• মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ||

  • ফাল্গুন ১৩ ১৪৩০

  • || ১৫ শা'বান ১৪৪৫

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
জনগণের আস্থা অর্জন করলে ভোট পাবেন: জনপ্রতিনিধিদের প্রধানমন্ত্রী জনপ্রতিনিধির মাধ্যমে উন্নয়ন কাজের ব্যবস্থাটা আমরা নিয়েছিলাম কেউ যেন ভুয়া ক্লিনিক-চিকিৎসকের দ্বারা প্রতারিত না হন: রাষ্ট্রপতি স্থানীয় সরকার বিভাগে বাজেট বরাদ্দ ৬ গুণ বেড়েছে: প্রধানমন্ত্রী স্থানীয় সরকারকে মাটি-মানুষের সঙ্গে নিবিড় সম্পর্ক গড়তে হবে শবে বরাতের মাহাত্ম্যে উদ্বুদ্ধ হয়ে দেশের কাজে আত্মনিয়োগের আহ্বান সমাজের অসহায়, দরিদ্র মানুষের সহায়তায় এগিয়ে আসতে হবে দেশের মানুষের জন্য ন্যায়বিচার নিশ্চিত করতে হবে বিচারকদের ক্ষমতার অপব্যবহার রোধকল্পে খেয়াল রাখার আহ্বান মিউনিখ সফরে বাংলাদেশের অঙ্গীকার বলিষ্ঠরূপে প্রতিফলিত হয়েছে পবিত্র রমজানে নিত্যপণ্যের সংকট হবে না: প্রধানমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ইউরোপীয় কমিশনের প্রেসিডেন্টের অভিনন্দন প্রতিবেশীদের সঙ্গে সুসম্পর্ক রেখেই সামুদ্রিক সম্পদ আহরণের আহ্বান সমুদ্রসীমার সম্পদ আহরণ করে কাজে লাগানোর তাগিদ প্রধানমন্ত্রীর ২১ বছর সমুদ্রসীমার অধিকার নিয়ে কেউ কথা বলেনি: শেখ হাসিনা হঠাৎ টাকার মালিক হওয়ারা মনে করে ইংরেজিতে কথা বললেই স্মার্টনেস ভাষা আন্দোলন দমাতে বঙ্গবন্ধুকে কারান্তরীণ রাখা হয় : সজীব ওয়াজেদ ভাষা আন্দোলনের পথ ধরেই বাংলাদেশের মানুষ স্বাধিকার পেয়েছে অশিক্ষার অন্ধকারে কেউ থাকবে না: প্রধানমন্ত্রী একুশ মাথা নত না করতে শেখায়: প্রধানমন্ত্রী

৫০ হাজার বছর পর বিশ্ব দেখবে বিরল ধূমকেতু

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ৮ জানুয়ারি ২০২৩  

৫০ হাজারের বছরের মধ্যে প্রথমবার খালি চোখে দেখা যাবে একটি বিরল ধূমকেতু। আগামী ১ ফেব্রুয়ারি পৃথিবী ও সূর্যকে অতিক্রম করবে। ফলে পৃথিবী থেকে দূরবীন ছাড়া সহজেই পর্যবেক্ষণ করতে পারবেন বিশ্ববাসী।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যদি আকাশ পরিষ্কার থাকে এবং চাঁদের আলো বেশি আলোকিত না হয় তবেই খালি চোখে দেখা সম্ভব।

প্যারিসের জ্যোতির্বিজ্ঞানী নিকোলাস বিভার বার্তাসংস্থা এএফপিকে বলেন, পূর্ণিমার কারণে খালি চোখে দেখা না গেলেও, জানুয়ারির ২১-২২ তারিখে জ্যোতির্বিজ্ঞানীদের জন্য এটি পর্যবেক্ষণের ভালো একটি সুযোগ হবে।

গত বছরের মার্চে প্রথমবার ধূমকেতুটি বৃহস্পতি গ্রহের পাশ দিয়ে যেতে দেখে যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়াভিত্তিক সংস্থা জুইকি ট্রানজিয়েন্ট ফ্যাসিলিটি। এরপরই এটি নাম দেওয়া হয় সি/২০২২ই৩ (জেডটিএফ)।

মার্কিন মহাকাশ সংস্থা নাসা বলছে, ধূমকেতুটি খালি চোখে দৃশ্যমান হতে পারে অন্ধকার রাতের আকাশে। শহরের আলো বা চাঁদের আলো থাকলে তা স্পষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা কম।

এ প্রসঙ্গে জ্যোতির্বিজ্ঞানী বিভার আরও বলেন, এই ধূমকেতু ধূলিকণা ও এমিট এবং সবুজ আভা দিয়ে তৈরি।

২০২০ সালের মার্চে নিওওয়াইজ এবং ১৯৯৭ সালে হেল-বপ নামের একটি ধূমকেতু পৃথিবী থেকে খালি চোখে দেখা যায়। হেল-বপের ব্যাস ছিল প্রায় ৬০ কিলোমিটার। কিন্তু সবশেষ ধুমকেতুটি পৃথিবীর খুব কাছাকাছি আসছে, তবে এটি আকারে খুব বেশি বড় হবে বলে মনে করছেন না বিশেষজ্ঞরা।