• রোববার ২৬ মে ২০২৪ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১১ ১৪৩১

  • || ১৭ জ্বিলকদ ১৪৪৫

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
ঢাকায় কোনো বস্তি থাকবে না, দিনমজুররাও ফ্ল্যাটে থাকবে অগ্নিসংযোগকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের হুঁশিয়ারি বঙ্গবাজারে বিপণী বিতানসহ চারটি উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন নজরুলের বলিষ্ঠ লেখনী মানুষকে মুক্তি সংগ্রামে উদ্দীপ্ত করেছে জোটের শরিক দলগুলোকে সংগঠিত ও জনপ্রিয় করতে নির্দেশ সন্ধ্যায় ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে রেমাল বঙ্গবাজার বিপনী বিতানসহ ৪ প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী কৃষিতে ফলন বাড়াতে অস্ট্রেলিয়ার প্রযুক্তি সহায়তা চান প্রধানমন্ত্রী বাজার মনিটরিংয়ে জোর দেওয়ার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর ‘বঙ্গবন্ধু শান্তি পদক’ দেবে বাংলাদেশ ইরানের প্রেসিডেন্টের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শোক রাইসি-আমির আব্দুল্লাহিয়ান মারা গেছেন: ইরানি সংবাদমাধ্যম সকল ক্ষেত্রে সঠিক পরিমাপ নিশ্চিত করার আহ্বান রাষ্ট্রপতির ওজন ও পরিমাপ নিশ্চিতে কাজ করছে বিএসটিআই: প্রধানমন্ত্রী চাকরির পেছনে না ছুটে যুবকদের উদ্যোক্তা হওয়ার আহ্বান ‘সামান্য কেমিক্যালের পয়সা বাঁচাতে দেশের সর্বনাশ করবেন না’ ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করে আওয়ামী লীগ দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আজ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আগামীকাল ন্যায়বিচার নিশ্চিত করতে বিচারকদের প্রতি আহ্বান রাষ্ট্রপতির

কমানো হলো গম আমদানির সময়সীমা

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ৩ সেপ্টেম্বর ২০২৩  

দেশের খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করার পাশাপাশি সরকারি বিতরণ ব্যবস্থা সচল রাখার জন্য আমদানির সময়সীমা কমানো হচ্ছে। আগে বিদেশ থেকে আমদানি পণ্য ৪২ দিনের মধ্যে সরবরাহ করতে হতো। জরুরি প্রয়োজনে এখন থেকে তা ১৫ দিন করা হয়েছে। এ বিষয়ে পাবলিক প্রকিউরমেন্ট বিধিমালা ২০০৮ এর বিধি ৮৩ (১) (ক) প্রয়োগ করে আন্তর্জাতিক দরপত্রের মাধ্যমে ক্রয়ের লক্ষ্যে ক্রয় প্রক্রিয়ার সময় কমানো হয়েছে।
খাদ্য মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, খাদ্য মন্ত্রণালয় অভ্যন্তরীণ সংগ্রহের পাশপাশি আন্তর্জাতিক উৎস থেকে গম সংগ্রহ করে থাকে। চলতি ২০২৩-২০২৪ অর্থবছরে আন্তর্জাতিক উৎস থেকে ৬ লাখ মেট্রিক টন গম সংগ্রহের জন্য বাজেটে অর্থ সংস্থান রেখেছে। দেশের মজুত বৃদ্ধি করে সরকারি খাদ্য বিতরণ ব্যবস্থা নিশ্চিত করার জন্য আমদানির ক্ষেত্রে নানা উৎস থেকে দ্রুত খাদ্যশস্য আমদানি করা সহজ হয় এবং প্রতিযোগিতাপূর্ণ মূল্যে খাদ্যশস্য ক্রয় করা সম্ভব হয়। এ কারণে খাদ্য মন্ত্রণালয় প্রতিবছর জি-টু-জি ভিত্তিতে এবং আন্তর্জাতিক উন্মুক্ত দরপত্রের মাধ্যমে গম সংগ্রহ করছে।

এ অর্থবছরে ইতিমধ্যে ২টি আন্তর্জাতিক উন্মুক্ত দরপত্রের কার্যক্রম সম্পন্ন করা হয়েছে এবং জি-টু-জি ভিত্তিতে গম আমদানির জন্য গত ১৭ আগস্ট তারিখে রাশিয়ান ফেডারেশনের সঙ্গে নেগোশিয়েশন সভা অনুষ্ঠিত হয়। ওই সভায় আন্তর্জাতিক উন্মুক্ত দরপত্রের চেয়ে বেশি মূল্যের প্রস্তাবের কারণে গম ক্রয় করা সম্ভব হয়নি। তবে রাশিয়াসহ কয়েকটি দেশের সঙ্গে ক্রয় প্রক্রিয়া কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

রাষ্ট্রীয় জরুরী প্রয়োজনে ও জনস্বার্থে জি-টু-জি ভিত্তিতে ৪ লাখ ৫০ হাজার টন গম আমদানির জন্য পিপিআর,২০০৮ দরপত্র দাখিলের সময়সীমা পত্রিকায় বিজ্ঞাপন প্রকাশের তারিখ থেকে ৪২ দিনের পরিবর্তে ১৫ দিন নির্ধারণের বিষয়ে গত ১২ জুলাই তারিখে অনুষ্ঠিত ‘অর্র্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির’ অনুমোদন নেওয়া হয়।

সূত্র জানায়, সরকারি খাদ্য বিতরণ ব্যবস্থা সচল রাখা, গমের বাজারমূল্য ভোক্তা সাধারণের জন্য সহনীয় ও স্থিতিশীল রাখা এবং সর্বোপরি জনগণের খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করার স্বার্থে জরুরিভিত্তিতে বাজেটের নির্দারিত লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের জন্য ৩ লাখ মেট্রিক টন গম আন্তর্জাতিক উন্মুক্ত দরপত্র পদ্ধতিতে অনুসরণ করে ক্রয় করা প্রয়োজন।

পাবলিক প্রকিউরমেন্ট বিধিমালা, ২০০৮ এর সর্বশেষ সংশোধনী মোতাবেক বিধি ৮৩ (১) (ক) এ বিধান রয়েছে, ‘(ক) দরপত্র দাখিলের সময়সীমা এমনভাবে নির্ধারণ করতে হবে, যাতে সম্ভাব্য সব দরপত্রদাতার কাছে দরপত্র দাখিলের আহ্বান পৌঁছায় এবং তারা দরপত্র প্রস্তুতি ও দাখিলের জন্য পর্যাপ্ত সময় পায় এবং পুনরায় দরপত্র আহ্বান করার ক্ষেত্রে তফসিল-২ এ বর্ণিত ন্যূনতম সময় দিতে হবে; তবে শর্ত থাকে যে, সরকার, আইন এর ধারা ৬৮ এ বর্ণিত রাষ্ট্রীয় প্রয়োজনে বা বিপর্যয়কর কোনো ঘটনা মোকাবিলার জন্য অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির সুপারিশক্রমে ক্রয় প্রক্রিয়ার সময়সীমা হ্রাস করতে পারবে।’

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, রাষ্ট্রীয় জরুরি প্রয়োজনে আন্তর্জাতিক উন্মুক্ত দরপত্রের আওতায় ৩ লাখ মেট্রিক টন গম ক্রয়ের ক্ষেত্রে পাবলিক প্রকিউরমেন্ট বিধিমালা ২০০৮ এর বিধি ৮৩ (১) (ক) অনুসরণ করা হবে। সে অনুযায়ী দরপত্র দাখিলের সময়সীমা পত্রিকায় বিজ্ঞাপন প্রকাশের তারিখ থেকে ৪২ দিনের পরিবর্তে ১৫ দিন করার একটি প্রস্তাব সম্প্রতি অনুমোন দিয়েছে অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি।

প্রস্তাবটি অনুমোদিত হওয়ায় দেশের খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করার পাশাপাশি সরকারি বিতরণ ব্যবস্থা সচল রাখা সম্ভব হবে। বৃহত্তর জনস্বার্থেই কমিটি প্রস্তবাটিতে অনুমোদন দিয়েছে।