• মঙ্গলবার   ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১ ||

  • আশ্বিন ৫ ১৪২৮

  • || ১২ সফর ১৪৪৩

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
নিউইয়র্কে পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী টিকা নেওয়ার পর খোলার সিদ্ধান্ত নিজ নিজ বিশ্ববিদ্যালয় নিতে পারবে বঙ্গবন্ধু ভাষণের দিনকে এবারও ‘বাংলাদেশি ইমিগ্রান্ট ডে’ ঘোষণা ফিনল্যান্ডে পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী শীর্ষ অর্থনীতির দেশগুলোর অংশগ্রহণ চান প্রধানমন্ত্রী `লাশের নামে একটা বাক্সো সাজিয়ে-গুজিয়ে আনা হয়েছিল` টকশোতে কে কী বলল ওসব নিয়ে দেশ পরিচালনা করি না: প্রধানমন্ত্রী উপহারের ঘরে দুর্নীতি তদন্তে দুদককে নির্দেশ দিলেন প্রধানমন্ত্রী জিয়াকে আসামি করতে চেয়েছিলাম: প্রধানমন্ত্রী এটা তো দুর্নীতির জন্য হয়নি, এটা কারা করল? ওজোন স্তর রক্ষায় সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি খাতকেও এগিয়ে আসতে হবে ওজোন স্তর রক্ষায় সিএফসি গ্যাসনির্ভর যন্ত্রের ব্যবহার কমাতে হবে ১২ বছরের শিক্ষার্থীরা টিকার আওতায় আসছে: সংসদে প্রধানমন্ত্রী ২৪ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘে ভাষণ দিবেন প্রধানমন্ত্রী প্রতিদিন প্রতি মুহূর্তে শোক প্রস্তাব নিতে চাই না: প্রধানমন্ত্রী এই সংসদে একের পর এক সদস্য হারাচ্ছি: প্রধানমন্ত্রী সবাই স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে শিক্ষার রূপরেখা সাজানোর নির্দেশ শিক্ষা কার্যক্রমকে সময়োপযোগী করা অপরিহার্য: প্রধানমন্ত্রী আগেরবার সব ভালো কাজের জন্য মামলা খেয়েছিলাম: প্রধানমন্ত্রী

ফোনে যে ধরনের ছবি তুলে সেভ রাখলেই বিপদ

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ১২ সেপ্টেম্বর ২০২১  

অনেকেই ডেবিট কার্ড, ক্রেডিট কার্ড এটিএম পিন, এনআইডি নম্বর এবং বিভিন্ন পাসওয়ার্ড ফোনে বা ই-মেইলে সেভ করে রাখেন। অনেকে গুরুত্বপূর্ণ ডকুমেন্টস প্রেরণের জন্য ছবি তুলে রাখেন, পরে তা ডিলিট করেন না। কিন্তু এটা যে কতটা বিপদজনক হতে পারে।

অনলাইন লেনদেনের সঙ্গেই বাড়ছে সাইবার প্রতারণার সংখ্যাও। আর এর একটা বড় অংশ ফিশিং। ফিশিং হানায় অন্য কোনও নকল অ্যাপের মাধ্যমে কোনও ফোনের সব কিছু নিজের ফোন বা কম্পিউটার থেকে খুলতে পারে হ্যাকার। এর ফলে ফোনে ব্যাংক ডিটেইলস, এনআইডি কার্ড, পাসওয়ার্ডের মতো স্পর্শকাতর তথ্য থাকলে, তার পরিণতি হবে ভয়াবহ।

তাই ফোনে লিখে বা ছবি তুলে এ ধরণের ডিটেইলস সেভ না করাই শ্রেয়। অনলাইন শপিংয়ের ক্ষেত্রেও অ্যাপে কার্ড ডিটেইলস সেভ করবেন না।

ক্রেডিট, ডেবিট কার্ডের নিরাপত্তা নিয়ে সম্প্রতি সমীক্ষা চালায় সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম লোকাল সার্কেলস। দেখা যায়, ২৯ শতাংশ কার্ড ব্যবহারকারীই পরিবারের অন্য কারও হাতে কার্ড ও এটিএম পিন দিয়ে রেখেছেন।