• রোববার   ২২ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৭ ১৪২৯

  • || ১৮ শাওয়াল ১৪৪৩

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
রূপপুর মেটাবে বিদ্যুতের চাহিদা, দেবে লাভও দ্রব্যমূল্য নিয়ে ৩ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে নির্দেশ বৈশ্বিক সংকট মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রীর ৪ দফা প্রস্তাব অবিলম্বে বৈশ্বিক সরবরাহ চেইন স্বাভাবিক করার আহ্বান পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র পরিবেশবান্ধব: প্রধানমন্ত্রী খালেদাকে পদ্মায় ফেলতে আর ইউনূসকে চুবিয়ে তুলতে বললেন শেখ হাসিনা কক্সবাজার হবে আন্তর্জাতিক বিমান চলাচলের রিফুয়েলিং পয়েন্ট কক্সবাজারে যত্রতত্র স্থাপনা নির্মাণ না করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রী কক্সবাজারে কউক’র নতুন ভবনের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর টোল নির্ধারণ করে প্রজ্ঞাপন জারি আওয়ামী লীগ সরকার আছে বলেই সবকিছু নিয়ন্ত্রণ করতে পারছে- প্রধানমন্ত্রী ওপেনিংয়ে চতুর্থ সেরা জুটি গড়ে ফিরলেন জয়, তামিমের সেঞ্চুরি নিত্যপণ্যের দাম কেন চড়া, জানালেন প্রধানমন্ত্রী স্বদেশ প্রত্যাবর্তন: শেখ হাসিনা দেশের মানুষের শেষ ভরসাস্থল শেখ হাসিনা বাঙালি জাতির নিরাপদ আশ্রয়স্থল শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন ইতিহাসে মাইলফলক: রাষ্ট্রপতি চার দশকেরও বেশি সময় শেখ হাসিনার সফল নেতৃত্বে আ.লীগ উৎপাদন বাড়ানোর পাশাপাশি খাদ্য সাশ্রয় করুন: প্রধানমন্ত্রী সবাই স্বাধীনভাবে সরকারের সমালোচনা করতে পারে: প্রধানমন্ত্রী টাকা অপচয় করা যাবে না: প্রধানমন্ত্রী

‘ফ্রি ফায়ার গেম’ খেলে মানসিক ভারসাম্যহীন কিশোর

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ১৪ মে ২০২২  

যশোরে ‘ফ্রি ফায়ার গেম’ এ আসক্ত হয়ে তামিম হোসেন (১৭) নামে এক কিশোর মানসিক ভারসাম্যহীন হয়ে পড়েছে। সে ঝিকরগাছা উপজেলার সৈয়দপাড়া গ্রামের সাবুর আলীর ছেলে।

তামিম হোসেনের পরিবার জানায়, দীর্ঘদিন ধরে মোবাইল ফোনে ’ফ্রি ফায়ার গেম’ খেলে আসছিল তামিম। গেমে এতটাই আসক্ত হয়ে পড়ে যে খাওয়া, পড়ালেখাসহ কোনো কিছুতে মন ছিল না তার। অনেক বিধিনিষেধের পরেও তাকে গেম খেলা থেকে বিরত রাখা যাচ্ছিল না।

ধীরে ধীরে মোবাইল গেমে আসক্ত হয়ে মানসিক ভারসাম্যহীন হয়ে পড়ে তামিম হোসেন। মোবাইল কেড়ে নিলেও সে খালি হাতেই গেম খেলার অঙ্গভঙ্গি শুরু করে। এ অবস্থায় তার দু’হাত বেঁধে রাখা শুরু করে পরিবারের লোকজন। এদিকে তামিমের এমন পরিস্থিতিতে চরমভাবে ভেঙে পড়েছেন তার মা-বাবা ও স্বজনরা।

এ বিষয়ে তামিমের বাবা সাবুর আলী বলেন, ‘গেমে আসক্ত শিশু-কিশোরদের খবর শুনেছি। কিন্তু আজ আমার নিজের সন্তান এই গেমে আসক্ত হয়ে মানসিক ভারসাম্যহীন হয়েছে। তাকে স্থানীয়ভাবে এবং জেলা শহরে নিয়ে চিকিৎসক দেখিয়েছি। কোনো ফল পায়নি। তাই উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘সব অভিভাবক, শিশু কিশোর ও সচেতন মহলের কাছে অনুরোধ আপনার আদরের সন্তানের হাতে মোবাইল ফোন দেওয়া থেকে বিরত থাকুন। মোবাইল দিলে সেটার যথাযথ ব্যবহার সম্পর্কে দৈনিক খোঁজখবর নিন। অন্যথায় দেরি হয়ে গেলে আমার সন্তানের মতো সেও মানসিক ভারসাম্যহীন হয়ে যেতে পারে।’