• বুধবার ১৯ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ৪ ১৪৩১

  • || ১১ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
তারেকসহ পলাতক আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে কোরবানির পশু বেচাকেনা এবং ঘরমুখো মানুষের নিরাপত্তার নির্দেশ তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে চীনের কাছে ঋণ চেয়েছি গ্লোবাল ফান্ড, স্টপ টিবি পার্টনারশিপ শেখ হাসিনাকে বিশ্বনেতৃবৃন্দের জোটে চায় শিশুর যথাযথ বিকাশ নিশ্চিতে সকল খাতকে শিশুশ্রমমুক্ত করতে হবে শিশুশ্রম নিরসনে প্রত্যেককে আরো সচেতন হতে হবে : প্রধানমন্ত্রী ব্যবসায়িদের প্রতি নিয়ম নীতি মেনে কার্যক্রম পরিচালনার আহ্বান বিনামূল্যে সরকারি বাড়ি গৃহহীনদের আত্মমর্যাদা এনে দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর জিসিএ লোকাল অ্যাডাপটেশন চ্যাম্পিয়নস অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ আশ্রয়ণের ঘর মানুষের জীবন বদলে দিয়েছে: প্রধানমন্ত্রী ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ি তৈরি করে দেব : প্রধানমন্ত্রী নতুন সেনাপ্রধান ওয়াকার-উজ-জামান প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর পাচ্ছে সাড়ে ১৮ হাজার পরিবার শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস আজ শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করলেন সোনিয়া গান্ধী মোদীকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানালেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শেখ হাসিনা-মোদি বৈঠকে দু’দেশের সম্পর্ক আগামীতে আরো দৃঢ় হবে বাংলাদেশ ভুটান থেকে জলবিদ্যুৎ আমদানি করতে আগ্রহী : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা-নরেন্দ্র মোদী সংক্ষিপ্ত শুভেচ্ছা বিনিময় অ্যাক্রেডিটেশন দেশের অর্থনীতিকে সুদৃঢ় করতে সহায়তা করে: রাষ্ট্রপতি

চার্জশিটে মূল আসামিকে বাদ দেওয়ায় ফেঁসে গেলেন তদন্ত কর্মকর্তা

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪  

 মেহেরপুর সীমান্তে বিজিবির অভিযানে চাঞ্চল্যকর ফেনসিডিল উদ্ধার মামলার মূল আসামির নাম বাদ দিয়ে আদালতে চার্জশিট দেওয়ায় ফেঁসে গেলেন তদন্ত কর্মকর্তা গাংনী থানার উপপরিদর্শক (এসআই) স্বপন কুমার বিশ্বাস। তিনি বর্তমানে মাগুড়া থানায় কর্মরত।

পরিদর্শক পদমর্যাদার নিচে নয় এমন কর্মকর্তা দিয়ে মামলাটি পুনরায় তদন্তের নির্দেশ দেন বিজ্ঞ বিচারক। একই সঙ্গে এসআই স্বপন কুমার বিশ্বাসের বিরুদ্ধে তদন্ত সাপেক্ষে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য পুলিশ সুপারকে আদেশ দেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার (৬ ফেব্রুয়ারি) বেলা ৩টার দিকে মেহেরপুর সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. আব্দুর রহমান সরদার এই আদেশ দেন।

মামলার বিবরণে জানা গেছে, ২০১৮ সালের ২৭ অক্টোবর গাংনী উপজেলার সীমান্তবর্তী সওড়াতলা গ্রামে ফেনসিডিলের একটি বড় চালান পাচার হচ্ছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে বিজিবির সহড়াতলা ক্যাম্পের কমান্ডার নায়েব সুবেদার জাকির হোসেন সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে অভিযান চালান। বিজিবির উপস্থিতি টের পেয়ে মাদক কারবারিরা ছয় বস্তা ফেনসিডিল ফেলে পালিয়ে যান। কিন্তু টর্স লাইটের আলোতে সুবেদার জাকির হোসেন এলাকার দুজন শীর্ষ ফেনসিডিল কারবারিকে চিহ্নিত করেন। মাদক কারবারিরা পালিয়ে গেলেও ঘটনাস্থল থেকে ৫৯৫ বোতল ফেনসিডিল জব্দ করা হয়। ফেনসিডিল উদ্ধারের ঘটনায় ১৯৯০ সালের মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের ১৯ (১) এর ৩ (খ) ধারায় গাংনী থানায় একটি মামলা দায়ের করেন বিজিবি।

এই মামলার এজাহারে শরিফুল ইসলাম ও মোহাম্মদ রুবেলের নাম উল্লেখ করা হয়। পরে তৎকালীন গাংনী থানার এসআই স্বপন কুমার বিশ্বাস মামলাটির তদন্তের দায়িত্ব পান। তদন্তকারী কর্মকর্তা স্বপন কুমার বিশ্বাস সম্পূর্ণ পরিকল্পিত উপায়ে কতিপয় সাক্ষীদের কার্যবিধির ১৬১ ধারায় জবানবন্দি তৈরি করে বেআইনিভাবে প্রধান আসামি শরিফুল ইসলামকে বাদ দেন। অপর আসামি রুবেলের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন।

আদালতের ধারণা তদন্তকারী কর্মকর্তা একটা বড় ধরনের মাদক মামলার প্রধান আসামির কাছ থেকে অনৈতিকভাবে লাভবান হয়ে অথবা অন্য কোনোভাবে প্রভাবিত হয়ে সম্পূর্ণ বেআইনিভাবে মামলার ৩১২ নম্বর অভিযোগ পত্রে অভিযোগ দায় থেকে ২০১৮ সালের ২৫ ডিসেম্বর মামলার মূল আসামি শরিফুল ইসলামকে অব্যাহতের সুপারিশ করেন।

বিজ্ঞ আদালত মামলাটি একজন পুলিশ পরিদর্শক পদমর্যাদার নিম্নে নহে এমন কোনো কর্মকর্তার মাধ্যমে পূর্ণ তদন্তের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য এই মামলার আদেশসহ সংশ্লিষ্ট কাগজপত্রের ফটোকপি মেহেরপুর পুলিশ সুপার বরাবর পাঠানোর আদেশ দেন।

আদেশে মেহেরপুরের সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ আবদুর রহমান সরদার সুষ্ঠু ও ন্যায় বিচারের সঙ্গে বিপুল পরিমাণ মাদকের মামলাটি বিধি মোতাবেক পুনঃতদন্ত হওয়া আবশ্যক মর্মে নিবেদন করেন। এবং তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই স্বপন কুমার বিশ্বাস (বিপি-৭৭৯৪০২৫৪৫৬) কর্তৃক মামলার প্রধান আসামিকে বেআইনিভাবে নট সেন্ট আপ করার দায়ে বিধি মোতাবেক তদন্তকারী কর্মকর্তা নিয়োগ করে তার বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য পুলিশ সুপারকে নির্দেশ দেন।