• মঙ্গলবার   ০৫ জুলাই ২০২২ ||

  • আষাঢ় ২১ ১৪২৯

  • || ০৪ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৩

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
বিদ্যুৎ ব্যবহারে সাশ্রয়ী হওয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর প্রতি বর্গফুট গরুর চামড়া ৪৭, খাসি ‌১৮ টাকা নির্ধারণ কাউকে যেন কষ্ট না পেতে হয়: প্রধানমন্ত্রী ভিভিআইপিদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করুন: পিজিআরকে রাষ্ট্রপতি জাতির পিতার সমাধিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা, মোনাজাত পদ্মা সেতুতে সন্তানদের নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সেলফি ‘পদ্মা সেতু ও রপ্তানি আয় জাতির সক্ষমতা প্রমাণ করছে’ টোল দিয়ে পদ্মা সেতুতে উঠলেন প্রধানমন্ত্রী, গাড়ি থামিয়ে উপভোগ করলেন সৌন্দর্য পদ্মা সেতু নির্মাণের সব কৃতিত্ব জনগণের: প্রধানমন্ত্রী সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আন্তরিকতায় দেশকে এগিয়ে নিতে পেরেছি পারিবারিক আদালত আইনের খসড়া অনুমোদন ঈদের আগে পদ্মা সেতুতে মোটরসাইকেল চলছে না ইশতেহারে দেওয়া প্রতিশ্রুতি ভোলেনি সরকার: প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুতে নাশকতার চেষ্টা: আটক ১ সঞ্চয় বাড়ানোর পরামর্শ প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা হচ্ছে নতুন মুদ্রানীতি সব ধরনের অপ্রয়োজনীয় ব্যয় কমাতে হবে: প্রধানমন্ত্রী ৬ লাখ ৭৮ হাজার ৬৪ কোটি টাকার বাজেট পাস হচ্ছে আজ নির্মল রঞ্জন গুহের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক সায়মা ওয়াজেদের মমত্ববোধ

আলতাব আলী পা‌র্কের শহীদ মিনারে গাফফার চৌধুরীর প্রতি শ্রদ্ধা

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ২১ মে ২০২২  

লন্ডনের আলতাব আলী পা‌র্কের শহীদ মিনারে আবদুল গাফফার চৌধুরীর প্রতি শেষ শ্রদ্ধা জানানো হয়েছে। যুক্তরাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা শত শত প্রবাসী আর বাংলাদেশ হাই কমিশনের কর্মকর্তারা তাকে শেষ বিদায় জানান।

যুক্তরাজ্য প্রবাসী এই লেখক, সাংবাদিক, কলামিস্টের মরদেহ শুক্রবার দুপুরে নিয়ে যাওয়া হয় পূর্ব লন্ড‌নের ব্রিক‌ লেইন মস‌জি‌দে। সেখানে জুমার পর জানাজায় অংশ নেয় বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ। গাফফার চৌধুরীর একমাত্র ছেলে অনুপম চৌধুরী বাবার জন্য দোয়া চান সবার কাছে।

জানাজা শেষে গাফফার চৌধুরীর কফিন নেয়া হয় আলতাব আলী পা‌র্কের শহীদ মিনার চত্বরে। সেখানে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশের হাই কমিশনার সাঈদা মুনা তাসনিম। এরপর বি‌ভিন্ন রাজনৈতিক-সামা‌জিক-সাংস্কৃ‌তিক সংগঠ‌ন ও নানা শ্রেণি-পেশার মানুষ ফুল দেন কফিনে।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার সকালে লন্ডনের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয় গাফফার চৌধুরীর। ৮৮ বছরের জীবনে ভাষা আন্দোলন, স্বাধিকারের আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধসহ বাংলাদেশের ইতিহাসের নানা বাঁক বদলের সাক্ষী ছিলেন তিনি।

স্বাধীনতার পর প্রবাস জীবন বেছে নিলেও নিজেকে বিচ্ছিন্ন করেননি বাংলাদেশ থেকে। রাজনৈতিক বিশ্লেষণ আর সমকালীন বিষয় নিয়ে দেশের বিভিন্ন পত্রিকায় কলাম লিখে গেছেন দুই হাতে।

গল্প-কবিতা-উপন্যাস লিখেছেন, সাংবাদিকতা করেছেন, বাংলাদেশে কলাম লেখাকে পেশা হিসেবে নেওয়ার পথ তৈরি করেছেন গাফফার চৌধুরী।