• বৃহস্পতিবার   ০২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ||

  • মাঘ ২০ ১৪২৯

  • || ১০ রজব ১৪৪৪

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
জনগণের ভাগ্য নিয়ে ছিনিমিনি খেলতে আসিনি: প্রধানমন্ত্রী সবাইকে হিসাব করে চলার অনুরোধ প্রধানমন্ত্রীর উন্নত-সমৃদ্ধ দেশ গড়তে কৃষি উন্নয়নের বিকল্প নেই: প্রধানমন্ত্রী ক্রীড়া শিক্ষায় বাস্তবমুখী পদক্ষেপ নিয়েছি: প্রধানমন্ত্রী নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিতে কাজ করছে সরকার: প্রধানমন্ত্রী জনস্বাস্থ্য নিশ্চিতে নিরাপদ ও পুষ্টিকর খাদ্যের বিকল্প নেই জনগণকে বিশ্বাস করি, তারা যদি চায় আমরা থাকবো: প্রধানমন্ত্রী ২০২২-২৩ অর্থবছরে ১০ বিলিয়ন ডলারের বেশি রেমিট্যান্স এসেছে ভাষা-সাহিত্য চর্চাও ডিজিটাল করার পরামর্শ প্রধানমন্ত্রীর রাষ্ট্রপতির সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ মানহীন শিক্ষায় উচ্চশিক্ষিত বেকার বাড়ছে: রাষ্ট্রপতি গণতান্ত্রিক ধারাকে বাধাগ্রস্ত করতে চায় এক শ্রেণির বুদ্ধিজীবী মুসলিম উম্মাহকে ফিলিস্তিনের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান দেশের ব্যাপক উন্নয়ন বিবেচনায় নিতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত থাকলেই মানুষের উন্নতি হয়: প্রধানমন্ত্রী আমি জোর করে দেশে ফিরেছিলাম, আ.লীগ পালায় না: শেখ হাসিনা আজ ১১ প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী ১-৭ মার্চ মোবাইলে কল করলেই শোনা যাবে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ পুলিশি সেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিন: প্রধানমন্ত্রী সন্ত্রাস রুখে দিতে প্রশংসনীয় ভূমিকা রেখে যাচ্ছে পুলিশ

ভোলা-চরফ্যাশন সড়ক উন্নয়ন যোগাযোগের পথ সুগম হচ্ছে কয়েক লাখ মানুষের

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ১৫ ডিসেম্বর ২০২২  

চরফ্যাশন প্রতিনিধিঃ ভোলা সদর উপজেলার পরানগঞ্জ বাজার হতে শুরু হয়ে চরফ্যাশন উপজেলার বাবুরহাট লঞ্চঘাটকে সংযুক্ত করা ভোলা-চরফ্যাশন আঞ্চলিক সড়কটি প্রসস্থ করনের কাজ চলছে। সড়কটির কাজ সম্পন্ন হলে ভোলার দক্ষিণাঞ্চলের কয়েক লাখ মানুষের যাতায়াতের স্বপ্নের আশার আলোর পথ সুগম হবে। থাকবে না দীর্ঘ দিনের ভোগান্তির কালো ছায়া।

সড়ক ও জনপথ (সওজ) এর তথ্য সূত্রে জানা যায়, ভোলা-চরফ্যাশন সড়কটি ৬টি উপজেলার গণমানুষের জন্যে একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ মহাসড়ক। সর্বমোট ১১১.০০ কিলোমিটার দীর্ঘ এই সড়কটি ভোলা জেলার মূল যোগাযোগের লাইফ-লাইন যার কল্যাণে ভোলা জেলার বিভিন্ন উপজেলা যুক্ত হচ্ছে আর পরিচালিত হচ্ছে এই অঞ্চলের সকল অর্থনৈতিক কর্মকান্ড।

দক্ষিণ বঙ্গের অনিন্দ্য সুন্দরদ্বীপ জেলা ভোলার গণ-মানুষের জন্য উন্নত যোগাযোগ ও উৎপাদিত কৃষিপণ্য- আহরিত মৎস্য দ্রুত সময়ে সহজে পরিবহন করার জন্য বঙ্গবন্ধু কন্যা দেশনেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উপহার দেন ভোলা (পরান তালুকদারহাট)- চরফ্যাশন (চরমানিকা) আঞ্চলিক মহাসড়ক উন্নয়ন প্রকল্প।

ভোলা (পরান তালুকদারহাট)- চরফ্যাশন (চরমানিকা) আঞ্চলিক মহাসড়ক উন্নয়ন প্রকল্পটি বাস্তবায়নে ব্যয় ধরা হয়েছে ৮৪৯.৩৯ কোটি টাকা, যার মাধ্যমে ৯৪.২০৩ কিলোমিটার সড়ক প্রসস্থকরণ ও যথাযথ মানে মজবুতিকরণ করা হচ্ছে। প্রকল্পটির মাধ্যমে বিদ্যমান ৫.৫ মিটার প্রস্থ বিশিষ্ট সড়কটি ৯.১ মিটার করা হচ্ছে। শুধু তাই নয়, সড়কে বিদ্যমান ঝুঁকিপূর্ণ ৪ টি বেইলী সেতুর পরিবর্তে নতুন পিসি গার্ডার সেতু নির্মাণ করা হচ্ছে। এছাড়াও, পুরাতন ও সংকীর্ণ কালভার্ট গুলো পরিবর্তন করে নতুন ভাবে নির্মাণ হচ্ছে ৪৩টি কালভার্ট - যার মাধ্যমে এই অঞ্চলের জন্য টেকসই, নিরাপদ ও ব্যয় সাশ্রয়ী সড়ক অবকাঠামো তৈরী করা সম্ভব হবে। আগামীর ট্রাফিক ভলিউম যথাযথভাবে পরিবহন করার জন্য এই সড়কের বিকল্প রইবে না।

সড়ককে আরো দীর্ঘস্থায়ী ও টেকসই করার জন্য সড়কের বিভিন্ন বাজার অংশে নির্মাণ করা হচ্ছে রিজিড পেভমেন্ট- যাকে সহজে সাধারণ মানুষ কংক্রিটের পাকা সড়ক বলেই জানে। এই সড়ক নেটওয়ার্কে মোট ৫ কিলোমিটার রিজিড পেভমেন্ট নির্মাণ করা হচ্ছে। বাজার অংশে রিজিড পেভমেন্ট করায় পানি জমে থেকে এই সড়ক ক্ষতিগ্রস্থ হবার সম্ভবনা কমে যাবে। সড়কের পার্শ্বে অবস্থিত বিভিন্ন বাজারে জমে থাকা পানি দ্রুত নিষ্কাশনের জন্য নির্মাণ করা হয়েছে ইউ-ড্রেন। ভোলা-চরফ্যাশন সড়কের দুই পাশে অসংখ্য পুকুর ও প্রবাহমান খাল থাকায় সড়কের নিরাপত্তার জন্য তৈরী করা হচ্ছে কংক্রিট স্লোপ প্রটেকশন। সড়কের পার্শ্বস্থ প্রবাহমান খালের পাশে সিসি বন্টক দ্বারা প্রটেকশন দেওয়া হচ্ছে।

ভোলা (পরান তালুকদারহাট)- চরফ্যাশন (চরমানিকা) আঞ্চলিক মহাসড়কটি তার যাত্রালগ্ন থেকেই নানা প্রতিকূলতার সাথে সংগ্রাম করে বর্তমানে এই পর্যায়ে এসেছে। সড়কের দুই পাশে বহু গাছ থাকায় প্রথমেই অনেকটা সময় প্রয়োজন হয়। এছাড়াও বিভিন্ন ইউটিলিটি প্রতিস্থাপনের জন্য অনেকটা শ্রম দিতে হয় সরকারের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের। বর্তমানে প্রকল্পটির ৩১ ডিসেম্বর, ২০২৩ সালে সমাপ্তির জন্য নির্ধারিত। 

ভোলা বাস মালিক সমিতির নেতা প্রভাষক মনির উদ্দিন চাষী বলেন, “চরফ্যাশন-মনপুরার উন্নয়নের রূপকার আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব এমপির প্রচেষ্টায় এই সড়কের কাজ দ্রুত গতিতে সম্পন্ন হতে যাচ্ছে। যাত্রীরা দেখবে আলোর পথ। উন্নয়ন হবে টেকসই”। ভোলা-চরফ্যাশনের যাত্রী কামরুল সিকদার বলেন, "এ সড়কটি উন্নয়নের রোল মডেল। কাজের মান নিয়ে যেন প্রশ্নের সম্মুখিন না হতে হয় সে দিকেও দৃষ্টি দেয়ার জন্যে অনুরোধ করছি।"

সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের ভোলা সড়ক বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী নাজমুল ইসলাম বলেন, “সড়ক প্রসস্থকরণ সহ যাবতীয় কাজ যথাযথ মান নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে করা হচ্ছে। প্রকল্পের সকল ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানদের যথাযথভাবে কাজ করার জন্যেও আমাদের নির্দেশনা রয়েছে”।