• সোমবার ১৭ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ২ ১৪৩১

  • || ০৯ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
তারেকসহ পলাতক আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে কোরবানির পশু বেচাকেনা এবং ঘরমুখো মানুষের নিরাপত্তার নির্দেশ তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে চীনের কাছে ঋণ চেয়েছি গ্লোবাল ফান্ড, স্টপ টিবি পার্টনারশিপ শেখ হাসিনাকে বিশ্বনেতৃবৃন্দের জোটে চায় শিশুর যথাযথ বিকাশ নিশ্চিতে সকল খাতকে শিশুশ্রমমুক্ত করতে হবে শিশুশ্রম নিরসনে প্রত্যেককে আরো সচেতন হতে হবে : প্রধানমন্ত্রী ব্যবসায়িদের প্রতি নিয়ম নীতি মেনে কার্যক্রম পরিচালনার আহ্বান বিনামূল্যে সরকারি বাড়ি গৃহহীনদের আত্মমর্যাদা এনে দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর জিসিএ লোকাল অ্যাডাপটেশন চ্যাম্পিয়নস অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ আশ্রয়ণের ঘর মানুষের জীবন বদলে দিয়েছে: প্রধানমন্ত্রী ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি তৈরি করে দেব : প্রধানমন্ত্রী নতুন সেনাপ্রধান ওয়াকার-উজ-জামান প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর পাচ্ছে সাড়ে ১৮ হাজার পরিবার শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস আজ শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করলেন সোনিয়া গান্ধী মোদীকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানালেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শেখ হাসিনা-মোদি বৈঠকে দু’দেশের সম্পর্ক আগামীতে আরো দৃঢ় হবে বাংলাদেশ ভুটান থেকে জলবিদ্যুৎ আমদানি করতে আগ্রহী : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা-নরেন্দ্র মোদী সংক্ষিপ্ত শুভেচ্ছা বিনিময় অ্যাক্রেডিটেশন দেশের অর্থনীতিকে সুদৃঢ় করতে সহায়তা করে: রাষ্ট্রপতি

গণপরিবহনে বৈদ্যুতিক গাড়ি

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২৩  

রাজধানীতে পরিবেশ সহায়ক গণপরিবহন ব্যবস্থা গড়ে তুলতে একটি বিশেষ প্রকল্প হাতে নিয়েছে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ। টেকসই জ্বালানিভিত্তিক পরিবহনে বৈদ্যুতিক গাড়ির ব্যবহার (বিইইভিএ) নামে প্রকল্পটিতে আর্থিক ও কারিগরি সহায়তা দিচ্ছে বৈশ্বিক পরিবেশ সহায়তা-সংক্রান্ত তহবিল গ্লোবাল এনভায়রনমেন্ট ফ্যাসিলিটি (জিএএফ) এবং জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচি (ইউএনডিপি)।

এর অংশ হিসেবে আগামী মাসে রাজধানীতে কিছু বৈদ্যুতিক বাস নামতে পারে বলে জানিয়েছেন পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব এ বি এম আমিন উল্লাহ নুরী। তবে কোনো কারণে এ সময় আরেকটু পেছাতে পারে বলেও জানান তিনি। জানা গেছে, বিইইভিএ প্রকল্পের আওতায় শুরুতে ৫০ আসনের ২০টি ইলেকট্রিক বাস যুক্ত হবে রাজধানীর গণপরিবহনে। বিআরটিসির অধীনে এসব বাস চার্জের জন্য নির্মাণ করা হবে চারটি চার্জিং স্টেশন। এ ছাড়া দুই ও তিন চাকার পরিবহনের চার্জের জন্য তিনটি সোলার চার্জার স্টেশন নির্মাণ করা হবে। পরিত্যক্ত এসিড লেড ব্যাটারিকে পুনর্ব্যবহারযোগ্য করে তুলতে নির্মাণ করা হবে একটি প্লান্ট। প্রযুক্তিনির্ভর এসব কাজে যাতে কোনো ধরনের দুর্বলতা না থাকে, সে জন্য সংশ্লিষ্ট ৬০০ জনকে দেশে-বিদেশে নিবিড় প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে।

দ্রুতই প্রকল্পটির কাজ শুরু করতে চায় সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ। সূত্র বলছে, জরুরি ভিত্তিতে প্রকল্পটির অনুমোদন প্রক্রিয়ার উদ্যোগ নিতে পরিকল্পনা কমিশনকে অনুরোধ জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ। অর্থ সংস্থানের নিশ্চয়তার বিষয়ে পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব এ বি এম আমিন উল্লাহ নুরীর একটি প্রত্যয়নপত্র যুক্ত করা হয় প্রকল্প প্রস্তাবে। এতে সচিব বলেন, চলতি অর্থবছরের এডিপিতে পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের জন্য ৩৪ হাজার ৬২ কোটি টাকা বরাদ্দ আছে। এই বরাদ্দ থেকে প্রস্তাবিত প্রকল্পটির জন্য অর্থের সংস্থান করা যাবে।

এ বিষয়ে আমিন উল্লাহ নুরী বলেন, ‘নগর পরিবহন উন্নত করার জন্য ২০৩০ সালের মধ্যে প্রচলিত জ্বালানির পরিবহন তুলে নেওয়ার পরিকল্পনা করা হয়েছে। এর অংশ হিসেবে নেওয়া হয়েছে এ-সংক্রান্ত তিনটি প্রকল্প। তার একটি হচ্ছে বিইইভিএ। এর বাইরে কোরিয়া ও ভারতের লাইন অব ক্রেডিটের (এলওসির) আওতায় আরও দুটি প্রকল্প রয়েছে। এলওসির আওতায় আগামী মাসেই রাজধানীতে কিছু বৈদ্যুতিক বাস নামার কথা। তবে কোনো কারণে আরও কিছুটা সময় লাগতে পারে।

পরিকল্পনা কমিশন সূত্রে জানা গেছে, বিইইভিএ প্রকল্পটি চলতি অর্থবছরের এডিপিতে নতুন অননুমোদিত প্রকল্পের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত নেই। তবে এ-সংক্রান্ত সরকারি নির্দেশিকা অনুযায়ী বিশেষ প্রয়োজনে এডিপিতে প্রকল্প অন্তর্ভুক্ত করার সুযোগ রয়েছে। এর জন্য আন্তঃমন্ত্রণালয়ের প্রোগ্রামিং কমিটির বিশেষ সভার সিদ্ধান্ত এবং পরিকল্পনামন্ত্রী বা প্রতিমন্ত্রীর অনুমোদন নিতে হয়। সে পথে এগোতে পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগকে পরামর্শ দিয়েছে কমিশনের সংশ্লিষ্ট ভৌত অবকাঠামো বিভাগ।

সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগ সূত্র জানায়, গত ১ আগস্ট তাদের বৈদেশিক সহায়তা শাখা থেকে প্রকল্পটির টেকনিক্যাল অ্যাসিস্ট্যান্স প্রজেক্ট প্রপোজাল (টিএপিপি) পাঠানো হয় পরিকল্পনা কমিশনে। গেল সপ্তাহে এ প্রস্তাবের ওপর পর্যালোচনা বৈঠক হয়েছে। এতে কমিশন প্রাথমিক পর্যবেক্ষণে কিছু ব্যয়ে আপত্তি তুলেছে। যেমন ছোট এ প্রকল্পটির জন্য আলাদা করে অফিস ফার্নিচার কেনা এবং সাজসজ্জা বাবদ ব্যয় ধরা হয়েছে ১ কোটি ৮৪ লাখ টাকা। কম্পিউটার ও অন্যান্য ডিভাইস বাবদ ২ কোটি ২৮ লাখ টাকা ব্যয় প্রস্তাব করা হয়। পরিবহন ভাড়া বাবদ প্রস্তাব করা হয় ৩ কোটি ৬০ লাখ টাকার মতো। এ ছাড়া যৌথ পরামর্শক বাবদ ৩ কোটি ৬০ লাখ টাকা ব্যয় প্রস্তাব করা হয়েছে। তবে কারিগরি প্রশিক্ষণের প্রয়োজন থাকায় বড় ব্যয়ের বিদেশি প্রশিক্ষণে আপত্তি দেয়নি কমিশন। এ বাবদ ৪ কোটি ৫৯ লাখ টাকা ব্যয়ের প্রস্তাব করা হয়েছে।

প্রকল্পের ব্যয় খুব বেশি নয়, মাত্র ২২ কোটি টাকা। এর মধ্যে অনুদান হিসেবে ১৯ কোটি ৩৯ লাখ টাকা দিচ্ছে জিএএফ ও ইউএনডিপি। বাকি আড়াই কোটি টাকার কিছু বেশি সরকারের নিজস্ব জোগান। বিআরটিসি ও বিআরটিএ যৌথভাবে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে। প্রকল্পটি বাস্তবায়নের জন্য একনেকের অনুমোদনের প্রয়োজন নেই। কারণ, ৫০ কোটি টাকার কম ব্যয়ের প্রকল্প হিসেবে পরিকল্পনামন্ত্রী নিজের এখতিয়ারেই এটির অনুমোদন দিতে পারবেন।