• সোমবার ২০ মে ২০২৪ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৫ ১৪৩১

  • || ১১ জ্বিলকদ ১৪৪৫

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
চাকরির পেছনে না ছুটে যুবকদের উদ্যোক্তা হওয়ার আহ্বান ‘সামান্য কেমিক্যালের পয়সা বাঁচাতে দেশের সর্বনাশ করবেন না’ ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করে আওয়ামী লীগ দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আজ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আগামীকাল ন্যায়বিচার নিশ্চিত করতে বিচারকদের প্রতি আহ্বান রাষ্ট্রপতির আহতদের চিকিৎসায় আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোর ভূমিকা চান প্রধানমন্ত্রী টেকসই উন্নয়নের জন্য কার্যকর জনসংখ্যা ব্যবস্থাপনা চান প্রধানমন্ত্রী বিএনপি ক্ষমতায় এসে সব কমিউনিটি ক্লিনিক বন্ধ করে দেয় চমক রেখে বিশ্বকাপের দল ঘোষণা করল বাংলাদেশ শেখ হাসিনার তিন গুরুত্বপূর্ণ সফর: প্রস্তুতি নিচ্ছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় হজযাত্রীদের ভিসা অনুমোদনের সময় বাড়ানোর আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর বাংলাদেশ এআইকে স্বাগত জানায় তবে অপব্যবহার রোধে পদক্ষেপ নিতে হবে ছেলেরা কেন কিশোর গ্যাংয়ে জড়াচ্ছে কারণ খুঁজে বের করার নির্দেশ প্রযুক্তিজ্ঞান সম্পন্ন নতুন প্রজন্ম গড়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর এসএসসির ফল প্রকাশ, পাসের হার যত ছাত্রীদের চেয়ে ছাত্ররা পিছিয়ে, কারণ খুঁজতে বললেন প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর কাছে এসএসসির ফল হস্তান্তর জলাধার ঠিক রেখে স্থাপনা নির্মাণে প্রকৌশলীদের আহ্বান প্রধানমন্ত্রী দেশের উন্নয়ন ত্বরান্বিত করতে টেকসই কৌশল উদ্ভাবনের আহ্বান

জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে সৃষ্ট চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় কাজ করছে বাংলাদেশ

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২৩  

আজ বিশ্ব মেরিটাইম দিবস। বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও দিবসটি পালিত হচ্ছে। এ উপলক্ষ্যে রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন বাণী দিয়েছেন। তিনি ‘এমএআরপিওএল অ্যাট ৫০-আওয়ার কমিটমেন্ট গো অন’– এই প্রতিপাদ্য নিয়ে পালিত দিবসটির সব কর্মসূচির সাফল্য কামনা করেন।

এমএআরপিওএল মানে ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন ফর প্রিভেনশন অব পোল্যুশন ফ্রম শিপ, যা ১৯৭৩ সালে ইন্টারন্যাশনাল মেরিটাইম অর্গানাইজেশন (আইএমও) দ্বারা গৃহীত ও ১৯৭৮ সালে কার্যকর হয়।

রাষ্ট্রপতি তার বাণীতে প্রতিপাদ্যের সঙ্গে দিবসটি উদযাপনের জন্য জাহাজ শিল্প সংশ্লিষ্ট সম্প্রদায়, কর্তৃপক্ষ ও সংস্থাসহ সবাইকে আন্তরিক শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। রাষ্ট্রপতি তার বাণীতে বিশ্বের অন্যান্য আইএমও সদস্য দেশগুলোর সঙ্গে বাংলাদেশ ‘বিশ্ব মেরিটাইম দিবস ২০২৩’ উদযাপন করছে জেনে সন্তোষ প্রকাশ করেন।

সামুদ্রিক শিল্প আন্তর্জাতিক ব্যবসা-বাণিজ্যের কেন্দ্রবিন্দুতে রয়েছে উল্লেখ করে সাহাবুদ্দিন বলেন, বিশ্বব্যাপী খাদ্য, চিকিৎসা সামগ্রী, জ্বালানি, কাঁচামাল ও উৎপাদিত পণ্যসহ মোট বাণিজ্যের ৯০ শতাংশেরও বেশি পরিবহনের জন্য শিপিংয়ের ওপর নির্ভর করে।

রাষ্ট্রপতি বলেন, এই ব্যাপক অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড পরিচালনা বা দুর্ঘটনাজনিত কারণে জাহাজের মাধ্যমে সামুদ্রিক পরিবেশ দূষণের ঝুঁকি বাড়ায়।

তিনি আরও বলেন, প্রতিষ্ঠার পর থেকে এমএআরপিওএল (জাহাজ থেকে দূষণ প্রতিরোধের জন্য ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন) পরিবেশগত দায়িত্বের আলোকবর্তিকা হিসেবে কাজ করেছে। পাশাপাশি এটি সামুদ্রিক দেশগুলোকে পরিচ্ছন্ন সমুদ্র ও আরও টেকসই ভবিষ্যতের দিকে পরিচালিত করছে।

মো. সাহাবুদ্দিন বলেন, এমএআরপিওএলের সুবর্ণজয়ন্তীতে ‘এমএআরপিওএল অ্যাট ৫০-আওয়ার কমিটমেন্ট গো অন’ থিমটি সময়োপযোগী, যা অবশেষে সামুদ্রিক দূষণ রোধ ও সামুদ্রিক পরিবেশ সংরক্ষণে জাতির নিবেদনেরই সারসংক্ষেপ।

তিনি আরও বলেন, ‘একটি সমৃদ্ধ সামুদ্রিক ঐতিহ্যে ঋদ্ধ বাংলাদেশ একটি দূষণমুক্ত সামুদ্রিক পরিবেশ ও আমাদের জনগণের কল্যাণের মধ্যে সংযোগকে দৃঢ়ভাবে স্বীকৃতি দেয়।’

রাষ্ট্রপতি বলেন, বাংলাদেশ গর্বিতভাবে সেসব দেশের মধ্যে দাঁড়িয়ে আছে, যারা এমএআরপিওএল’র নীতিগুলোকে গ্রহণ করেছে এবং বৃহত্তর মঙ্গলের জন্য বাস্তবসম্মতভাবে তাদের বাস্তবায়ন করেছে।

মো. সাহাবুদ্দিন বলেন, ‘বছরের পর বছর ধরে আমরা কনভেনশন অনুযায়ী নিয়মনীতিগুলো মেনে চলার মাধ্যমে পরিষ্কার বাতাস, পরিষ্কার পানি ও সামুদ্রিক আবর্জনা হ্রাস করার দিকে অগ্রসর হয়েছি।’

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ আরও টেকসই সামুদ্রিক ভবিষ্যৎ গড়ে তোলার জন্য সামুদ্রিক দূষণ ও জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে সৃষ্ট চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় কাজ করছে।’

রাষ্ট্রপতি আরও বলেন, সরকার সমুদ্র খাতের উন্নয়নের সুবিধার্থে বন্দরের সক্ষমতা ও অন্যান্য অবকাঠামো সম্প্রসারণ করছে।

মো. সাহাবুদ্দিন আশা প্রকাশ করেন, সব কর্তৃপক্ষ এবং স্টেকহোল্ডাররা নির্গমন হ্রাস, বর্জ্য হ্রাস ও পরিবেশবান্ধব সামুদ্রিক পরিবেশ সংরক্ষণের হাতিয়ার হিসেবে উদ্ভাবন এবং প্রযুক্তি গ্রহণ করবে।