ছে, সর্তক থাকুন: প্রধানমন্ত্রী গবেষণার কোনো বিকল্প নেই: প্রধানমন্ত্রী স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর সমৃদ্ধ দেশে পরিণত করার যে অঙ্গীকার তা আজ বাস্তবায়ন হচ্ছে- প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর ভাষণে নির্দেশিত আদর্শে দেশ পরিচালিত হবে: প্রধানমন্ত্রী দেশের অগ্রযাত্রা যাতে ব্যাহত না হয়: প্রধানমন্ত্রী সমালোচকদের কাছে শেখ হাসিনার পাল্টা প্রশ্ন দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফোটানোটাই আমাদের লক্ষ্য: প্রধানমন্ত্রী ১৩ জানুয়ারি থেকে বিধিনিষেধ ৫০ বছর আগে যেদিন প্রথম দেখা বঙ্গবন্ধু-গান্ধীর ঐ মহামানব আসে ইয়াসির-সোহানের ব্যাটে বাংলাদেশের প্রতিরোধ

পার্বত্য শান্তিচুক্তির ফলে দীর্ঘদিনের সংঘাতের অবসান ঘটে

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ২ ডিসেম্বর ২০২১  

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেছেন, পার্বত্য জেলাগুলোর আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন ও শান্তি প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে ১৯৯৭ সালের ২ ডিসেম্বর সরকারের মাধ্যমে পার্বত্য চট্টগ্রাম-বিষয়ক জাতীয় কমিটি ও পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির মধ্যে এক ঐতিহাসিক চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। এর ফলে পার্বত্য জেলাগুলোতে দীর্ঘদিনের সংঘাতের অবসান ঘটে। সূচিত হয় শান্তির পথচলা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্যোগ শান্তিপূর্ণভাবে বিরোধ নিষ্পত্তির ক্ষেত্রে এই চুক্তি অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে।

বৃহস্পতিবার (২ ডিসেম্বর) পার্বত্য চট্টগ্রাম শান্তিচুক্তি স্বাক্ষরের ২৪ বছরপূর্তি উপলক্ষে দেওয়া বাণীতে তিনি এ কথা বলেন।

শান্তিচুক্তি স্বাক্ষরের ২৪ বছরপূর্তি উপলক্ষে পার্বত্য এলাকার সব অধিবাসীকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়ে রাষ্ট্রপতি বলেন, বাংলাদেশের তিন পার্বত্য জেলা রাঙামাটি, বান্দরবান ও খাগড়াছড়ি নৈসর্গিক সৌন্দর্যের অপার আধার। যুগ যুগ ধরে পাহাড়ে বসবাসরত বিভিন্ন জনগোষ্ঠীর বর্ণিল জীবনাচার, ভাষা, কৃষ্টি ও সংস্কৃতি এ অঞ্চলকে বিশেষভাবে বৈশিষ্ট্যমণ্ডিত করেছে।

তিনি বলেন, পার্বত্য চট্টগ্রাম প্রাকৃতিক সম্পদে সমৃদ্ধ ও উন্নয়নের ক্ষেত্রে অত্যন্ত সম্ভাবনাময় অঞ্চল। শান্তিচুক্তি বাস্তবায়নের ধারাবাহিকতায় গঠিত হয়েছে পার্বত্য চট্টগ্রাম-বিষয়ক মন্ত্রণালয় ও পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদ। শান্তিচুক্তির ফলে পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলের আর্থ-সামাজিক, অবকাঠামো ও সাংস্কৃতিক উন্নয়ন ত্বরান্বিত হচ্ছে। পার্বত্য জেলাগুলোর উন্নয়ন কার্যক্রমকে টেকসই ও বেগবান করতে আমি দলমত নির্বিশেষে সংশ্লিষ্ট সবাইকে আরও নিষ্ঠা ও আন্তরিকতার সঙ্গে দায়িত্বপালনের আহ্বান জানাচ্ছি। পার্বত্য এলাকার উন্নয়ন ও অগ্রগতিতে শান্তিচুক্তি ইতিবাচক ভূমিকা রাখবে- এ প্রত্যাশা করি।