• মঙ্গলবার ১৮ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ৪ ১৪৩১

  • || ১০ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
তারেকসহ পলাতক আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে কোরবানির পশু বেচাকেনা এবং ঘরমুখো মানুষের নিরাপত্তার নির্দেশ তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে চীনের কাছে ঋণ চেয়েছি গ্লোবাল ফান্ড, স্টপ টিবি পার্টনারশিপ শেখ হাসিনাকে বিশ্বনেতৃবৃন্দের জোটে চায় শিশুর যথাযথ বিকাশ নিশ্চিতে সকল খাতকে শিশুশ্রমমুক্ত করতে হবে শিশুশ্রম নিরসনে প্রত্যেককে আরো সচেতন হতে হবে : প্রধানমন্ত্রী ব্যবসায়িদের প্রতি নিয়ম নীতি মেনে কার্যক্রম পরিচালনার আহ্বান বিনামূল্যে সরকারি বাড়ি গৃহহীনদের আত্মমর্যাদা এনে দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর জিসিএ লোকাল অ্যাডাপটেশন চ্যাম্পিয়নস অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ আশ্রয়ণের ঘর মানুষের জীবন বদলে দিয়েছে: প্রধানমন্ত্রী ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি তৈরি করে দেব : প্রধানমন্ত্রী নতুন সেনাপ্রধান ওয়াকার-উজ-জামান প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর পাচ্ছে সাড়ে ১৮ হাজার পরিবার শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস আজ শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করলেন সোনিয়া গান্ধী মোদীকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানালেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শেখ হাসিনা-মোদি বৈঠকে দু’দেশের সম্পর্ক আগামীতে আরো দৃঢ় হবে বাংলাদেশ ভুটান থেকে জলবিদ্যুৎ আমদানি করতে আগ্রহী : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা-নরেন্দ্র মোদী সংক্ষিপ্ত শুভেচ্ছা বিনিময় অ্যাক্রেডিটেশন দেশের অর্থনীতিকে সুদৃঢ় করতে সহায়তা করে: রাষ্ট্রপতি

বাংলাদেশের সিরিজের মধ্য দিয়ে চেমসফোর্ডের নতুন ইতিহাস

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ১৭ মে ২০২৩  

বৈরী আবহাওয়ার কারণে আয়ারল্যান্ডের পরিবর্তে ইংল্যান্ডে বাংলাদেশের সিরিজ আয়োজন করা হয়েছিল। যেখানে প্রতিটি ম্যাচেই কানায় কানায় পূর্ণ ছিল দর্শকে। যাদের মধ্যে বেশির ভাগই ছিলেন বাংলাদেশি সমর্থক। বাংলাদেশ-আয়ারল্যান্ড সিরিজের মধ্য দিয়ে দীর্ঘ সময় পর ওয়ানডে ম্যাচ অনুষ্ঠিত হলো এসেক্স কাউন্টি ক্রিকেট গ্রাউন্ডে। এদিকে সিরিজ আয়োজন করতে পেরে খুশি ক্লাব কর্তৃপক্ষ।

দ্য প্যাভিলিয়ন চেমসফোর্ডের ক্রিকেট মাঠটি ১৯৬৭ সালে আনুষ্ঠানিকভাবে এসেক্স কাউন্টি ক্রিকেট গ্রাউন্ড হিসেবে স্বীকৃতি পায়। অপেক্ষাকৃত ছোট এই গ্রাউন্ডের ধারণক্ষমতা সাড়ে ছয় হাজার। ১৯৮৩ সালের অষ্ট্রেলিয়া-ভারত সিরিজের মধ্য দিয়ে ওয়ানডে ম্যাচের সূচনা হয় এখানে। আর সবশেষ বাংলাদেশ-আয়ারল্যান্ডের ম্যাচ।

১৯৯৯ সালে এখানেই বাংলাদেশ-নিউজিল্যান্ডের ম্যাচের পর আর কোনো ওয়ানডে সিরিজ অনুষ্ঠিত হয়নি। দুই যুগ পর বাংলাদেশ-আয়ারল্যান্ডের ম্যাচের মধ্য দিয়ে ওয়ানডে বল গড়াল এখানে। শুধু তাই নয়, বাংলাদেশি সমর্থকদের উল্লাস ও উচ্ছ্বাসে মেতে উঠেছিল পুরো গ্রাউন্ড। লাল সবুজের জার্সি ও পতাকায় যেন পরিণত হয়েছিল বাংলার মিরপুর স্টেডিয়াম। এমন দৃশ্যপটের প্রশংসা করছেন খোদ এসেক্স ক্রিকেট ক্লাবের শীর্ষকর্তা।

এসেক্স কাউন্টি ক্রিকেট ক্লাবের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জন স্টেফহেনসন বলেন, ‘বিশেষ করে বাংলাদেশ দলের জন্য অন্যরকম একটি ক্রিকেটীয় উন্মাদনা দেখা গেছে এই মাঠে। ২৪ বছর পরে এখানে এ ধরনের ম্যাচ আয়োজন করতে পেরে আমরা খুব খুশি।

লন্ডনসহ ব্রিটেনের বিভিন্ন শহর থেকে বাংলাদেশ দলের খেলা দেখতে আসা সমর্থকরা যেন প্রাণ ফিরিয়ে দিল এই গ্রাউন্ডের। এসেক্স ক্রিকেট ক্লাবের সঙ্গে বাংলাদেশে সম্পর্কটা বেশ গভীর। এ সিরিজ আয়োজনের মাধ্যমে বাংলাদেশি সমর্থকদের গ্রাউন্ডে আনতে পারায় খুশি বলে জানান ক্রিকেট বিশ্লেষকরা।
 
ক্যাপিটাল কিডস ক্রিকেটের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা শহীদুল আলম রতন বলেন, ‘আমরা খুব খুশি এই সিরিজ আয়োজন হওয়ায়। এ কারণে সমর্থকেরা মাঠে ফিরেছেন। সাংবাদিক থেকে শুরু করে মাঠের সবাই আনন্দের সঙ্গে তাদের কাজ করতে পেরেছেন।’