• বৃহস্পতিবার   ০২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ||

  • মাঘ ২০ ১৪২৯

  • || ১০ রজব ১৪৪৪

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
উন্নত-সমৃদ্ধ দেশ গড়তে কৃষি উন্নয়নের বিকল্প নেই: প্রধানমন্ত্রী ক্রীড়া শিক্ষায় বাস্তবমুখী পদক্ষেপ নিয়েছি: প্রধানমন্ত্রী নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিতে কাজ করছে সরকার: প্রধানমন্ত্রী জনস্বাস্থ্য নিশ্চিতে নিরাপদ ও পুষ্টিকর খাদ্যের বিকল্প নেই জনগণকে বিশ্বাস করি, তারা যদি চায় আমরা থাকবো: প্রধানমন্ত্রী ২০২২-২৩ অর্থবছরে ১০ বিলিয়ন ডলারের বেশি রেমিট্যান্স এসেছে ভাষা-সাহিত্য চর্চাও ডিজিটাল করার পরামর্শ প্রধানমন্ত্রীর রাষ্ট্রপতির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ মানহীন শিক্ষায় উচ্চশিক্ষিত বেকার বাড়ছে: রাষ্ট্রপতি গণতান্ত্রিক ধারাকে বাধাগ্রস্ত করতে চায় এক শ্রেণির বুদ্ধিজীবী মুসলিম উম্মাহকে ফিলিস্তিনের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান দেশের ব্যাপক উন্নয়ন বিবেচনায় নিতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত থাকলেই মানুষের উন্নতি হয়: প্রধানমন্ত্রী আমি জোর করে দেশে ফিরেছিলাম, আ.লীগ পালায় না: শেখ হাসিনা আজ ১১ প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী ১-৭ মার্চ মোবাইলে কল করলেই শোনা যাবে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ পুলিশি সেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিন: প্রধানমন্ত্রী সন্ত্রাস রুখে দিতে প্রশংসনীয় ভূমিকা রেখে যাচ্ছে পুলিশ সারদায় কুচকাওয়াজে প্রধানমন্ত্রীকে অভিবাদন বাংলাদেশ পুলিশ শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষায় নিরলসভাবে কাজ করছে

৪ বিমানবন্দর আইএলএস-২ ক্যাটাগরিতে উন্নীত হচ্ছে

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ২৫ জানুয়ারি ২০২৩  

ঘন কুয়াশার কারণে বাংলাদেশের বিমানবন্দরগুলোয় উড়োজাহাজ ওঠানামায় বিঘ্ন ঘটছে। শীত এলেই এ পরিস্থিতিই যেনো নিয়তি। এ ঘটনায় অনেক সময় ফ্লাইটও বাতিল করতে হয়। এ অবস্থায় সংকট দূর করতে দেশের চার বিমানবন্দরকে ইনেসট্রুমেন্ট ল্যান্ডিং সিস্টেম (আইএলএস) ক্যাটাগরি-২ উন্নীত করার উদ্যোগ নিয়েছে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক)।

মঙ্গলবার (২৪ জানুয়ারি) এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান বেবিচকের চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মো. মফিদুর রহমান।

তিনি বলেন, ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেট ও কক্সবাজার দেশের চারটি বিমানবন্দর আইএলএস ক্যাটাগরি-২-এ উন্নীত করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে সিলেট বিমানবন্দরের কাজ শেষ হয়েছে। চট্টগ্রামের কাজ শেষ হবে আগামী বছরের শেষের দিকে। ঢাকায় শেষ হচ্ছে আগামী তিন মাসের মধ্যে।

তিনি জানান, ইতোমধ্যে যন্ত্রপাতি চলে এসেছে। সেই সঙ্গে অতিরিক্ত কিছু লাইটিং উন্নত করতে হবে। আমরা কাজ শুরু করবো। কক্সবাজারে ইতোমধ্যেই সমুদ্রে রানওয়ে আপগ্রেড করছি আমরা। কক্সবাজার বিমানবন্দরের সম্প্রসারণ শেষ হলে সেখানেও উন্নতি হবে। সিলেটে এখন ক্যালিভেরেশন কাজ বাকি আছে।

এর আগে কসক্যাপ-এসএ-এর ৩০তম স্টিয়ারিং সভা নিয়ে কথা বলেন তিনি। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, কসক্যাপের এ সম্মেলনে মিটিং এ মূলত দেখা হয় কোন দেশ সিকিউরিটি নিয়ে কি ধরণের উদ্যোগ নিয়েছে, তার কতটুকু বাস্তবায়ন হয়েছে। পাশাপাশি, আমরা আমাদের বাজেটিং এবং বার্ষিক কর্মপরিকল্পনা নিয়েও সিদ্ধান্ত নিই এখান থেকে।

মূলত, দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে বেসামরিক বিমান চলাচলের ক্ষেত্রে আঞ্চলিক সহযোগিতা বাড়ানোসহ এভিয়েশন সেফটি ও এয়ারওর্দিনেস সংক্রান্ত কারিগরি বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণে এ সভা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এর উদ্বোধনী দিন ছিল আজ।

সভায় বাংলাদেশ, ভারত, ভুটান, মালদ্বীপ, নেপাল, পাকিস্তান, শ্রীলংকা ও আফগানিস্তান সদস্য রাষ্ট্র হিসেবে অংশ নিয়েছে। সদস্য দেশগুলো ছাড়াও ফেডারেল এভিয়েশন অ্যাডমিনিস্ট্রেশন, ট্রান্সপোর্ট-কানাডা, বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ, ফ্রান্স, বোয়িং, ইএএসএ, আইএটিএ, এফাআলফাসহ অন্যান্য আন্তর্জাতিক সংস্থার প্রতিনিধিরা অংশ নেওয়ার কথা রয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে আন্তর্জাতিক সিভিল এভিয়েশন অর্গানাইজেশনের (আইসিএও) রিজিওনাল ডিরেক্টর (আঞ্চলিক পরিচালক) তাও মা, কসক্যাপ এর চিফ ট্যাকনিক্যাল এডভাইজার (সিটিএ) ক্যাপ্টেন ম্যারি যুব্রিচকিয়ি উপস্থিত ছিলেন।