• রোববার ২৬ মে ২০২৪ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১১ ১৪৩১

  • || ১৭ জ্বিলকদ ১৪৪৫

আলোকিত ভোলা
ব্রেকিং:
ঢাকায় কোনো বস্তি থাকবে না, দিনমজুররাও ফ্ল্যাটে থাকবে অগ্নিসংযোগকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের হুঁশিয়ারি বঙ্গবাজারে বিপণী বিতানসহ চারটি উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন নজরুলের বলিষ্ঠ লেখনী মানুষকে মুক্তি সংগ্রামে উদ্দীপ্ত করেছে জোটের শরিক দলগুলোকে সংগঠিত ও জনপ্রিয় করতে নির্দেশ সন্ধ্যায় ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে রেমাল বঙ্গবাজার বিপনী বিতানসহ ৪ প্রকল্প উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী কৃষিতে ফলন বাড়াতে অস্ট্রেলিয়ার প্রযুক্তি সহায়তা চান প্রধানমন্ত্রী বাজার মনিটরিংয়ে জোর দেওয়ার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর ‘বঙ্গবন্ধু শান্তি পদক’ দেবে বাংলাদেশ ইরানের প্রেসিডেন্টের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর শোক রাইসি-আমির আব্দুল্লাহিয়ান মারা গেছেন: ইরানি সংবাদমাধ্যম সকল ক্ষেত্রে সঠিক পরিমাপ নিশ্চিত করার আহ্বান রাষ্ট্রপতির ওজন ও পরিমাপ নিশ্চিতে কাজ করছে বিএসটিআই: প্রধানমন্ত্রী চাকরির পেছনে না ছুটে যুবকদের উদ্যোক্তা হওয়ার আহ্বান ‘সামান্য কেমিক্যালের পয়সা বাঁচাতে দেশের সর্বনাশ করবেন না’ ষড়যন্ত্র মোকাবেলা করে আওয়ামী লীগ দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আজ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আগামীকাল ন্যায়বিচার নিশ্চিত করতে বিচারকদের প্রতি আহ্বান রাষ্ট্রপতির

আমানত আত্মসাৎকারীদের মৃত্যুদণ্ড হওয়া উচিত

আলোকিত ভোলা

প্রকাশিত: ২০ মার্চ ২০২৪  

সোনালী ব্যাংকের ঋণ দুর্নীতির মামলায় হলমার্ক গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) তানভীর মাহমুদ ও তার স্ত্রী গ্রুপের চেয়ারম্যান জেসমিন ইসলামকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়ে আদালত বলেছে, জনগণের আমানত আত্মসাৎকারীদের মৃত্যুদণ্ড হওয়া উচিত। তবে আইনে না থাকায় তাদের যাবজ্জীবন সাজা দিতে হয়েছে।

সোনালী ব্যাংকের প্রায় ৪ হাজার কোটি টাকার ঋণ কেলেঙ্কারির একটি মামলায় গতকাল মঙ্গলবার এ রায় দিয়েছেন ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-১-এর বিচারক মো. আবুল কাশেম।

হলমার্কের এমডি ও চেয়ারম্যান ছাড়াও ৭ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছে আদালত। এ ছাড়া সোনালী ব্যাংকের ৮ কর্মকতা এবং ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক এক চেয়ারম্যানকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের পাশাপাশি তানভীর মাহমুদ ও জেসমিন ইসলামকে ৫ কোটি টাকা অর্থদণ্ডসহ প্রতারণার আরেক ধারায় তাদের ৭ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড, ২৫ লাখ টাকা করে অর্থদণ্ড দিয়েছেন বিচারক।

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) এ মামলার রায়ের পর্যবেক্ষণে বিচারক বলেন, ‘এই মামলার বিষয়টি দেশের ব্যাংকিং ইতিহাসে এক বিস্ময়কর ঘটনা। যে অপরাধীরা দেশের জনগণের আমানত, দেশের ব্যাংকিং ব্যবস্থা, দেশের অর্থনীতিকে খেলো মনে করেন, তাদের মৃত্যুদণ্ডের মতো সাজা হওয়া উচিত। কিন্তু সংশ্লিষ্ট আইনে সর্বোচ্চ সাজা যাবজ্জীবন কারাদণ্ড। এ অবস্থায় অপরাধের সঙ্গে সরাসরি জড়িতদের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হলো।’

রায়ে যাবজ্জীবন দণ্ডপ্রাপ্ত অপর আসামিরা হলেন হলমার্কের সহকারী উপমহাব্যবস্থাপক সাইফুল হাসান, নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ আব্দুল মতিন, জেনারেল ম্যানেজার তুষার আহম্মেদ, ম্যাক্স স্পিনিং মিলসের মালিক মীর জাকারিয়া, প্যারাগণ গ্রুপের এমডি সাইফুল ইসলাম রাজা, নকশী নিটের এমডি আব্দুল মালেক এবং টি অ্যাণ্ড ব্রাদার্সের পরিচালক তসলিম হাসান। যাবজ্জীবন দণ্ডের পাশাপাশি তাদের ১০ লাখ টাকা করে অর্থদণ্ড ও প্রতারণার আরেক ধারায় তাদের ৭ বছরের সশ্রম কারাদণ্ডের পাশাপাশি ২ লাখ টাকা করে অর্থদণ্ড দিয়েছে আদালত।

এ ছাড়া সোনালী ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক হুমায়ুন কবির, সাবেক জিএম ননী গোপাল নাথ,  সাবেক জিএম মীর মহিদুর রহমান, ডিএমডি মাইনুল হক, উপমহাব্যবস্থাপক (ডিজিএম) মো. সফিজউদ্দিন আহমেদ, এজিএম কামরুল হাসান খান ও সোনালী ব্যাংক ধানমণ্ডি শাখার জ্যেষ্ঠ নির্বাহী কর্মকর্তা মেহেরুন্নেছা মেরীকে ১০ বছর সশ্রম কারাদণ্ড, ১০ লাখ টাকা করে অর্থদণ্ড এবং প্রতারণার আরেক ধারায় তাদের ৭ বছরের কারাদণ্ড, ২ লাখ টাকা অর্থদণ্ড দিয়েছে আদালত। সাভারের হেমায়েতপুরের তেঁতুলঝোড়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মো. জামাল উদ্দিন সরকারকে এক ধারায় ৫ বছরের কারাদণ্ড এবং ৫ লাখ টাকা অর্থদণ্ড দেওয়া হয়েছে। আরেক ধারায় দেওয়া হয়েছে ২ বছরের কারাদণ্ড ও ২ লাখ টাকা অর্থদণ্ড।

যাবজ্জীবন দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের মধ্যে তানভীর, জেসমিন, আবদুল মালেক ও তুষার রায়ের সময় আদালতে ছিলেন। পরে তাদের কারগারে পাঠানো হয়। বাকি ৫ জন পলাতক।

জামিনে থাকা জামাল উদ্দিন তার সাজার রায় শোনার পর পালিয়ে যান বলে জানিয়েছেন দুদকের আইনজীবী মীর আহমেদ আলী সালাম।

ঋণ কেলেঙ্কারির ঘটনায় হলমার্কের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে ১১টি। এর মধ্যে ১টি মামলার রায় হয়েছে গতকাল। আর হলমার্ক সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে ২৮টি। এসব মামলা বিচারাধীন।

গত ২৮ জানুয়ারি মামলার যুক্তিতর্কের শুনানি শেষে আদালত রায়ের তারিখ ২৮ ফেব্রুয়ারি দিন ধার্য করে। তবে ওই দিন রায় থেকে মামলাটি উত্তোলন করে আরও দুই সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণের জন্য দুদকের পক্ষ থেকে আবেদন করা হলে আদালত তা মঞ্জুর করে। এরপর দুই ম্যাজিস্ট্রেটের সাক্ষ্য গ্রহণ করে আদালত। ১২ মার্চ দুদক ও আসামিপক্ষের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে রায়ের তারিখ গতকাল ধার্য করেন।

মামলায় অস্তিত্বহীন ম্যাক্স স্পিনিং মিলসের নামে প্রায় ৫২৬ কোটি টাকা ঋণ নিয়ে ১০ কোটি ৫০ লাখ টাকা পরস্পর যোগসাজশে আত্মসাৎ করেন আসামিরা। ২০১২ সালের ৪ অক্টোবর আসামিদের বিরুদ্ধে প্রতারণা, জালিয়াতি, অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে রাজধানীর রমনা থানায় এ মামলাটি করে দুদক। ২০১৬ সালের ২৭ মার্চ ঢাকার মহানগর দায়রা আসামিদের বিরুদ্ধে এ মামলার অভিযোগ গঠন করে ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-১-এ স্থানান্তরের আদেশ দেয়। মামলা চলাকালে আদালত ৫৭ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ করে। আসামিপক্ষে ছিলেন আইনজীবী শাহীনুর রহমান।