• শনিবার ২৫ মে ২০২৪ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১১ ১৪৩১

  • || ১৬ জ্বিলকদ ১৪৪৫

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
ঢাকায় কোনো বস্তি থাকবে না, দিনমজুররাও ফ্ল্যাটে থাকবে অগ্নিসংযোগকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের হুঁশিয়ারি বঙ্গবাজারে বিপণী বিতানসহ চারটি উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন নজরুলের বলিষ্ঠ লেখনী মানুষকে মুক্তি সংগ্রামে উদ্দীপ্ত করেছে জোটের শরিক দলগুলোকে সংগঠিত ও জনপ্রিয় করতে নির্দেশ সন্ধ্যায় ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে রেমাল বঙ্গবাজার বিপনী বিতানসহ ৪ প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী কৃষিতে ফলন বাড়াতে অস্ট্রেলিয়ার প্রযুক্তি সহায়তা চান প্রধানমন্ত্রী বাজার মনিটরিংয়ে জোর দেওয়ার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর ‘বঙ্গবন্ধু শান্তি পদক’ দেবে বাংলাদেশ ইরানের প্রেসিডেন্টের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শোক রাইসি-আমির আব্দুল্লাহিয়ান মারা গেছেন: ইরানি সংবাদমাধ্যম সকল ক্ষেত্রে সঠিক পরিমাপ নিশ্চিত করার আহ্বান রাষ্ট্রপতির ওজন ও পরিমাপ নিশ্চিতে কাজ করছে বিএসটিআই: প্রধানমন্ত্রী চাকরির পেছনে না ছুটে যুবকদের উদ্যোক্তা হওয়ার আহ্বান ‘সামান্য কেমিক্যালের পয়সা বাঁচাতে দেশের সর্বনাশ করবেন না’ ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করে আওয়ামী লীগ দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আজ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আগামীকাল ন্যায়বিচার নিশ্চিত করতে বিচারকদের প্রতি আহ্বান রাষ্ট্রপতির

মাতৃমৃত্যু রোধে বাংলাদেশের উন্নতি ‘অভাবনীয়’ : ইউএনএফপিএ

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ১৫ মে ২০২৪  

মাতৃমৃত্যু রোধে বাংলাদেশ অভাবনীয় উন্নতি করেছে বলে জানিয়েছেন জাতিসংঘ জনসংখ্যা তহবিলের (ইউএনএফপিএ) নির্বাহী পরিচালক ড. নাতালিয়া কানেম। তিনি বলেন, ২০০০ সাল থেকে ২০২০ সালের মধ্যে বিশ্বব্যাপী মাতৃমৃত্যুর হার এক তৃতীয়াংশ কমেছে। এমনকি বাংলাদেশে এটি আরও চিত্তাকর্ষকভাবে প্রায় ৩৮ শতাংশ কমেছে।

বুধবার (১৫ মে) সকালে রাজধানীর হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে ‘গ্লোবাল ডায়ালগ : ডেমোগ্রাফিক ডাইভারসিটি অ্যান্ড সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

ড. নাতালিয়া কানেম বলেন, বিশ্বব্যাপী যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্যের অধিকার লাভ লাখ লাখ মানুষের জীবনকে বদলে দিয়েছে। ১৯৯০ সাল থেকে আধুনিক গর্ভনিরোধক ব্যবহারকারী নারীর সংখ্যা বিশ্বব্যাপী দ্বিগুণ হয়েছে। ২০০০ সাল থেকে ১৫ থেকে ১৯ বছর বয়সী কিশোরীদের মধ্যে গর্ভধারণ এক-তৃতীয়াংশ কমেছে। এমনকি অসংখ্য দেশ প্রজনন অধিকার রক্ষার জন্য আইন প্রণয়ন করেছে, যার মধ্যে রয়েছে অনিরাপদ গর্ভপাত কমানোর ব্যবস্থা এবং ব্যাপক যৌনতা শিক্ষায় প্রবেশাধিকার প্রসারিত করা।

তিনি বলেন, আজ একজন নারী হওয়া অনেক বেশি নিরাপদ, বেনিনে হোক বা বাংলাদেশে; একটি শিক্ষা অর্জন করা সহজ, সন্তান জন্ম দেওয়া নিরাপদ, একটি মেয়ের পক্ষে তার জীবনের গতিপথ বেছে নেওয়া আরও বেশি সম্ভব। তবুও আমাদের স্বীকার করতে হবে যে অসমতা এখনো রাজত্ব করছে, অনেক নারী ও মেয়েকে সেই অগ্রগতি থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে। এমনকি উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি সত্ত্বেও অনেকগুলো বড় গ্যাপ রয়ে গেছে। অতএব জনসংখ্যাগত স্থিতিস্থাপকতা এবং টেকসই উন্নয়ন অর্জনের জন্য সেই গ্যাপগুলো পূরণ করুন।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. রোকেয়া সুলতানা। এছাড়াও বক্তব্য দেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদসহ অনেকে।