• রোববার   ২২ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৭ ১৪২৯

  • || ১৮ শাওয়াল ১৪৪৩

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
রূপপুর মেটাবে বিদ্যুতের চাহিদা, দেবে লাভও দ্রব্যমূল্য নিয়ে ৩ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে নির্দেশ বৈশ্বিক সংকট মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রীর ৪ দফা প্রস্তাব অবিলম্বে বৈশ্বিক সরবরাহ চেইন স্বাভাবিক করার আহ্বান পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র পরিবেশবান্ধব: প্রধানমন্ত্রী খালেদাকে পদ্মায় ফেলতে আর ইউনূসকে চুবিয়ে তুলতে বললেন শেখ হাসিনা কক্সবাজার হবে আন্তর্জাতিক বিমান চলাচলের রিফুয়েলিং পয়েন্ট কক্সবাজারে যত্রতত্র স্থাপনা নির্মাণ না করার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রী কক্সবাজারে কউক’র নতুন ভবনের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী পদ্মা সেতুর টোল নির্ধারণ করে প্রজ্ঞাপন জারি আওয়ামী লীগ সরকার আছে বলেই সবকিছু নিয়ন্ত্রণ করতে পারছে- প্রধানমন্ত্রী ওপেনিংয়ে চতুর্থ সেরা জুটি গড়ে ফিরলেন জয়, তামিমের সেঞ্চুরি নিত্যপণ্যের দাম কেন চড়া, জানালেন প্রধানমন্ত্রী স্বদেশ প্রত্যাবর্তন: শেখ হাসিনা দেশের মানুষের শেষ ভরসাস্থল শেখ হাসিনা বাঙালি জাতির নিরাপদ আশ্রয়স্থল শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন ইতিহাসে মাইলফলক: রাষ্ট্রপতি চার দশকেরও বেশি সময় শেখ হাসিনার সফল নেতৃত্বে আ.লীগ উৎপাদন বাড়ানোর পাশাপাশি খাদ্য সাশ্রয় করুন: প্রধানমন্ত্রী সবাই স্বাধীনভাবে সরকারের সমালোচনা করতে পারে: প্রধানমন্ত্রী টাকা অপচয় করা যাবে না: প্রধানমন্ত্রী

জামালপুরে নাম সর্বস্ব স্বেচ্ছাসেবক দল

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ১৪ মে ২০২২  

জামালপুরে নাম সর্বস্বভাবে জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের কার্যক্রম। দলীয় কর্মকাণ্ড নেই বললেই চলে। এ অবস্থায় তৃণমূল কর্মীরা চরম হতাশায় ভুগছেন। তাদের মন্তব্য এভাবে চলতে থাকলে বিএনপির এ অঙ্গ সংগঠন অচিরেই অস্তিত্ব সংকটের মধ্যে পড়বে। তৃণমূল কর্মীদের সঙ্গে কথা বলে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

তারা অভিযোগে বলেন, পদ হাতিয়ে নেয়ার পর নেতারা আর কর্মীদের খোঁজখবর রাখেন না। যতই দিন যাচ্ছে নেতারা ততই আত্মকেন্দ্রিক হয়ে উঠছেন। নিজের স্বার্থ ছাড়া এক পা এগোতে চায় না। এমন নেতৃত্ব দিয়ে সংগঠন কিছুতেই চলতে পারে না।

দলীয় সূত্রে জানা যায়, ২০১৮ সালে জামালপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের কমিটি গঠন করা হয়। দলকে গতিশীল করার লক্ষ্যে সাবেক ছাত্রদল নেতা শফিকুল ইসলাম খান সজিব ও মনোয়ারুল ইসলাম কর্নেলকে সাধারণ সম্পাদক মনোনীত করা হয়। দলের গতি ফিরে পেতে সম্প্রতি নুরুল মোমেন আকন্দ কাউসারকে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি করা হয়েছে। এ অবস্থায় দলের কোন নেতা কোন পদে কে কে আছেন তাও জানেন না দলের অনেকেই। ফলে দিনে দিনে মুখ থুবড়ে পড়ছে দলের কার্যক্রম। এ অবস্থা শুধু জামালপুর জেলা শহরেরই নয়। একই অবস্থা জেলার সরিষাবাড়ি, মেলান্দহ, মাদারগঞ্জ, ইসলামপুর, দেওয়ানগঞ্জ ও বকশীগঞ্জ উপজেলাও। ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড পর্যায়ে অবস্থা আরো শোচনীয়। এছাড়া প্রত্যেক উপজেলাতে রয়েছে গ্রুপিং।

জামালপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সাবেক সভাপতি শফিকুল ইসলাম খান সজিব বলেন, দলের কর্মসূচি যথাযথভাবে পালনের চেষ্টা করা হয়। এছাড়া সাংগঠনিক তৎপরতা বাড়ানোর চেষ্টাও অব্যাহত রয়েছে।