• বুধবার ২৪ জুলাই ২০২৪ ||

  • শ্রাবণ ৯ ১৪৩১

  • || ১৬ মুহররম ১৪৪৬

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
তিন দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে ২১ জুলাই স্পেন যাবেন প্রধানমন্ত্রী আমার বিশ্বাস শিক্ষার্থীরা আদালতে ন্যায়বিচারই পাবে: প্রধানমন্ত্রী কোটা সংস্কার আন্দোলনে প্রাণহানি ঘটনার বিচার বিভাগীয় তদন্ত করা হবে মুক্তিযোদ্ধাদের সর্বোচ্চ সম্মান দেখাতে হবে : প্রধানমন্ত্রী পবিত্র আশুরা মুসলিম উম্মার জন্য তাৎপর্যময় ও শোকের দিন আশুরার মর্মবাণী ধারণ করে সমাজে সত্য ও ন্যায় প্রতিষ্ঠার আহ্বান মুসলিম সম্প্রদায়ের উচিত গাজায় গণহত্যার বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হওয়া নিজেদের রাজাকার বলতে তাদের লজ্জাও করে না : প্রধানমন্ত্রী দুঃখ লাগছে, রোকেয়া হলের ছাত্রীরাও বলে তারা রাজাকার শেখ হাসিনার কারাবন্দি দিবস আজ ‘চীন কিছু দেয়নি, ভারতের সঙ্গে গোলামি চুক্তি’ বলা মানসিক অসুস্থতা দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযান সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করে না দেশের অর্থনীতি এখন যথেষ্ট শক্তিশালী : প্রধানমন্ত্রী আওয়ামী লীগ সরকার ব্যবসাবান্ধব সরকার ফুটবলের উন্নয়নে সহযোগিতা অব্যাহত রাখবে সরকার যথাযথ প্রশিক্ষণের মাধ্যমে বিশ্বমানের খেলোয়াড় তৈরি করুন চীন সফর নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে আসছেন প্রধানমন্ত্রী টেকসই উন্নয়নে পরিকল্পিত ও দক্ষ জনসংখ্যার গুরুত্ব অপরিসীম বাংলাদেশে আরো বিনিয়োগ করতে চায় চীন: শি জিনপিং চীন সফর শেষে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী

খুলবে যোগাযোগের নতুন দুয়ার

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ২৯ মে ২০২৩  

শেরপুর-ময়মনসিংহ ৬৯ কিলোমিটার মহাসড়কটি দীর্ঘদিন সরু ও ভাঙাচোরা ছিল। রেল, নদীপথ না থাকায় এ এলাকার মানুষের জন্য সড়কটি ময়মনসিংহ ও ঢাকা যাওয়ার একমাত্র মাধ্যম। রাস্তাটি সরু ও ভাঙাচোরা হওয়ায় যানজট ও ধীরগতিতে যাতায়াত করতে হয়। প্রায়ই ঘটে দুর্ঘটনা। বর্তমানে মহাসড়কটির প্রস্থ ১৮ ফুট থেকে বাড়িয়ে ৩৮ ফুট করার কাজ শেষ পর্যায়ে। কাজ পুরোপুরি সম্পন্ন হলে এ অঞ্চলে যোগাযোগের নতুন দুয়ার খুলবে। শেরপুর ও ময়মনসিংহ সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগের তত্ত্বাবধানে দুই বছর ধরে চলছে এই সড়কের কাজ। আগামী জুনের শেষ দিকে সড়কটি উদ্বোধন করা হবে বলে শোনা যাচ্ছে। মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই সড়কটি সরকারকে বুঝিয়ে দিতে রাতদিন কাজ করছে সড়ক বিভাগ। এ মহাসড়কের প্রস্থ দ্বিগুণ করার কাজ সম্পন্ন হলে এক ঘণ্টায় শেরপুর থেকে ময়মনসিংহে যাওয়া যাবে।

সড়ক ও জনপথ বিভাগ সূত্রে জানা যায়, ৬৯ কিলোমিটার সড়ক করতে সরকারের ব্যয় হবে প্রায় ৮০০ কোটি টাকা। এর মধ্যে শেরপুর থানা মোড় থেকে নকলা উপজেলার (শেরপুর অংশ) সীমান্ত বাঁশহাটি পর্যন্ত ৩০ কিলোমিটারে ৩০০ কোটি এবং ময়মনসিংহ সড়ক বিভাগ বাঁশহাটি ফুলপুর থেকে ময়মনসিংহ চীন বাংলাদেশ মৈত্রী ব্রিজ পর্যন্ত ৩৯ কিলোমিটারে খরচ হবে ৫০০ কোটি। শেরপুর ও ময়মনসিংহ এই দুই অংশের কাজ নির্ধারিত সময়ে শেষ করতে সওজ বিভাগ কঠোর ছিল। কাজ চলাকালে গভীর রাতেও ঠিকাদারের সঙ্গে সড়ক বিভাগের শীর্ষ কর্তারা দেখভাল করেছেন।

গাড়ি চালকরা জানিয়েছেন, এই গুরুত্বপূর্ণ সড়ক নির্মাণকালে অনেক বিড়ম্বনা সইতে হয়েছে। এখন মজা পাচ্ছি। কমেছে সড়ক দুর্ঘটনা। কাজ শেষ হলে শেরপুর- ময়মনসিংহে আসা-যাওয়া খুব সহজ হবে। একদিকে সময় কম লাগবে আবার গাড়ির ভাড়াও কমবে। নির্মাণাধীন সড়কটি যোগাযোগে গতি আনবে। সাধারণ মানুষ জেলায় যোগাযোগের এই উন্নয়নে সরকারের প্রশংসা করছেন। তবে রাস্তায় ডিভাইডার না থাকাকে একটি অসম্পূর্ণতা বলে মনে করছেন যাতায়াতকারীরা। এই উন্নয়নে অসংখ্য গাছ কাটা পড়েছে। পরিবেশবিদদের দাবি, রাস্তার দুই পাশে সরকারি ব্যবস্থাপনায় বৃক্ষ রোপণ করা হোক এখনই।

শেরপুর-ময়মনসিংহ সড়কের (একাংশ) ঠিকাদার মাসুদ হাইটেক ইঞ্জিনিয়ারিং লির স্বত্বাধিকারী মাসুদ রানা বলেন, কাজ শেষ হওয়ার পথে। নির্ধারিত সময়ের আগেই হস্তান্তর করা হবে। শেরপুর সড়ক ও জনপথের নির্বাহী প্রকৌশলী মনিরুজ্জামান জানান, রাস্তাটি নিঃসন্দেহে এ এলাকার মানুষের জন্য মাইলফলক। সরকার চাইলে আসছে জুনেই সড়কটি উদ্বোধন করতে পারে।