• মঙ্গলবার ২৫ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ১১ ১৪৩১

  • || ১৭ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
ড. ইউনূস কর ফাঁকি দিয়েছেন, তা আদালতে প্রমাণিত: প্রধানমন্ত্রী ‘শেখ হাসিনা দেশ বিক্রি করে না’ অভিন্ন নদীর টেকসই ব্যবস্থাপনা নিয়ে আলোচনা হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী দুই দেশের পারস্পরিক সহযোগিতার পথ নিয়ে আলোচনা করেছি সরকার শিক্ষা ব্যবস্থাকে বহুমাত্রিক করেছে: প্রধানমন্ত্রী অনেক হিরার টুকরা ছড়িয়ে আছে, কুড়িয়ে নিতে হবে বারবার ভস্ম থেকে জেগে উঠেছে আওয়ামী লীগ: শেখ হাসিনা টেকসই ভবিষ্যত নিশ্চিত করতে যৌথ দৃষ্টিভঙ্গিতে সম্মত: প্রধানমন্ত্রী গণতন্ত্র রক্ষায় আ. লীগ নেতাকর্মীদের সর্বদা প্রস্তুত থাকার নির্দেশ আওয়ামী লীগের প্লাটিনাম জয়ন্তীতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা আওয়ামী লীগের প্লাটিনাম জয়ন্তী আজ ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের ১০ চুক্তি সই বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী আগামীকাল দিল্লির রাষ্ট্রপতি ভবনে শেখ হাসিনাকে রাজকীয় সংবর্ধনা হাসিনা-মোদী বৈঠক আজ সংলাপের মাধ্যমে বাণিজ্য প্রতিবন্ধকতা দূর করার আহ্বান বাংলাদেশ প্রতিবেশী দেশগুলোর বিনিয়োগকে অগ্রাধিকার দেয় বঙ্গবন্ধুর চার নীতি এবং বাংলাদেশের চার স্তম্ভ সুফিয়া কামালের সাহিত্যকর্ম নতুন প্রজন্মের প্রেরণার উৎস শুক্রবার ভারত যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

হাদিস থেকে শিক্ষা: মানুষের সাথে উত্তম ব্যবহারে মিলবে জান্নাত

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ৩ সেপ্টেম্বর ২০২৩  

রাসুল (সা.) বলেছেন,

مَنْ أَحَبَّ أَنْ يُزَحْزَحَ عَنِ النَّارِ، وَيُدْخَلَ الجَنَّةَ، فَلْتَأْتِهِ مَنِيَّتُهُ وَهُوَ يُؤْمِنُ بِاللهِ وَاليَومِ الآخِرِ، وَلْيَأْتِ إِلَى النَّاسِ الَّذِي يُحِبُّ أَنْ يُؤْتَى إِلَيْهِ

যে পছন্দ করে তাকে জাহান্নাম থেকে দূরে রাখা হোক এবং জান্নাতে প্রবেশ করানো হোক, তার মৃত্যু যেন এমন অবস্থায় হয় যে, সে আল্লাহ ও তাঁর রাসুলের প্রতি ইমান রাখে এবং অন্যের সাথে এমন ব্যবহার করে, যা সে নিজের জন্য পছন্দ করে। (সহিহ মুসলিম: ১৮৪৪)

এই হাদিস থেকে যে শিক্ষাগুলো আমরা পাই

১. এই হাদিসে রাসুল (সা.) মানুষের সাথে উত্তম আচরণের একটি চমৎকার মূলনীতি আমাদের শিখিয়েছেন। সেটা হলো, মানুষের সাথে এমন আচরণ করুন যে আচরণ আপনি মানুষের কাছে আশা পারেন। কারো সাথে খারাপ ব্যবহার করার আগে নিজেকে তার জায়গায় দাঁড় করান এবং চিন্তা করুন একই ব্যবহার আপনি পেলে আপনার কেমন লাগতো। রাসুলের (সা.) এই একটি নির্দেশনা অনুসরণ করলেই আমাদের আচরণ সর্বোত্তম ও আদর্শ হয়ে উঠতে পারে।

২. মুমিনের জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ লক্ষ্য হলো আল্লাহর শাস্তি থেকে মুক্তি ও জান্নাত লাভ। এই লক্ষ্য অর্জনের চেষ্টায় নিরত থাকা মুমিনের কর্তব্য। এ হাদিসে নবিজি (সা.) জাহান্নাম থেকে মুক্তি ও জান্নাত লাভের উপায় মাত্র দুটি পয়েন্টে সীমাবদ্ধ করেছেন। এক. আল্লাহ ও পরকালের ওপর ইমান আনা এবং সে অনুযায়ী তার ইবাদত করা অর্থৎ বিশ্বজগতের স্রষ্টা ও ইলাহ আল্লাহর হক আদায় করা। দুই. আল্লাহর সৃষ্টির হক আদায় করা। মানুষ বা আল্লাহর যে কোনো সৃষ্টির সাথে আচরণের ক্ষেত্রে ইহসান করা অর্থাৎ অন্যের সাথে সে আচরণই করা যে আচরণ মানুষ নিজের জন্য চায়।

৩. জান্নাতে প্রবেশ করার একটি উপায় হলো মানুষের সাথে উত্তম আচরণ করা, ভালোবাসা ও সৌহার্দপূর্ণ ব্যবহার করা। আল্লাহর ইবাদতের পাশাপাশি মুসলমান ভাই, যে কোনো মানুষ এবং আল্লাহর যে কোনো সৃষ্টির সাথে উত্তম আচরণ করা আমাদের কর্তব্য। আরেকটি হাদিসে রাসুল (সা.) বলেছেন,
الرَّاحِمُونَ يَرْحَمُهُمُ الرَّحْمَنُ ارْحَمُوا مَنْ فِي الأَرْضِ يَرْحَمْكُمْ مَنْ فِي السَّمَاءِ

রহমকারীদের ওপর ওপর রহমানও রহম করেন। তোমরা পৃথিবীবাসীদের প্রতি রহম করলে আকাশবাসী তোমাদের উপর রহম করবেন। (তিরমিজি: ১৯২৪)