• বৃহস্পতিবার   ২৮ অক্টোবর ২০২১ ||

  • কার্তিক ১২ ১৪২৮

  • || ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
এসএসসি পরীক্ষা শুরু ১৪ নভেম্বর জাতীয় প্রয়োজনে সেনাবাহিনী সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকারে প্রস্তুত থাকবে ‘বাঙালির পিতার নাম শেখ মুজিবুর’ গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন বেসরকারি খাতে উদ্যোক্তা তৈরিতে প্রধানমন্ত্রীর গুরুত্বারোপ বাংলাদেশ হবে প্রাচ্য-পাশ্চাত্যের সেতু, এখানে বিনিয়োগ করুন বিনিয়োগবান্ধব পরিবেশ নিশ্চিতে সরকার অঙ্গীকারবদ্ধ: শেখ হাসিনা দেশের ভাবমূর্তি নষ্টকারীদের বিষয়ে সচেতন হতে হবে: প্রধানমন্ত্রী মাঝে মধ্যে কিছু ঘটিয়ে দেশের ভাবমূর্তি নষ্টের অপচেষ্টা হচ্ছে দৃষ্টিনন্দন পায়রা সেতুতে হাঁটতে পারলে ভালো লাগতো: প্রধানমন্ত্রী সিলেট-ঢাকা চার লেনের নির্মাণকাজের উদ্বোধন বাংলাদেশকে কেউ আর পিছিয়ে রাখতে পারবে না: প্রধানমন্ত্রী স্বপ্নের পায়রা সেতু উদ্বোধন পায়রা সেতুর উদ্বোধন আজ, দক্ষিণাঞ্চলের আরেকটি স্বপ্নপূরণ নেতাকর্মীদের নজরদারি বাড়াতে বললেন শেখ হাসিনা কুমিল্লার ঘটনা দুঃখজনক, অপরাধীর বিচার হবে: প্রধানমন্ত্রী ‘দেশের সবচেয়ে বড় রপ্তানি পণ্য হবে ডিজিটাল ডিভাইস’ সরকারের ধারাবাহিকতা আছে বলেই উন্নয়ন সম্ভব হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী বিদেশে বিনিয়োগের প্রস্তুতি নিচ্ছে বাংলাদেশ: প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী পূর্বাচলে প্রদর্শনীকেন্দ্র উদ্বোধন করবেন আজ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে কঠোর নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

চলতি বছরই পৃথিবীর পাশ দিয়ে যাবে সাতটি বিশাল গ্রহাণু

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ১৩ অক্টোবর ২০২১  

গিজার পিরামিডের চেয়েও বড় কয়েকটি গ্রহাণু  বা পাথরখণ্ড আগামী সপ্তাহে পৃথিবীর খুব কাছ দিয়ে উড়ে যাবে। যার মধ্যে একটি যাবে চলতি সপ্তাহে।

নাসার সেন্টার ফর নেয়ার-আর্থ অবজেক্ট স্টাডিজের তথ্যানুযায়ী, গত মাসে সন্ধান পাওয়া ২০২১ এসএমথ্রি নামের গ্রহাণুটি শুক্রবার পৃথিবীর কাছ দিয়ে যাবে। এ গ্রহাণুর ব্যাস সর্বোচ্চ ৫২৫ ফুট। অর্থাৎ পাথরখণ্ডটি গিজার পিরামিডের চেয়েও বড় হবে। এর সঙ্গে যদি পৃথিবীর সংঘর্ষ হয় তাতে পৃথিবীর যেখানে এটি আছড়ে পড়বে ওই অঞ্চলে যথেষ্ট ক্ষতি হবে।

২০২১ এসএমথ্রিকে ‘নিয়ার আর্থ অবজেক্ট’ বলা হচ্ছে। নাসা বলছে, এগুলো ধূমকেতু বা পাথরখণ্ড যা কাছাকাছি কোনো গ্রহের মধ্যাকর্ষণ শক্তির কারণে পৃথিবীর কাছাকাছি নিজের কক্ষপথে ঘুরতে থাকে। পৃথিবী থেকে ১২০ মাইলের মধ্যে এ ধরনের যা কিছু আসে সেগুলোকেই ‘নিয়ার আর্থ অবজেক্ট’ বলা হচ্ছে।

২০২১ এসএমথ্রি যখন পৃথিবীর সবচেয়ে কাছ দিয়ে উড়ে যাবে, তখন পৃথিবীর সঙ্গে এর দূরত্ব হবে ৩৬ লাখ মাইলের মতো। শুনে হয়তো মনে হতে পারে, সে তো অনেক দূর দিয়ে যাবে। তাহলে, বিপদের সম্ভাবনা নেই। সেক্ষেত্রে মনে রাখতে হবে শুক্র গ্রহের সঙ্গে পৃথিবীর দূরত্ব মোটামুটি ৭৪৮ লাখ মাইলের মতো হয়ে থাকে। দুই গ্রহের কক্ষপথের ওপর নির্ভর করে এ দূরত্ব কতটা হবে। অর্থাৎ শুক্রগ্রহের চেয়ে অনেক বেশি কাছ দিয়ে যাবে পাথরখণ্ডটি।

অল্প কিছুদিনের মধ্যেই পৃথিবীর কাছ দিয়ে উড়ে যাবে বিশালাকার এমন পাথরখণ্ডের মধ্যে এই ২০২১ এসএমথ্রিই একমাত্র পাথরখণ্ড নয়। নভেম্বরের মধ্যে এর চেয়ে বড় আরও সাতটি পাথরখণ্ড উড়ে যাবে পৃথিবীর আশপাশ দিয়ে।

এরমধ্যে সবচেয়ে কাছ দিয়ে যে পাথরখণ্ডটি উড়ে যাবে তার নাম রাখা হয়েছে ১৯৯৬ ভিবিথ্রি। ২০ অক্টোবর পৃথিবী থেকে এর দূরত্ব থাকবে ২১ লাখ মাইলের মতো। এর ব্যাস প্রায় ৭৫৪ ফুট। 

এ দফায় পৃথিবীর আশপাশ দিয়ে যাবে এমন পাথরখণ্ডগুলোর মধ্যে যেটি সবচেয়ে বড় তার নাম রাখা হয়েছে ২০০৪ ইউই। এটির ব্যাস ১ হাজার ২৪৬ ফুট পর্যন্ত। ১৩ নভেম্বর পৃথিবী থেকে এর দূরত্ব থাকবে ২৬ লাখ মাইলের মতো। 

সৌরজগতে এ ধরনের পাথরখণ্ডের সংখ্যা ২৭ হাজার ২৪টি। এগুলোর মধ্যে ৯ হাজার ৮৫৬টি পাথরখণ্ড অন্তত ৪৫৯ ফুট লম্বা। আর ৮৯০টি পাথরখণ্ড এক কিলোমিটার লম্বা বা তার চেয়ে বেশি লম্বা।

এ বছরে সবচেয়ে বড় যে পাথরখণ্ডটি পৃথিবীর কাছ থেকে উড়ে গেছে সেটির নাম ২০০১ এফওথার্টিটু। মোটামুটি ৩ হাজার ফুটের মতো চওড়া এ পাথরখণ্ডটি মার্চে পৃথিবী থেকে ১২ লাখ মাইল দূরত্বে উড়ে যায়।

এছাড়া অ্যাপোফিস নামে একটি গ্রহাণু নিয়ে এ বছর বেশ শোরগোল হয়েছিল। কেউ কেউ বলেছিলেন, এটি পৃথিবীর সাথে ধাক্কা খাবে। কিন্তু বিজ্ঞানীরা বলেন যে ,পরবর্তী ১০০ বছরের মধ্যে ওই গ্রহাণুর পৃথিবীর সঙ্গে সংঘর্ষের কোনো সম্ভাবনা নেই। তবে ২০২৯ সালের ১৩ এপ্রিল এটি পৃথিবীর খুব কাছ দিয়ে যাবে। তখন পৃথিবী থেকে এর দূরত্ব থাকবে মাত্র ২০ হাজার মাইল।