• শনিবার   ২৯ জানুয়ারি ২০২২ ||

  • মাঘ ১৬ ১৪২৮

  • || ২৪ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
লবিস্ট নিয়োগের অর্থ বিএনপি কোথায় পেল ব্যাখ্যা দিতে হবে ‘সংস্কৃতি চর্চার মাধ্যমে মানুষের হৃদয়ের কাছাকাছি পৌঁছানো যায়’ জাতির পিতাকে হত্যার পর প্রতিবাদ করেছেন কবিরা: প্রধানমন্ত্রী নির্বাচন কমিশন বিল সংসদে পাস দেশে এক বছরে প্রায় পৌনে ১৬ কোটি ডোজ টিকাদান সমৃদ্ধ অঞ্চল গড়তে ভারতের সাথে কাজ করবে বাংলাদেশ ৭ লাখ ৪১ হাজার বুস্টার ডোজ দেওয়া হয়েছে: সংসদে প্রধানমন্ত্রী টিকা আবিষ্কারের আগেই সংগ্রহের উদ্যোগ নিয়েছিলাম: প্রধানমন্ত্রী আমদানি-রপ্তানিতে কাস্টমস গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে: রাষ্ট্রপতি ব্যবসায়ীদের উন্নত ডিজিটাল সেবা দেওয়ার উদ্যোগ নিয়েছে সরকার প্রজাতন্ত্র দিবসে মোদীকে শুভেচ্ছা জানালেন শেখ হাসিনা পুলিশের সেবা প্রার্থীরা যেন হয়রানির শিকার না হয়: রাষ্ট্রপতি বারবার প্রকল্প সংশোধনে বিরক্তি প্রকাশ প্রধানমন্ত্রীর দেশীয় উদ্যোক্তারা বিদেশে সার কারখানা নির্মাণে বিনিয়োগ করতে পারবে গণঅভ্যুত্থানের চেতনায় সমৃদ্ধ দেশ গঠনের আহ্বান রাষ্ট্রপতির করোনায় ভয়াবহ কিছু হবে না: অর্থমন্ত্রী শহীদ আসাদ গণতন্ত্রপ্রেমী মানুষের মাঝে স্মরণীয় হয়ে থাকবেন গণতন্ত্রের ইতিহাসে শহীদ আসাদ দিবস একটি অবিস্মরণীয় দিন ‘বাংলাদেশকে আর কেউ অবহেলা করতে পারবে না’ সার্বভৌমত্বের ওপর আঘাত এলে চুপ থাকবে না বাংলাদেশ: প্রধানমন্ত্রী

শিক্ষকতার আড়ালে জঙ্গি কার্যক্রম চালাতেন হাফেজ ওয়াহিদুল

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ১৩ জানুয়ারি ২০২২  

নিষিদ্ধঘোষিত জঙ্গি সংগঠন জেএমবির দিনাজপুর ও নীলফামারী জেলার দাওয়াহ শাখার অন্যতম প্রধান হাফেজ মো.ওয়াহিদুল ইসলামকে (৩৮) গ্রেফতার করেছে পুলিশের এন্টি টেরোরিজম ইউনিট-এটিইউ। বুধবার (১২ জানুয়ারি) দিবাগত রাতে রাজধানীর গাবতলী আরিচা হাইওয়ে এসএস ফিলিং স্টেশনের সামনে থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

এটিইউ এর মিডিয়া অ্যান্ড অ্যাওয়ারনেস শাখার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আসলাম খান সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

আসলাম খান বলেন, ‘গ্রেফতার ওয়াহিদুল ইসলাম দিনাজপুরের খানসামা থানার মণ্ডলের বাজার কুমুরিয়া হাফিজিয়া মাদ্রাসার হেফজখানার হাফেজ শিক্ষক। শিক্ষকতার আড়ালে তিনি দিনাজপুর ও নীলফামারী জেলার জেএমবির দাওয়াহ শাখার অন্যতম প্রধান হিসেবে সাংগঠনিক কাজকর্ম পরিচালনা করে আসছিলেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘২০২১ সালের ১১ ডিসেম্বর নীলফামারী জেলার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে জেএমবির ৩ সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়। পরে নীলফামারীর সদর থানার মামলায় আদালতে সোপর্দ করা হয়। মূলত এই তিন জনকে জিজ্ঞাসাবাদের পর পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতেই রাজধানী ঢাকা থেকে দেওয়া শাখার অন্যতম প্রধানকে আমরা গ্রেফতার করতে সক্ষম হই। এ সময় এলাকার অন্যান্য সক্রিয় জেএমবি সদস্যরা ঢাকা এবং চট্টগ্রামে বিভিন্ন এলাকায় আত্মগোপনে চলে যায়।’