• শুক্রবার   ০৯ ডিসেম্বর ২০২২ ||

  • অগ্রাহায়ণ ২৫ ১৪২৯

  • || ১৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
আওয়ামী লীগ কারও পকেটের সংগঠন নয়: প্রধানমন্ত্রী তারেককে এনে সাজা বাস্তবায়ন করা হবে: শেখ হাসিনা নয়াপল্টনে লাশ ফেলার দুরভিসন্ধি কার্যকর করেছে বিএনপি: কাদের ক্রিকেট দলের জয়ের ধারা আগামী দিনেও অব্যাহত থাকবে: রাষ্ট্রপতি ২০২৪-এর জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহে নির্বাচন, ভোট চাইলেন প্রধানমন্ত্রী মিরাজের অবিশ্বাস্য সেঞ্চুরি, বাংলাদেশের ২৭১ সমুদ্রকে নিরাপদ রাখতে কাজ করছে সরকার: প্রধানমন্ত্রী চলমান সকল যুদ্ধ থামান: বিশ্ব নেতাদের প্রতি শেখ হাসিনা বৈশ্বিক বাণিজ্যের স্বার্থে সমুদ্রকে নিরাপদ রাখা আবশ্যক ছাত্রলীগের প্রার্থীদের জীবনবৃত্তান্ত যাচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর কাছে সমুদ্র সৈকতে ইন্টারন্যাশনাল ফ্লিট রিভিউ উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী কক্সবাজারে বিকেলে জনসভায় ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী আজ দ্বিতীয় ওয়ানডে, ভারতের বিপক্ষে আরেকটি সিরিজ জয়ের হাতছানি জনগণ স্বতঃস্ফূর্তভাবে আ.লীগকে ভোট দেয়: শেখ হাসিনা ব্যাংকে টাকা আছে, সমস্যা নাই: প্রধানমন্ত্রী জনগণ স্বতস্ফুর্তভাবে আ.লীগকে ভোট দেয়: শেখ হাসিনা ছাত্রলীগকে গুজবের জবাব দেওয়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর ৩০০ কোটি মানুষের বাজার ধরতে বাংলাদেশে বিনিয়োগের আহ্বান কৃষি জমি নষ্ট করে শিল্পকারখানা নয়: প্রধানমন্ত্রী আওয়ামী লীগ গণতন্ত্র সমুন্নত রাখতে অঙ্গীকারবদ্ধ: শেখ হাসিনা

নামাজ শুদ্ধ হওয়ার জন্য যেসব শর্ত মানতে হবে

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২  

নামাজ ফরজ ইবাদত। নামাজে সুরা ও কেরাত পড়তে হয়। এ কেরাত পড়ায় কিছু শর্ত আছে, যেগুলো মেনে নামাজ পড়তে হয়। যে শর্তগুলো পাওয়া না গেলে নামাজ হবে না, যা পালন করা জরুরি। তাহলো-

১. তেলাওয়াত শুদ্ধ হতে হবে। কোরআনের সুরা ও আয়াতের অক্ষর, বাক্যগুলো বিশুদ্ধ উচ্চারণ হতে হবে। তেলাওয়াত বিশুদ্ধ না হলে নামাজ হবে না। আর ভুল তেলাওয়াতের জন্য গুনাহগার হতে হবে।

২. ফরজ নামাজের প্রথম দুই রাকাতে সুরা ফাতেহার সঙ্গে সুরা মিলাতে হবে। সুরা মিলানো ওয়াজিব।

৩. কমপক্ষে তিন আয়াত বা তিন আয়াতের সমপরিমাণ বড় এক আয়াত তেলাওয়াত করতে হবে।

৪. বিতর, সুন্নাত ও নফল নামাজের ক্ষেত্রে প্রত্যেক রাকাতেই সুরা ফাতেহার সঙ্গে সুরা মিলাতে হবে।

৫. ফজর, মাগরিব, এশা, জুমা, বিতর নামাজ জামাতে পড়াকালীন, দুই ঈদের নামাজে সুরা উচ্চস্বরে তেলাওয়াত করতে হবে।

৬. ফজর, মাগরিব ও এশার নামাজ একাকি আদায় করলেও উচ্চস্বরে কেরাত কেলাওয়াত করা উত্তম।

৭. সুরা ফাতেহার সঙ্গে যে সুরা মেলানো হয় তা প্রত্যেক রাকাতের জন্য আলাদা আলাদা সুরা তেলাওয়াত করা উত্তম।

৮. ধীরে ধীরে কেরাতের নামাজে সুরাগুলো মুখে উচ্চারণ করে তেলাওয়াত করতে হবে; মুখ বন্ধ করে, জিহ্বা না নাড়িয়ে মনে মনে পড়া যাবে না। এমনভাবে পড়তে হবে যাতে নিজ কানে তেলাওয়াতের আওয়াজ আসে।

৯. কেরাত শেষ হওয়ার আগে তেলাওয়াত করতে করতে রুকুতে যাওয়া মাকরূহ বা নিষিদ্ধ।

১০. ফরজ নামাজে সুরা ফাতেহার সঙ্গে মিলানো সুরা বা আয়াতে ইচ্ছাকৃতভাবে কোরআনের ক্রমধারা ঠিক না রাখা মাকরূহ। ভুলে আয়াত বা সুরা আগে/পিছে পড়লে মাকরূহ হবে না। ক্রমধারা অর্থ হচ্ছে- প্রথম রাকাতে সুরা ইখলাস (কুল হুয়াল্লাহু আহাদ) পড়া আর দ্বিতীয় রাকাতে সুরা কাউছার (ইন্না আ’ত্বাইনা) পড়া।

১১. ফরজ নামাজে একই সুরার অনেক আয়াত একত্রে পড়া এবং দুই আয়াতের কম ছেড়ে দ্বিতীয় রাকতে সামনে থেকে পড়া মাকরূহ। আবার কেউ যদি দুই সুরা এভাবে পড়ে যে, মাঝখানে ৩ আয়াত বিশিষ্ট একটি সুরা ছেড়ে দিয়ে পরবর্তী সুরা পড়ে তবে তাও মাকরূহ।

১২. যদি কেউ নতুন মুসলমান হয়। তবে অনতিবিলম্বে সুরা বা আয়াত শিখে নিতে হবে। শিখে নেয়ার আগ পর্যন্ত নামাজে সুবহানাল্লাহ, আলহামদুলিল্লাহ ইত্যাদি তাসবিহ পড়বে। কোরআন শিক্ষা করার ব্যাপারে অলসতা করলে গুনাহগার হবে।

আল্লাহ তাআলা সবাইকে নামাজে সঠিকভাবে তেলাওয়াত করার তাওফিক দান করুন। আমিন।