• সোমবার   ১৭ জানুয়ারি ২০২২ ||

  • মাঘ ৩ ১৪২৮

  • || ১১ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
নৌকায় ভোট দিয়েই রংপুর মঙ্গামুক্ত: প্রধানমন্ত্রী আর যেন কখনও মঙ্গা দেখা না দেয়: প্রধানমন্ত্রী রংপুর এখন উদ্বৃত্ত খাদ্যের অঞ্চল: প্রধানমন্ত্রী রংপুর বিভাগীয় সদর দফতর কমপ্লেক্স ভবন উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী বছরের প্রথম অধিবেশনে ভাষণ দেবেন রাষ্ট্রপতি স্বাস্থ্য বিষয়ক গবেষণা কম হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী ‘গবেষণা লব্ধ জ্ঞানকে দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে কাজে লাগাতে হবে’ টিউলিপ নাম হওয়ায় নেদারল্যান্ডস থেকে কম্পিউটার নেয়নি খালেদা জিয়া ওমিক্রন দ্রুত ছড়াচ্ছে, সর্তক থাকুন: প্রধানমন্ত্রী গবেষণার কোনো বিকল্প নেই: প্রধানমন্ত্রী স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর সমৃদ্ধ দেশে পরিণত করার যে অঙ্গীকার তা আজ বাস্তবায়ন হচ্ছে- প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর ভাষণে নির্দেশিত আদর্শে দেশ পরিচালিত হবে: প্রধানমন্ত্রী দেশের অগ্রযাত্রা যাতে ব্যাহত না হয়: প্রধানমন্ত্রী সমালোচকদের কাছে শেখ হাসিনার পাল্টা প্রশ্ন দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফোটানোটাই আমাদের লক্ষ্য: প্রধানমন্ত্রী ১৩ জানুয়ারি থেকে বিধিনিষেধ ৫০ বছর আগে যেদিন প্রথম দেখা বঙ্গবন্ধু-গান্ধীর ঐ মহামানব আসে ইয়াসির-সোহানের ব্যাটে বাংলাদেশের প্রতিরোধ

‘ভারত নিরাপদ না থাকলে বাংলাদেশও অনিরাপদ’

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ৭ ডিসেম্বর ২০২১  

বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে ৫০ বছরের সম্পর্কের ভিত্তিতে আগামী দিনগুলোতে কীভাবে আরও সম্পর্কোন্নয়ন করা যায়—তা নিয়ে ঢাকা সফররত ভারতের পররাষ্ট্র সচিব হর্ষবর্ধন শ্রিংলার সঙ্গে আলোচনা করেছেন পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন। মঙ্গলবার (৭ ডিসেম্বর) ঢাকায় ফরেন সার্ভিস অ্যাকাডেমিতে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন দুই প্রতিবেশী দেশের পররাষ্ট্র সচিব। কোভিড পরিস্থিতি যৌথভাবে মোকাবিলার ওপর জোর দিয়ে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র সচিব বলেন, ‘বাংলাদেশ কখনোই নিরাপদ থাকবে না, যদি ভারত নিরাপদ না থাকে এবং একই কথা ভারতের জন্যও প্রযোজ্য।’

মাসুদ বিন মোমেন সাংবাদিকদের বলেন, ‘ভারতের সঙ্গে বহুমাত্রিক ইস্যু রয়েছে এবং পেন্ডিং ইস্যুগুলো কীভাবে দ্রুত সমাধান করা যায়—তা নিয়ে আলোচনা হয়েছে। সামনের দিনগুলোতে কীভাবে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারবো, তা নিয়েও আলোচনা হয়েছে।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি চলতি বছর মার্চে ঢাকা সফর করেছেন এবং ভারতের রাষ্ট্রপতিও এ মাসেই ঢাকা সফর করবেন। এটি (একই বছরে প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রপতির কোনও দেশে সফর) একটি ‘রেকর্ড’ উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘সোমবার বাংলাদেশ-ভারত মৈত্রী দিবস যৌথভাবে পালন করা হয়েছে। সব মিলিয়ে এখন স্বর্ণযুগ চলছে। সামনের দিনগুলোতে কানেক্টিভিটি, গ্রিন এনার্জি, টেকনোলজিসহ অন্যান্য বিষয় নিয়ে কীভাবে অগ্রসর হতে পারি সেটি নিয়েও আলোচনা হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘শান্তিপূর্ণ সীমান্ত কীভাবে করা যায় এবং বাণিজ্য কীভাবে বাড়ানো যায় সেটি নিয়েও আলোচনা হয়েছে।’

এসময় ভারতের পররাষ্ট্র সচিব হর্ষবর্ধন শ্রীংলা বলেন, ‘আমার সঙ্গে পররাষ্ট্র সচিবের কথা হয়েছে এবং আমি বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে দেখা করবো। এছাড়া আগামীকাল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গেও দেখা করবো।’

শেখ হাসিনার ভারত সফর প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির মার্চ সফরের সময়ে তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন। আমরা ডিপ্লোমেটিক চ্যানেলে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করছি। বর্তমানে চলাচলে বাধা, কোভিড পরিস্থিতি বা ওমিক্রন (আলোচনায়) রয়েছে, তবে আমরা যত তাড়াতাড়ি সম্ভব সফরের জন্য অপেক্ষা করছি।’

তিনি বলেন, ‘ডিসেম্বর মাস অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ, কারণ স্বাধীনতা যুদ্ধে ভারতের সৈন্য ও বাংলাদেশের মুক্তিযোদ্ধারা একসঙ্গে যুদ্ধ করেছেন। এ ধরনের ঘটনা সারা বিশ্বে বিরল ‘

শ্রিংলা বলেন, ‘আমরা আলোচনা করেছি এবং দেখেছি আমাদের মধ্যে তেমন মতবিরোধ নেই। আমরা যেসব বিষয়ে সহযোগিতা করতে পারি; যেমন গ্রিন এনার্জি, ডিজিটাল সহযোগিতাসহ অন্যান্য বিষয়— যা আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কর্মসংস্থানে কাজে আসবে।

কানেক্টিভিটি নিয়ে এরইমধ্যে অনেক ভালো সহযোগিতা হয়েছে উল্লেখ করে তিনি জানান, ইতোমধ্যে ভারতের সঙ্গে পুরনো ছয়টি রেল কানেক্টিভিটির মধ্যে পাঁচটি পুনঃস্থাপন করা হয়েছে এবং আরেকটি সামনের বছর হবে।