• শুক্রবার   ০৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ||

  • মাঘ ২১ ১৪২৯

  • || ১১ রজব ১৪৪৪

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
জনগণের ভাগ্য নিয়ে ছিনিমিনি খেলতে আসিনি: প্রধানমন্ত্রী সবাইকে হিসাব করে চলার অনুরোধ প্রধানমন্ত্রীর উন্নত-সমৃদ্ধ দেশ গড়তে কৃষি উন্নয়নের বিকল্প নেই: প্রধানমন্ত্রী ক্রীড়া শিক্ষায় বাস্তবমুখী পদক্ষেপ নিয়েছি: প্রধানমন্ত্রী নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিতে কাজ করছে সরকার: প্রধানমন্ত্রী জনস্বাস্থ্য নিশ্চিতে নিরাপদ ও পুষ্টিকর খাদ্যের বিকল্প নেই জনগণকে বিশ্বাস করি, তারা যদি চায় আমরা থাকবো: প্রধানমন্ত্রী ২০২২-২৩ অর্থবছরে ১০ বিলিয়ন ডলারের বেশি রেমিট্যান্স এসেছে ভাষা-সাহিত্য চর্চাও ডিজিটাল করার পরামর্শ প্রধানমন্ত্রীর রাষ্ট্রপতির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ মানহীন শিক্ষায় উচ্চশিক্ষিত বেকার বাড়ছে: রাষ্ট্রপতি গণতান্ত্রিক ধারাকে বাধাগ্রস্ত করতে চায় এক শ্রেণির বুদ্ধিজীবী মুসলিম উম্মাহকে ফিলিস্তিনের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান দেশের ব্যাপক উন্নয়ন বিবেচনায় নিতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত থাকলেই মানুষের উন্নতি হয়: প্রধানমন্ত্রী আমি জোর করে দেশে ফিরেছিলাম, আ.লীগ পালায় না: শেখ হাসিনা আজ ১১ প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী ১-৭ মার্চ মোবাইলে কল করলেই শোনা যাবে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ পুলিশি সেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিন: প্রধানমন্ত্রী সন্ত্রাস রুখে দিতে প্রশংসনীয় ভূমিকা রেখে যাচ্ছে পুলিশ

যুক্তরাষ্ট্র-দ.কোরিয়াকে ‘নির্দয়’ জবাব দেওয়া হবে: উ. কোরিয়া

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ৭ নভেম্বর ২০২২  

দক্ষিণ কোরিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে চলা সামরিক মহড়াকে উস্কানি এবং বিপজ্জনক বলে আখ্যায়িত করছে উত্তর কোরিয়ার সেনাবাহিনী। পাশাপাশি পিয়ংইয়ংয়ের পক্ষ থেকে হুঁশিয়ারি দিয়ে বলা হয়েছে, ওয়াশিংটন ও সিউলকে নির্দয় জবা দেওয়া হবে।
 

সোমবার (০৭ নভেম্বর) উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম কেসিএনএর প্রতিবেদনে এমনটি বলা হয়েছে।   

 গত সপ্তাহে ভিজিল্যান্ট স্টর্ম নামে যৌথ সামরিক মহড়া শুরু করে দক্ষিণ কোরিয়া ও যুক্তরাষ্ট্র। পরে বেশ কয়েকটি মিসাইল পরীক্ষা চালায় উত্তর কোরিয়া। ধারণা করা হয়, এরমধ্যে আন্তঃমহাদেশীয় মিসাইল ও শত শত গোলাও সাগরে ছুড়েছে পিয়ংইয়ং। দক্ষিণ কোরিয়া- যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক মহড়া শুক্রবার (৪ নভেম্বর) শেষ হওয়ার কথা থাকলেও তা শনিবার (৫ নভেম্বর)  পর্যন্ত চালান হয়।   

এ নিয়ে উত্তর কোরিয়ার সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে বলা হয়, ভিজিল্যান্ট স্টর্ম মহড়া ছিল একটি উস্কানি। এটি উদ্দেশ্যমূলকভাবে উত্তেজনা বাড়ানোর লক্ষ্যে চালানো হয়। খুব উচ্চ আক্রমণাত্মক প্রকৃতির একটি বিপজ্জনক যুদ্ধ মহড়া ছিল এটি।

পিয়ংইয়ংয়ের সেনাবাহিনী আরও জানায়, দক্ষিণ কোরিয়ায় হামলার আদলে তারা বিভিন্ন সামরিক কর্মকাণ্ড করেছে। গত ২ নভেম্বর উত্তর কোরিয়ার ছোড়া একট মিসাইল দক্ষিণ কোরিয়ার উলসান উপকূলের কাছে গিয়ে পড়ে। ১৯৫৩ সালে কোরিয়া যুদ্ধের অবসানের পর প্রথমবারের মতো এমন ঘটনা ঘটল। এই ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়ার কথা উত্তর কোরিয়ার সেনারা নিশ্চিত করেছে।  

 একটি বিবৃতিতে উত্তর কোরিয়ার সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়, শত্রুরা উস্কানিমূলক সামরিক পদক্ষেপ অব্যাহত থাকবে ততোই  নির্দয়ভাবে সেগুলোর জবাব দেওয়া হবে।