• শনিবার ১৩ জুলাই ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ২৯ ১৪৩১

  • || ০৫ মুহররম ১৪৪৬

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
টেকসই উন্নয়নে পরিকল্পিত ও দক্ষ জনসংখ্যার গুরুত্ব অপরিসীম বাংলাদেশে আরো বিনিয়োগ করতে চায় চীন: শি জিনপিং চীন সফর শেষে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী চীন সফর সংক্ষিপ্ত করে আজ দেশে ফিরছেন প্রধানমন্ত্রী ঢাকা-বেইজিং ৭ ঘোষণাপত্র, ২১ চুক্তি সই চীনের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে শেখ হাসিনা রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনে চীনের প্রতি সহযোগিতার আহ্বান বাংলাদেশে বিনিয়োগের এখনই উপযুক্ত সময় তিয়েনআনমেন স্কয়ারে চীনা বিপ্লবীদের প্রতি শেখ হাসিনার শ্রদ্ধা চীন-বাংলাদেশ হাত মেলালে বিশাল কিছু অর্জন সম্ভব: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশে বিনিয়োগের এখনই সময়: চীনা ব্যবসায়ীদের প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী বেইজিং পৌঁছেছেন, শি জিংপিংয়ের সঙ্গে বৈঠক আজ দ্বিপক্ষীয় সফরে চীনের পথে প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী চীন সফরে যাচ্ছেন আজ সর্বজনীন পেনশনে যুক্ত হতে নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান শেখ হাসিনার পড়াশোনা নষ্ট করে কোটাবিরোধী আন্দোলনের কোনো যৌক্তিকতা নেই পিজিআরকে ‘চেইন অব কমান্ডে’র প্রতি আস্থাশীল থেকে অর্পিত দায়িত্ব সুষ্ঠুভাবে পালনের নির্দেশ রাষ্ট্রপতির টেকসই উন্নয়ন ত্বরান্বিতে কৃষি ও কৃষকের উন্নয়ন নিশ্চিত করতে হবে সরকারের কৃষিবান্ধব নীতির ফলে টেকসই কৃষি প্রবৃদ্ধি নিশ্চিত হয়েছে এমডি পদের জন্য এত লালায়িত কেন, কী মধু আছে: প্রধানমন্ত্রী

স্বপ্নজয়ের দুই বছর, পদ্মা সেতুতে ১৭শ’ কোটি টাকার রাজস্ব আদায়

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ২৫ জুন ২০২৪  

স্বপ্নজয়ের দুই বছর আজ। ২০২২ সালের এ দিনেই পদ্মা সেতুর উদ্বোধন হয়। এতে দেশের যোগাযোগ ব্যবস্থা বিশেষ উচ্চতায় পৌঁছে যায়। এখন সড়কপথের সঙ্গে রেলপথেও নিয়মিত চলছে ট্রেন। তাই দক্ষিণের জনপদে চলছে অর্থনৈতিক বিপ্লব। এরই মধ্যে সেতু থেকে প্রায় ১৭শ' কোটি টাকা রাজস্ব আদায় হয়েছে। পদ্মা সেতু দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলকে রাজধানী ঢাকার সঙ্গে একই সুতোয় বেঁধেছে। দক্ষিণা দুয়ার খুলে যাওয়ায় যুগান্তকারী অধ্যায় রচিত হয়েছে। দক্ষিণের জনপদে যার ইতিবাচক প্রভাব পড়েছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০২২ সালের এদিন পদ্মা সেতুর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। আর ২০২৩ সালের ১০ অক্টোবর উদ্বোধন করেন পদ্মা সেতুর রেলপথ। এখন দিনরাত সড়কপথে বাসের সঙ্গে সেতুর নিচের রেলপথে ট্রেন চলছে। আর চলতি বছরেই নতুন রুটে যশোর পর্যন্ত ট্রেন চালু হচ্ছে। ট্রান্স এশিয়া নেটওয়ার্কের সঙ্গে যুক্ত হতে চলেছে পদ্মা সেতু।

দক্ষিণে উৎপাদিত কৃষিপণ্য বাজারজাত ছাড়াও শিল্প-কারখানা, ব্যবসা-বাণিজ্য এবং আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নয়নসহ সব ক্ষেত্রেই বড় পরিবর্তন এসেছে, যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে অনেক বেশি।

সেতু ব্যবহারকারীরা বলেন, ‘পদ্মা সেতুর জন্য যোগাযোগ ব্যবস্থা অনেক সহজ হয়ে গেছে। এছাড়া দক্ষিণাঞ্চলের জীবনমান বদলে যেতে শুরু করেছে। আমরা আশা করি, এই জনপদ আরও উন্নত ও সমৃদ্ধ হবে। 

সড়ক ও রেলপথ ছাড়াও পদ্মা সেতু প্রকল্পের আওতায় নদী দিয়ে হাই ভোল্টেজ জাতীয় গ্রিড লাইন স্থাপনে রামপাল ও পায়রার বিদ্যুৎ রাজধানীতে যুক্ত হয়েছে। আর নিরবচ্ছিন্ন যোগাযোগ নতুন নতুন সাফল্য বয়ে আনছে।

সেতু সচিব মো. মঞ্জুর হোসন বলেন, পদ্মা সেতু প্রকল্পের কাজ শেষ হলেও মেইনটেন্যান্সের কাজ চলমান থাকবে। প্রধানমন্ত্রীর স্বপ্ন বাস্তবায়নে আমরা কাজ করতে পেরেছি। আর জনগণ উপকৃত হলেই আমাদের সবচেয়ে বড় পাওয়া হবে বলে মনে করি।

উল্লেখ্য, পদ্মা সেতু চালুর দুই বছরে প্রায় ১ কোটি ২৫ লাখ যান পারাপার হয়। এতে প্রায় ১৭শ’ কোটি রাজস্ব আদায় হয়েছে।