• রোববার   ২৭ নভেম্বর ২০২২ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১৩ ১৪২৯

  • || ০২ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
সূচকের ওঠানামায় পুঁজিবাজারে চলছে লেনদেন দুপুরে সচিবদের নিয়ে বৈঠকে বসছেন প্রধানমন্ত্রী স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনে ডা. মিলনের আত্মত্যাগ নতুন গতি সঞ্চার করে ডা. মিলন এক উজ্জ্বল নক্ষত্র: রাষ্ট্রপতি মিছিল-মিটিংয়ে আপত্তি নেই, মানুষের ওপর হামলায় সহ্য করবো না ‘যারা গ্রেনেড দিয়ে আমাকে হত্যার চেষ্টা করেছে, তাদের সঙ্গে আলোচনা? যারা উন্নয়ন দেখে না, তারা চাইলে চোখের ডাক্তার দেখাতে পারে- প্রধানমন্ত্রী অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে সক্ষম হয়েছি: প্রধানমন্ত্রী যোগাযোগ সম্প্রসারণে বাংলাদেশের সহযোগিতা চায় আমিরাত আ.লীগ স্বাস্থ্য খাতকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দেয়: প্রধানমন্ত্রী যুক্তরাষ্ট্র বঙ্গবন্ধুর খুনিকে লালন-পালন করছে: প্রধানমন্ত্রী সচিব সভায় ১০ নির্দেশনা দেবেন প্রধানমন্ত্রী ব্যাংকে টাকা না থাকার গুজবে চোরেরা সুযোগ নেবে: প্রধানমন্ত্রী ‘রিজার্ভ নিয়ে সমস্যা নেই, সব ব্যাংকে টাকা আছে’ ‘যা চাইবেন তার চেয়ে বেশি দেবো, ওয়াদা দেন নৌকায় ভোট দেবেন’ রক্ত ও হত্যা ছাড়া বিএনপি কিছু দিতে পারেনি : প্রধানমন্ত্রী বিমানবাহিনী এখন অনেক বেশি শক্তিশালী, আধুনিক ও চৌকস: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশের অর্থনীতি এখনও গতিশীল, নিরাপদ: প্রধানমন্ত্রী যশোরে বিমান বাহিনীর কুচকাওয়াজে প্রধানমন্ত্রী আমাদের ছেলে-মেয়েরা একদিন বিশ্বকাপ খেলবে: প্রধানমন্ত্রী

বিনামূল্যে বীজ ও সার পাবেন ১৭ লাখ কৃষক

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ৭ নভেম্বর ২০২২  

আসন্ন রবি মৌসুমে সারা দেশের প্রায় ১৭ লাখ ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষককে বীজ ও সার বিনামূল্যে সরবরাহ করবে সরকার। গম, ভুট্টা, সরিষা, সূর্যমুখী, চিনাবাদাম, সয়াবিন, শীতকালীন পেঁয়াজ, মুগ, মসুর ও খেসারির মতো রবি ফসলের চাষ ও উৎপাদন বাড়াতে এ উদ্যোগ নিয়েছে কৃষি মন্ত্রণালয়। কৃষি মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, রবি ফসল চাষে আগে থেকেই বিনামূল্যে বীজ ও সার সরবরাহ করা হচ্ছে। তবে এ বছর বেশি পরিমাণে সরবরাহ করা হবে। কারণ রবি মৌসুমে যেসব ফসল চাষ হয়, তার সবকটিতে বাংলাদেশের আমদানিনির্ভরতা রয়েছে। সম্প্রতি এসব ফসলের দামও বেড়েছে। এজন্য আমদানি ব্যয়ে কমানো ও স্থানীয় উৎপাদন বাড়াতে এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। গত অর্থবছরের তুলনায় প্রায় ৩০ কোটি টাকা বেশি বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে এ খাতে। পাশাপাশি প্রায় এক লাখ কৃষককে নতুন করে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

কৃষি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব বলাই কৃষ্ণ হাজরা এ বিষয়ে বলেন, চাষ ও উৎপাদন বাড়ানোর লক্ষ্যে এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। চলতি মাসের মধ্যেই এসব বীজ ও সার বিতরণ শেষ করা হবে।

 
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ৬৪ জেলার ১৬ লাখ ৭০ হাজার ৫০০ কৃষক এ সুবিধা পাবেন। এজন্য সরকারের ব্যয় হবে ১৩৭ কোটি টাকা। এর মধ্যে বীজ বাবদ ব্যয় হবে ৮০ কোটি ৮০ লাখ টাকা। আর সার বাবদ ব্যয় হবে ৪৫ কোটি ৭৭ লাখ টাকা। কৃষকদের ডিএপি ও এমওপি সার দেওয়া হবে। এ ছাড়া ১০ কোটি ৩৭ লাখ টাকা ব্যয় হবে পরিবহনসহ অন্যান্য কার্যক্রমে।

তেলজাতীয় ফসলের চাষ বাড়ানোর জন্য যেসব নতুন এলাকার চাষিরা এ ধরনের চাষ করবেন তাদের অগ্রাধিকার দেওয়া হবে।

একজন কৃষক এক বিঘা জমির জন্য ২০ কেজি করে গমবীজ অথবা ২ কেজি হাইব্রিড ভুট্টাবীজ পাবেন। প্রতি বিঘায় এক কেজি করে সরিষাবীজ, এক কেজি করে সূর্যমুখী হাইব্রিড বীজ, ১০ কেজি করে চীনা বাদাম ও ৮ কেজি করে সয়াবিনবীজ দেওয়া হবে। পেঁয়াজ চাষের জন্য এক কেজি করে শীতকালীন পেঁয়াজের বীজ দেওয়া হবে। বিঘাপ্রতি ৫ কেজি মসুর ও মুগ এবং ৮ কেজি খেসারিবীজ দেওয়া হবে।  একটি পরিবার এক ধরনের বীজই পাবেন। গম, সরিষা, সূর্যমুখী,

সয়াবিন ও শীতকালীন পেঁয়াজ চাষের জন্য প্রতি ৫ জনের একটি গ্রুপকে ৫০ কেজির এক বস্তা এমওপি ও এক বস্তা ডিএপি সার দেওয়া হবে। অর্থাৎ চাষিরা বিঘাপ্রতি ১০ কেজি করে এমওপি ও ডিএপি সার পাবেন। আর ভুট্টা চাষের জন্য বিঘাপ্রতি ২০ কেজি ডিএপি ও ১০ কেজি এমওপি সার দেওয়া হবে।

জেলা কৃষি পুনর্বাসন বাস্তবায়ন কমিটির মাধ্যমে এসব বীজ ও সার বিতরণ করা হবে। উপজেলা সদর থেকে এসব বীজ ও সার বিতরণ করা হবে। এসব বীজ বিএডিসি থেকে সংগ্রহ করা হবে। কোনো কারণে বিএডিসি বীজ সরবরাহ করতে না পারলে বীজ উৎপাদন, সংরক্ষণ ও বিতরণ প্রকল্পভুক্ত এসএমই কৃষকের কাছ থেকে সরাসরি সংগ্রহ করা হবে।

সবচেয়ে বেশি বীজ পাবেন দিনাজপুর জেলার কৃষকরা। এই জেলার ৬৫ হাজার ২২০ জন কৃষক এ সুবিধা পাবেন। এ ছাড়া জামালপুর, ময়মনসিংহ, টাঙ্গাইল, নওগাঁ, বগুড়া, সিরাজগঞ্জ, কুড়িগ্রাম, কুষ্টিয়া, রাজবাড়ী, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, রাজশাহী, রংপুর, গাইবান্ধা, নোয়াখালী, ঝিনাইদহ, ফরিদপুর, কিশোরগঞ্জ ও শেরপুর জেলার উল্লেখযোগ্যসংখ্যক কৃষক এ সুবিধা পাবেন।