• রোববার   ২২ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৭ ১৪২৯

  • || ১৮ শাওয়াল ১৪৪৩

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
রূপপুর মেটাবে বিদ্যুতের চাহিদা, দেবে লাভও দ্রব্যমূল্য নিয়ে ৩ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে নির্দেশ বৈশ্বিক সংকট মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রীর ৪ দফা প্রস্তাব অবিলম্বে বৈশ্বিক সরবরাহ চেইন স্বাভাবিক করার আহ্বান পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র পরিবেশবান্ধব: প্রধানমন্ত্রী খালেদাকে পদ্মায় ফেলতে আর ইউনূসকে চুবিয়ে তুলতে বললেন শেখ হাসিনা কক্সবাজার হবে আন্তর্জাতিক বিমান চলাচলের রিফুয়েলিং পয়েন্ট কক্সবাজারে যত্রতত্র স্থাপনা নির্মাণ না করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রী কক্সবাজারে কউক’র নতুন ভবনের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর টোল নির্ধারণ করে প্রজ্ঞাপন জারি আওয়ামী লীগ সরকার আছে বলেই সবকিছু নিয়ন্ত্রণ করতে পারছে- প্রধানমন্ত্রী ওপেনিংয়ে চতুর্থ সেরা জুটি গড়ে ফিরলেন জয়, তামিমের সেঞ্চুরি নিত্যপণ্যের দাম কেন চড়া, জানালেন প্রধানমন্ত্রী স্বদেশ প্রত্যাবর্তন: শেখ হাসিনা দেশের মানুষের শেষ ভরসাস্থল শেখ হাসিনা বাঙালি জাতির নিরাপদ আশ্রয়স্থল শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন ইতিহাসে মাইলফলক: রাষ্ট্রপতি চার দশকেরও বেশি সময় শেখ হাসিনার সফল নেতৃত্বে আ.লীগ উৎপাদন বাড়ানোর পাশাপাশি খাদ্য সাশ্রয় করুন: প্রধানমন্ত্রী সবাই স্বাধীনভাবে সরকারের সমালোচনা করতে পারে: প্রধানমন্ত্রী টাকা অপচয় করা যাবে না: প্রধানমন্ত্রী

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের স্বপ্ন দেখে বিএনপির লাভ হবে না: তথ্যমন্ত্রী

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ১৪ মে ২০২২  

তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, ‘তত্ত্বাবধায়ক সরকারের স্বপ্ন দেখে বিএনপির লাভ নেই। বিশ্বের সব গণতান্ত্রিক দেশের মতো সংবিধান অনুযায়ী বর্তমান সরকার দেশ চালাবে। এ সরকারের দেশ পরিচালনাকালে নির্বাচন কমিশনের অধীনে নির্বাচন হবে। আন্দোলনের নামে কেউ বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির অপচেষ্টা করলে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে তা প্রতিহত করা হবে।’

শুক্রবার (১৩ মে) দুপুরে রাজধানীর খামারবাড়িতে কৃষি গবেষণা কাউন্সিল মিলনায়তনে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে মন্ত্রী এসব কথা বলেন। পরে তিনি কীটতত্ত্ব সমিতির ১১তম দ্বিবার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দেন।

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘বিশ্বের কোনো গণতান্ত্রিক দেশে নির্বাচনের জন্য চলতি সরকার পদত্যাগ করে আরেকটি সরকার আসে না। সেভাবেই বর্তমান সরকার দেশ চালাবে। আর নির্বাচন কমিশন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে নির্বাচন করবে।’

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘বিএনপি ২০১৪ সালে নির্বাচন প্রতিহত করার চেষ্টা করেও পারেনি। গণতন্ত্রের অভিযাত্রা অব্যাহত ছিল। ২০১৮ সালেও এ ধরনের কথা বলেছিল। পরে নির্বাচনী ট্রেনের পাদানিতে চড়ে নির্বাচনে যাওয়ার চেষ্টা করেছিল। সব দলকে সঙ্গে নিয়ে জোট করে নির্বাচন করেছে। অথচ মাত্র পাঁচটি আসন পেয়েছে। এখন দাবি-দাওয়ার অজুহাত তুলছে। আসলে খালি কলস বাজে বেশি। অনর্থক বাগাড়ম্বর না করে আগামী নির্বাচনের জন্য বিএনপিকে পুরোদমে প্রস্তুতি নেওয়া উচিত।’

বিএনপির সরকার পতনের আন্দোলন প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের এ যুগ্ম-সম্পাদক বলেন, ‘বিএনপির আন্দোলনের কথা ১৩ বছর ধরেই শুনে আসছি। মির্জা আব্বাসসহ বিএনপির নেতারা পুরুষ হয়েও নারীর বেশে বোরকা পরে আদালতে জামিনের জন্য হাজির হয়। যে নেতারা বোরকা হাজিরা দেন, তাদের ওপর নেতাকর্মীদের আস্থা নেই। তারা কতটুকু কী করতে পারবেন, তাদের হিম্মত আমরাও জানি, জনগণও জানে।’

বিএনপির সভা-সমাবেশের অনুমতি দেওয়া হচ্ছে না- এমন অভিযোগ প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, ‘তারা অনেক সময় সভা-সমাবেশের অনুমতি নেন না। সমাবেশে নিজেদের মধ্যে মারামারি করেন। এতে জনগণ আতঙ্কিত হয়। আর জনগণ আতঙ্কিত হলে সরকার তো বসে থাকতে পারে না।’