• সোমবার ২০ মে ২০২৪ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ৫ ১৪৩১

  • || ১১ জ্বিলকদ ১৪৪৫

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
চাকরির পেছনে না ছুটে যুবকদের উদ্যোক্তা হওয়ার আহ্বান ‘সামান্য কেমিক্যালের পয়সা বাঁচাতে দেশের সর্বনাশ করবেন না’ ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করে আওয়ামী লীগ দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আজ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আগামীকাল ন্যায়বিচার নিশ্চিত করতে বিচারকদের প্রতি আহ্বান রাষ্ট্রপতির আহতদের চিকিৎসায় আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোর ভূমিকা চান প্রধানমন্ত্রী টেকসই উন্নয়নের জন্য কার্যকর জনসংখ্যা ব্যবস্থাপনা চান প্রধানমন্ত্রী বিএনপি ক্ষমতায় এসে সব কমিউনিটি ক্লিনিক বন্ধ করে দেয় চমক রেখে বিশ্বকাপের দল ঘোষণা করল বাংলাদেশ শেখ হাসিনার তিন গুরুত্বপূর্ণ সফর: প্রস্তুতি নিচ্ছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় হজযাত্রীদের ভিসা অনুমোদনের সময় বাড়ানোর আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর বাংলাদেশ এআইকে স্বাগত জানায় তবে অপব্যবহার রোধে পদক্ষেপ নিতে হবে ছেলেরা কেন কিশোর গ্যাংয়ে জড়াচ্ছে কারণ খুঁজে বের করার নির্দেশ প্রযুক্তিজ্ঞান সম্পন্ন নতুন প্রজন্ম গড়ার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর এসএসসির ফল প্রকাশ, পাসের হার যত ছাত্রীদের চেয়ে ছাত্ররা পিছিয়ে, কারণ খুঁজতে বললেন প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রীর কাছে এসএসসির ফল হস্তান্তর জলাধার ঠিক রেখে স্থাপনা নির্মাণে প্রকৌশলীদের আহ্বান প্রধানমন্ত্রী দেশের উন্নয়ন ত্বরান্বিত করতে টেকসই কৌশল উদ্ভাবনের আহ্বান

সাধারণ মেইলেও থাকতে পারে বিপদ

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২২  

হ্যাকারদের জন্য এখন কোথাও রক্ষা নাই। সব জায়গায় জাল পেতে রেখেছে। প্রযুক্তি যতই উন্নত হোক না কেন। সাইবার অপরাধীরা ঠিকই নিজেদের পথ বের করে নিচ্ছে। মেইল এবং সোশ্যাল মিডিয়া এদের সবচেয়ে বড় জায়গা। যেখানে বিভিন্নভাবে ম্যালওয়্যার ছড়িয়ে দেয়। এরপর ব্যবহারকারীর ডিভাইসের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে বিভিন্নভাবে তাদের বিপদে ফেলে।

সাইবার অপরাধীরা সাধারণ মানুষকে ‘টার্গেট’ করার জন্য একের পর এক কৌশল বের করে ফেলছে। প্রতারকরা প্রথমেই টার্গেটের তথ্য হাতিয়ে নেয়। তারপর তাঁদের কাছ থেকে অর্থ চুরি করে, একে ‘ফিশিং’ বলা হয়। ফিশিং হল এক ধরনের সাইবার আক্রমণ যেখানে হ্যাকাররা গ্রাহকের ব্যক্তিগত তথ্য যেমন ব্যক্তিগত ব্যাঙ্কের বিশদ বিবরণ, ডেবিট কার্ডের নম্বর, পিন বা পাসওয়ার্ড হাতিয়ে নেয়।

সাধারণ দেখতে মেইলেও থাকতে পারে হ্যাকারদের ফাঁদ। কারণ হ্যাকাররা ফিশিং আক্রমণের জন্য অনেক সময় মেইলের আশ্রয় নেয়। তবে খুব সহজেই ভুয়া মেইল বা হ্যাকারদের ফাঁদ কি না বুঝতে পারবেন। যেমন- কথা বলার ভঙ্গিতে কোনো রকম অস্বাভাবিকতা থাকলে, ব্যাকরণগত ভুল বা বানান ভুল, ই-মেল ঠিকানা, লিঙ্ক এবং ডোমেইন নামে থাকা ভুল, কোনো রকম হুমকি বা জরুরি বলে দাবি করা মেইল দেখলে সতর্ক হোন।

এসব মেইলে আপনার কাছে কোনো পাসওয়ার্ড, পিন নম্বর, ইউজার আইডি বা কোনো স্পর্শকাতর বা গোপন তথ্য চাওয়া হতে পারে। এজন্য মেইলে এধরনের জরুরি বার্তা কখনোই কাউকে দেওয়া উচিত হয়। কোনোভাবে আপনার ই-মেইলের অ্যাক্সেস হ্যাকার পেয়ে গেলে আপনার বড় ধরনের ক্ষতি করতে পারে।

কোনো ই-মেলে ভেরিফায়েড ইওর অ্যাকাউন্ট বা লগইন লেখা থাকলে সেসব লিঙ্কে ক্লিক করবেন না। পরিবর্তে, সর্বদা একটি নতুন উইন্ডো খুলতে হবে এবং যে কোনো অ্যাকাউন্টে লগ ইন করতে ইনস্টিটিউটের অফিসিয়াল হোম পেজ ব্যবহার করতে হবে।

এছাড়া কখনোই অজানা বা সন্দেহজনক কোনো মেইলে আসা লিঙ্কে ক্লিক করবেন না। এমন কোনো লিঙ্কে ক্লিক করলে বা স্প্যাম মেইলের উত্তর দিলে যে কোনো ব্যক্তির ই-মেল আইডি শনাক্ত করে ফেলতে পারে হ্যাকাররা।