• সোমবার   ১৭ জানুয়ারি ২০২২ ||

  • মাঘ ৩ ১৪২৮

  • || ১১ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
নৌকায় ভোট দিয়েই রংপুর মঙ্গামুক্ত: প্রধানমন্ত্রী আর যেন কখনও মঙ্গা দেখা না দেয়: প্রধানমন্ত্রী রংপুর এখন উদ্বৃত্ত খাদ্যের অঞ্চল: প্রধানমন্ত্রী রংপুর বিভাগীয় সদর দফতর কমপ্লেক্স ভবন উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী বছরের প্রথম অধিবেশনে ভাষণ দেবেন রাষ্ট্রপতি স্বাস্থ্য বিষয়ক গবেষণা কম হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী ‘গবেষণা লব্ধ জ্ঞানকে দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে কাজে লাগাতে হবে’ টিউলিপ নাম হওয়ায় নেদারল্যান্ডস থেকে কম্পিউটার নেয়নি খালেদা জিয়া ওমিক্রন দ্রুত ছড়াচ্ছে, সর্তক থাকুন: প্রধানমন্ত্রী গবেষণার কোনো বিকল্প নেই: প্রধানমন্ত্রী স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর সমৃদ্ধ দেশে পরিণত করার যে অঙ্গীকার তা আজ বাস্তবায়ন হচ্ছে- প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর ভাষণে নির্দেশিত আদর্শে দেশ পরিচালিত হবে: প্রধানমন্ত্রী দেশের অগ্রযাত্রা যাতে ব্যাহত না হয়: প্রধানমন্ত্রী সমালোচকদের কাছে শেখ হাসিনার পাল্টা প্রশ্ন দুঃখী মানুষের মুখে হাসি ফোটানোটাই আমাদের লক্ষ্য: প্রধানমন্ত্রী ১৩ জানুয়ারি থেকে বিধিনিষেধ ৫০ বছর আগে যেদিন প্রথম দেখা বঙ্গবন্ধু-গান্ধীর ঐ মহামানব আসে ইয়াসির-সোহানের ব্যাটে বাংলাদেশের প্রতিরোধ

মনপুরার ৩২৫৮ জন জেলেদের মাঝে ভিজিএফ এর চাল বিতরন

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ৫ আগস্ট ২০২১  

ভোলা প্রতিনিধিঃ মনপুরা উপজেলার হাজির হাট ইউনিয়নের ৩ হাজার ২ শত ৫৮ সমুদ্রগামী  জেলেদের মাঝে স্বাস্থ্য বিধি মেনে সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে ভিজিএফএর ৩০ কেজি করে চাল বিতরন  উদ্ভোধন করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় হাজির হাট ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ের নীচে ৯টি ওয়ার্ডের সমুদ্রগামী জেলেদের মধ্যে এই চাল বিতরন কার্যক্রম উদ্ভোধন করা হয়েছে। চাল বিতরন কার্যক্রম উদ্ভোধন করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ শামীম মিঞা।

চাল বিতরনের সময় উপস্থিত ছিলেন হাজির হাট ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ নিজাম উদ্দিন হাওলাদার, ট্যাগ অফিসার মোঃ হারুন অর রশিদ সহ ইউপি সদস্যগন উপস্থিত ছিলেন। ট্যাগ অফিসার উপস্থিত থেকে প্রত্যেক সমুদ্রগামী জেলেদের মধ্যে ভিজিএফএর ৩০ কেজি করে চাল বিতরন করা হয়েছে।

মানবিক সহায়তা কর্মসূচির আওতায় অর্থবছরে দেশের সামুদ্রিক জলসীমায় ৬৫ দিন (২০ মে-২৩ জুলাই) মৎস্য আহরণ নিষিদ্ধকালীন জেলেদের জন্য এই ভিজিএফ চাল বরাদ্দ করেছে সরকার।

উল্লেখ্য,মাছের সুষ্ঠু প্রজননও সামুদ্রিক মৎস্য সম্পদ সংরক্ষণের জন্য ২০১৫ সাল থেকে প্রতিবছর ২০ মে থেকে ২৩ জুলাই পর্যন্ত  ৬৫ দিন বঙ্গোপসাগরে বাংলাদেশের অর্থনৈতিক জলসীমায় সব প্রকার মৎস্য নৌযান সব প্রজাতির মৎস্য  আহরণ নিষিদ্ধ করেছে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়।