• রোববার ১৯ মে ২০২৪ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৫ ১৪৩১

  • || ১০ জ্বিলকদ ১৪৪৫

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
চাকরির পেছনে না ছুটে যুবকদের উদ্যোক্তা হওয়ার আহ্বান ‘সামান্য কেমিক্যালের পয়সা বাঁচাতে দেশের সর্বনাশ করবেন না’ ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করে আওয়ামী লীগ দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আজ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আগামীকাল ন্যায়বিচার নিশ্চিত করতে বিচারকদের প্রতি আহ্বান রাষ্ট্রপতির আহতদের চিকিৎসায় আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোর ভূমিকা চান প্রধানমন্ত্রী টেকসই উন্নয়নের জন্য কার্যকর জনসংখ্যা ব্যবস্থাপনা চান প্রধানমন্ত্রী বিএনপি ক্ষমতায় এসে সব কমিউনিটি ক্লিনিক বন্ধ করে দেয় চমক রেখে বিশ্বকাপের দল ঘোষণা করল বাংলাদেশ শেখ হাসিনার তিন গুরুত্বপূর্ণ সফর: প্রস্তুতি নিচ্ছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় হজযাত্রীদের ভিসা অনুমোদনের সময় বাড়ানোর আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর বাংলাদেশ এআইকে স্বাগত জানায় তবে অপব্যবহার রোধে পদক্ষেপ নিতে হবে ছেলেরা কেন কিশোর গ্যাংয়ে জড়াচ্ছে কারণ খুঁজে বের করার নির্দেশ প্রযুক্তিজ্ঞান সম্পন্ন নতুন প্রজন্ম গড়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর এসএসসির ফল প্রকাশ, পাসের হার যত ছাত্রীদের চেয়ে ছাত্ররা পিছিয়ে, কারণ খুঁজতে বললেন প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর কাছে এসএসসির ফল হস্তান্তর জলাধার ঠিক রেখে স্থাপনা নির্মাণে প্রকৌশলীদের আহ্বান প্রধানমন্ত্রী দেশের উন্নয়ন ত্বরান্বিত করতে টেকসই কৌশল উদ্ভাবনের আহ্বান

ডায়াবেটিক রেটিনোপ্যাথি কাদের ও কেন হয়?

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ৪ সেপ্টেম্বর ২০২৩  

ডায়াবেটিসের সমস্যা এখন প্রায় ঘরে ঘরেই। ডায়াবেটিসের প্রাথমিক পর্যায়ে অসচেতন তার কারণে এটি শরীরে মারাত্মক প্রভাব ফেলতে পারে। যদিও জীবনযাত্রায় পরিবর্তন আনলে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখা যায়।

তবে কেউ যদি ডায়াবেটিস উপেক্ষা করে জীবনধারায় পরিবর্তন না আনেন কিংবা নিয়মতি ওষুধ না খান, তাহলে টাইপ ২ ডায়াবেটিস শারীরের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গে আঘাত হানে। ঠিক যেমন ডায়াবেটিসের প্রভাবে অন্ধত্বও বরণ করতে পারেন। যাকে বলা হয় ডায়াবেটিক রেটিনোপ্যাথি।

ডায়াবেটিক রেটিনোপ্যাথি রোগটি আসলে কী?

দীর্ঘদিন ধরে যারা ডায়াবেটিসে ভোগেন, তাদের দৃষ্টিশক্তি ক্রমশ কমতে থাকে। এই পরিস্থিতিতে তৈরি হয় ডায়াবেটিক রেটিনোপ্যাথির মতো রোগ। রোগটি যদিও একেবারে শেষ পর্যায়ে গিয়ে ধরা পড়ে। তখন আর ফিরে আসার কোনো উপায় থাকে না।

বিশেষজ্ঞদের মতে, ডায়াবেটিসে দীর্ঘদিন ভুগলে একসময় তা প্রভাব ফেলে রক্তনালি, শিরা ও ধমনীতে। এমনকি রেটিনার মতো সূক্ষ্ম স্থানেও যে ছোট ছোট ধমনী থাকে, সেখানেও প্রভাব ফেলে ডায়াবেটিস।

অনেক সময় রক্তনালি ছিঁড়ে যায়। ফলে চোখে রক্ত সঞ্চালন ব্যাহত হয়। আবার অনেক সময়ে রক্তনালিতে রক্ত জমাট বেঁধে গেলেও রক্ত চলাচলের এই একই সমস্যা দেখা দেয়।

ডায়াবেটিক রেটিনোপ্যাথি কেন হয়?

ডায়াবেটিক রেটিনোপ্যাথি হওয়ার প্রথম ও প্রধান কারণ দীর্ঘদিন ধরে থাকা ডায়াবেটিসে ভোগা। তার সঙ্গে যদি রোগীর রক্তচাপ ও কোলেস্টেরলের মাত্রা অত্যন্ত বাড়তি থাকে ও অতিরিক্ত ধূমপান করেন, তাহলে ডায়াবেটিক রেটিনোপ্যাথির রোগটি ক্রমশ বাড়তে থাকে।

বিশেষজ্ঞদের মতে, যদি কোনো ডায়াবেটিস রোগীর হাইপারটেনশন ও ইউরিনারি প্রোটিন লিকেজ অর্থাৎ অ্যালবুমিনিউরিয়ার মতো আনুষঙ্গিক রোগ থাকে, চোখের সমস্যাটি বাড়তে পারে। এছাড়া বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ডায়াবেটিক রেটিনোপ্যাথির সমস্যা দেখা দিতে পারে।

ডায়াবেটিক রেটিনোপ্যাথির লক্ষণগুলি কী কী?

যদিও রোগটি ধরা পড়ে একেবারে শেষ পর্যায়ে গিয়ে। তবে এই রোগের প্রাথমিক লক্ষণগুলো হলো চোখে ঝাপসা দেখা। একই সঙ্গে হঠাৎ করে চোখে আলোর ঝলকানি কিংবা চোখের সামনে ভাসমান নড়তে দেখা। এ ধরনের লক্ষণ দেখা দিলে দ্রুত চক্ষু বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিতে হবে।

ডায়াবেটিক রেটিনোপ্যাথির চিকিৎসা কী?

বিশেষজ্ঞদের মতে, একবার ডায়াবেটিক রেটিনোপ্যাথি ধরা পড়লে তা একদম সারানো যায় না। তবে নিয়মিত চিকিৎসা, থেরাপি ও পরীক্ষার মাধ্যমে চোখের ক্ষতি এড়ানো যায়। ডায়াবেটিক রেটিনোপ্যাথি গুরুতর পর্যায়ে গেলে অপারেশন বা লেজার থেরাপি ছাড়া উপায় থাকে না।