• মঙ্গলবার ২৩ এপ্রিল ২০২৪ ||

  • বৈশাখ ১০ ১৪৩১

  • || ১৩ শাওয়াল ১৪৪৫

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
ঢাকা সফরে কাতারের আমির, হতে পারে ১১ চুক্তি-সমঝোতা জলবায়ু ইস্যুতে দীর্ঘমেয়াদি কর্মসূচি নিয়েছে বাংলাদেশ দেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষায় বাংলাদেশ সর্বদা প্রস্তুত : প্রধানমন্ত্রী দেশীয় খেলাকে সমান সুযোগ দিন: প্রধানমন্ত্রী খেলাধুলার মধ্য দিয়ে আমরা দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারি বঙ্গবন্ধুর আদর্শ নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতে হবে: রাষ্ট্রপতি শারীরিক ও মানসিক বিকাশে খেলাধুলা গুরুত্বপূর্ণ: প্রধানমন্ত্রী বিএনপির বিরুদ্ধে কোনো রাজনৈতিক মামলা নেই: প্রধানমন্ত্রী স্বাস্থ্যসম্মত উপায়ে পশুপালন ও মাংস প্রক্রিয়াকরণের তাগিদ জাতির পিতা বেঁচে থাকলে বহু আগেই বাংলাদেশ আরও উন্নত হতো মধ্যপ্রাচ্যের অস্থিরতার প্রতি নজর রাখার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর প্রধানমন্ত্রী আজ প্রাণিসম্পদ সেবা সপ্তাহ উদ্বোধন করবেন মন্ত্রী-এমপিদের প্রভাব না খাটানোর নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর দলের নেতাদের নিয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানায় শেখ হাসিনা মুজিবনগর দিবসে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা বর্তমান প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত ইতিহাস জানতে পারবে মুজিবনগর দিবস বাঙালির ইতিহাসে অবিস্মরণীয় দিন: প্রধানমন্ত্রী ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস আজ নতুন বছর মুক্তিযুদ্ধবিরোধী অপশক্তির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে প্রেরণা জোগাবে : প্রধানমন্ত্রী আ.লীগ ক্ষমতায় আসে জনগণকে দিতে, আর বিএনপি আসে নিতে: প্রধানমন্ত্রী

নতুন অর্থবছরে কমবে ভর্তুকি, প্রণোদনাও

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ১২ মার্চ ২০২৩  

কোভিড-১৯ মহামারী এবং রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের মধ্যে প্রণোদনা ও ভর্তুকির মাধ্যমে দেশের অর্থনীতি সচল রাখার চেষ্টা করছে সরকার। অর্থনীতির গতি ধরে রাখতে বিদেশি উন্নয়ন সহযোগীদের সহযোগিতাও নিতে হচ্ছে সরকারকে। তবে উন্নয়ন সহযোগীদের শর্ত মানতে গিয়ে সরকারকে প্রণোদনা ও ভর্তুকিতে রাস টানতে হচ্ছে। এরই মধ্যে জ্বালানি পণ্যের দাম বাড়ানো হয়েছে কয়েক দফায়। বলা হচ্ছে, আগামী ২০২৩-২৪ অর্থবছরে প্রণোদনা ও ভর্তুকির বরাদ্দ আরও কমানো হবে।

জানা গেছে, আগামী বাজেটে ভর্তুকির অঙ্ক এক লাখ ১০ হাজার কোটি টাকার নিচে রাখতে চায় সরকার। প্রাথমিকভাবে ভর্তুকির প্রাক্কলন করা হয়েছিল এক লাখ ১৪ হাজার কোটি টাকা। কিন্তু এখন ভর্তুকির পরিমাণ চার হাজার কোটি টাকা কমানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে বিভিন্ন খাতে প্রণোদনার পরিমাণ বাজেটে কমিয়ে দেওয়ার চেষ্টা চলছে।

অর্থবিভাগের একটি সূত্র জানায়, চলতি (২০২২-২৩) অর্থবছরে বাজেটে ভর্তুকি, প্রণোদনা ও নগদ ঋণ খাতে বরাদ্দ রয়েছে ৮১ হাজার ৪৯০ কোটি টাকা। কিন্তু বছর শেষে বিভিন্ন মন্ত্রণালয় থেকে অতিরিক্ত চাহিদার কারণে ভর্তুকির পরিমাণ ২০ হাজার ৫১০ কোটি টাকা বাড়ানো হয়েছে। ফলে সংশোধিত বাজেটে ভর্তুকির পরিমাণ গিয়ে ঠেকেছে এক লাখ দুই হাজার কোটি টাকায়। এখন আগামী অর্থবছরের ভর্তুকি বরাদ্দ নিরূপণ করতে গিয়ে অর্থবিভাগের সংশ্লিষ্টরা এখাতে বরাদ্দ সহনীয় করার চেষ্টা করছেন।

চলতি অর্থবছরে সবচেয়ে বেশি ভর্তুকি রয়েছে বিদ্যুৎ খাতে (১৭ হাজার কোটি টাকা)। গত অর্থবছরে ছিল ১১ হাজার ৯৬৩ কোটি টাকা। চলতি বছরে এলএনজি (আমদানিকৃত তরল প্রাকৃতিক গ্যাস) খাতে বরাদ্দ রয়েছে ৬ হাজার কোটি টাকা (গত অর্থবছরে একই পরিমাণ ছিল)। এ ছাড়া খাদ্যে ভর্তুকি রয়েছে ৫ হাজার ৯৬৫ কোটি টাকা (গত অর্থবছর ছিল ৪ হাজার ৬৪১ কোটি টাকা)। কৃষি খাতে ভর্তুকি ১৬ হাজার কোটি টাকা (গত অর্থবছরে ছিল ১৫ হাজার ১৭৩ কোটি টাকা)। টিসিবি ও অন্যান্য খাতে ভর্তুকি বরাদ্দ ১১ হাজার ৩০০ কোটি টাকা। আর প্রণোদনা (রপ্তানি ও রেমিট্যান্স) ১৫ হাজার ২২৫ কোটি টাকা (গত অর্থবছরে ছিল ১৩ হাজার ২০০ কোটি টাকা)। নগদ ঋণ খাতে এবার ভর্তুকি রয়েছে ১০ হাজার টাকা।

অর্থবিভাগের একটি সূত্র জানায়, গত ২০ ডিসেম্বর অর্থমন্ত্রীর সভাপতিত্বে বাজেট সম্পর্কিত সম্পদ কমিটির বৈঠক হয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে, বিদ্যমান অর্থনৈতিক পরিস্থিতিতে ভর্তুকির এত চাপ অর্থনীতি সহ্য করতে পারবে না। সরকারের উচ্চপর্যায় থেকে বিদ্যুৎ ও পানির দাম বৃদ্ধির বিষয়ে ইতিবাচক মনোভাব দেখানো হলেও এই মুহূর্তে সারের দাম বাড়ানো সম্ভব নয় বলে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু বিদ্যুতের দাম বাড়ানো ও প্রণোদনা খাতে ব্যয় বরাদ্দ কমিয়ে ‘ভর্তুকি রাস’ টেনে ধরা হবে।

উল্লেখ্য, প্রতি বছরই ভর্তুকির পরিমাণ বাড়ছে। ২০২০-২১ অর্থবছরে ভর্তুকি খাতে বরাদ্দ ছিল ৪৭ হাজার ৫০০ কোটি টাকা। ২০১৯-২০ অর্থবছরে ছিল ৪২ হাজার ১০০ কোটি টাকা; ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ৩৭ হাজার ৮০০ কোটি; ২০১৭-১৮ বাজেটে ভর্তুকি ছিল ২৮ হাজার ৪৫ কোটি টাকা।